Bishnupur Travel Guide in Bengali | টেরাকোটার শহর বিষ্ণুপুর ভ্রমণ গাইড

0
(0)

বিষ্ণুপুর ভ্রমণ গাইড (Bishnupur Travel Guide in Bengali): কোথায় কোথায় ঘুরতে যাবেন বিষ্ণুপুরে? কি কি দেখার জায়গা রয়েছে বিষ্ণুপুরে? কিভাবে যাবেন? কত খরচ হবে? জানুন টেরাকোটার শহর বিষ্ণুপুর ভ্রমণের সম্পূর্ণ গাইড ও টিপস।

বিষ্ণুপুর পশ্চিমবঙ্গের রাড়ের একটি শহর যা পোড়ামাটির মন্দিরের জন্য বিখ্যাত। যদিও পোড়ামাটির মন্দিরের জন্য বিখ্যাত এই বিষ্ণুপুরে বেশ কয়েকটি ল্যাটেরাইট পাথরের মন্দিরও রয়েছে। বিষ্ণুপুরে আরও বেশ কয়েকটি প্রাচীন ধর্মীয় এবং অ-ধর্মীয় কাঠামো রয়েছে।

পশ্চিমবঙ্গের যে কোনও শহরের ঐতিহাসিক স্থানের সংখ্যার চেয়ে এই শহরের ঐতিহাসিক স্থানের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। 1998 সাল থেকে পোড়ামাটির মন্দিরগুলি ইউনেস্কোর ঐতিহ্যবাহী স্থানগুলির তালিকায় এসেছে।

Bishnupur Travel Guide in Bengali
Bishnupur Travel Guide in Bengali

পোড়ামাটির মন্দিরের জন্য বিখ্যাত পশ্চিমবঙ্গের একটি ছোট শহর, বিষ্ণুপুর (Bishnupur) পর্যটকদের মধ্যে বিশেষত স্থাপত্য, সংগীত এবং হস্তশিল্প সহ সমৃদ্ধ সংস্কৃতির জন্য বিখ্যাত। বিষ্ণুপুর সংস্কৃতি মনস্ক পর্যটকদের জন্য একটি আকর্ষণে রূপান্তরিত হয়েছে। এই প্রতিবেদনে আমি বিষ্ণুপুর ভ্রমণ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি:

১.ইতিহাস:

বিষ্ণুপুর গুপ্ত আমলে স্থানীয় হিন্দু রাজারা শাসন করতেন। এই জায়গার মল্ল শাসকদের পরে এই জমিটিকে মল্লভূমও বলা হয়। মল্ল শাসকরা বৈষ্ণব ছিলেন এবং এই জায়গায় ১৭ এবং ১৮ শতকে বিখ্যাত পোড়ামাটির মন্দিরগুলি তৈরি করেছিলেন।

প্রায় এক হাজার বছর ধরে এটি মল্লভূমের মল্ল রাজাদের রাজধানী ছিল। যার মধ্যে বাঁকুড়া একটি অংশ ছিল, যতদিন না মুঘল সাম্রাজ্যের বংশের শেষ রাজাদের অধীনে মুগল সাম্রাজ্য দুর্বল হয়ে পড়েছিল ততদিন ছিল।

মল্ল রাজা বীর হাম্বির ও তাঁর উত্তরসূরি রাজা রঘুনাথ সিংহ দেব এবং বীর সিংহ দেবের পৃষ্ঠপোষকতায় বিষ্ণুপুরকে বাংলার অন্যতম প্রধান সংস্কৃতি হিসাবে গড়ে তুলেছিল।

২.বিষ্ণুপুরের সৌন্দর্য ও দর্শনীয় স্থান:

বিষ্ণুপুর (Bishnupur) একটি মন্দিরের শহর।এর মধ্যে বেশিরভাগটি মল্ল রাজাদের আমলে টেরাকোটায় নির্মিত হয়েছিল, যারা ব্রিটিশদের আগমনের পূর্বে এই অঞ্চলটিতে শাসন করেছিলেন। বিষ্ণুপুরে আরও কয়েকটি ধর্মীয় ও অ-ধর্মীয় কাঠামোর পাশাপাশি বেশ কয়েকটি ল্যাটেরাইট পাথর মন্দিরও ছিল।

রাসমঞ্চ:

১৬০০ সালে বীর হাম্বির নির্মিত, এটি বিষ্ণুপুরের প্রাচীনতম কাঠামো। এটির খিলানযুক্ত প্রবেশদ্বারগুলি স্তম্ভ দ্বারা পৃথক করে গঠিত। এটি স্থাপত্যগতভাবে অনন্য এবং এটি পুরো বাংলায়, সম্ভবত পুরো ভারতে একটি বিশেষ ধরণের স্থাপত্য।

দুর্ভাগ্যক্রমে কয়েকটি পদ্মের মোটিফ বাদে রাসমঞ্চে কোনও পোড়ামাটির শিল্পকর্ম নেই। এটি কোনও মন্দির নয় এবং তাই কোনও মূর্তি রাখা হয় না। তবে রাস উৎসব চলাকালীন বিষ্ণুপুরের বিভিন্ন মন্দির থেকে সমস্ত প্রতিমা প্রকাশ্যে প্রদর্শনের জন্য রাসমঞ্চে আনা হয়েছিল।

শ্যামরাই মন্দির (পঞ্চ রত্ন মন্দির):

মন্দিরটির পাঁচটি চূড়া রয়েছে, তাই নাম পঞ্চরত্ন। রাজা রঘুনাথ সিংহ ১৬৪৩ সালে নির্মিত করেছিলেন এই মন্দির । এটি বিষ্ণুপুরের বৃহত্তম মন্দিরগুলির মধ্যে একটি। চারদিকেই তিনটি প্রবেশদ্বার দিয়ে মন্দিরটিতে প্রবেশ করা যায়। সমস্ত দেওয়ালে শ্রীকৃষ্ণের জীবনের বৈশিষ্ট্যযুক্ত টেরাকোটার খোদাই করে সজ্জিত।

কেষ্টোরাই মন্দির :

এই স্থাপত্যটি অসাধারণ দুটি ঝুপড়ির মতো আকৃতির দুটি কাঠামোর উপরে একটি ছোট বারান্দা যুক্ত মন্দির। এই মন্দিরটি স্থাপত্য দৃষ্টিকোণ থেকে সবচেয়ে আকর্ষণীয়। ১৬৫৫ সালে রাজা রঘুনাথ সিংহ দেব দ্বারা নির্মিত এটি বাংলায় পোড়ামাটির শিল্পের অন্যতম সেরা উদাহরণ হিসাবে বিবেচিত হয়। মন্দিরের চারটি দিকই বিস্তৃত।এই মন্দিরটি অত্যন্ত জটিল টেরাকোটা প্যানেলগুলি দিয়ে আবৃত।

রাধেশ্যাম মন্দির:

কেষ্টোরাই মন্দিরের ঠিক পাশেই রাধেশ্যাম মন্দির। এই এক-রত্না মন্দিরটি ল্যাটেরাইট পাথর দ্বারা নির্মিত এবং এতে চুনাপাথরেরও সজ্জা রয়েছে। মন্দিরটি উঁচু দেয়াল দ্বারা আবদ্ধ এবং প্রবেশ দ্বারটি তিনটি গম্বুজযুক্ত ইসলামী স্টাইলের প্রবেশপথ দিয়ে গঠিত। ১৭৫৮ সালের মন্দিরটি মল্ল রাজা চৈতন্য সিংহ নির্মাণ করেছিলেন।

লালজি মন্দির:

কিছুটা দূরে রাধা লালজিউ মন্দিরটি, রাধেশ্যাম মন্দিরের চেয়ে 100 বছর আগে নির্মিত। মন্দিরটি একই রকম একক কাঠামো অনুসরণ করে নির্মাণ করা হয়। ১৬৫৮ সালে মল্ল রাজা বীর সিংহ দ্বারা নির্মিত এটি বিষ্ণুপুরের সেরা ল্যাটেরাইট পাথর মন্দির হিসাবে বিবেচিত হয়।

বড়ো পাথর দরজা (বড় স্টোন গেটওয়ে):

এটি বিষ্ণুপুরের দুর্গ মন্দিরের দুটি প্রবেশদ্বারের মধ্যে দ্বিতীয়। এটি ছোট পাথরের প্রবেশপথের উত্তরে অবস্থিত এবং আকারে অনেক বড়। অতীতে এতে সম্পূর্ণ পলেস্তারার আবরণ ছিল।

ছিন্নমস্তার মন্দির:

দেবী ছিন্নমস্তা বিচ্ছিন্ন মাথাযুক্ত দেবীর মন্দির। তিনি এক হাতে তার কাটা মাথাটি বহন করেন এবং অন্যদিকে তিনি খারা (অস্ত্রের মতো তরোয়াল) বহন করেন। বর্তমান ছিন্নমস্তা মন্দিরটি একটি নতুন কাঠামো দিয়ে তৈরি এবং এর কোনও ঐতিহাসিক উপাদান নেই। এই মন্দিরে প্রতিমার ফটোগ্রাফি কঠোরভাবে নিষিদ্ধ।

জোড় মন্দির:

তিনটি একক চূড়া দ্বারা (এক রত্ন) মন্দিরের এই গুচ্ছটি তৈরি এবং নন্দলাল মন্দিরের বিপরীত দিকে অবস্থিত। তিনটি মন্দিরই বর্গক্ষেত্র পরিকল্পনা অনুসরণ করে নির্মাণ করা হয়েছে।এই মন্দিরগুলি মল্ল রাজা গোপাল সিংহ তৈরি করেছিলেন।

মদনমোহন মন্দির:

রাজা দুর্জানা সিং দেব একারত্ন রীতিতে মন্দিরটি তৈরি করেছিলেন, খোদাই কার্নিশযুক্ত একটি বর্গাকার সমতল ছাদযুক্ত বিল্ডিং, এটি একটি চূড়া দ্বারা সজ্জিত। দেয়ালগুলিতে মনোরম খোদাই করা রামায়ণ, মহাভারত এবং পুরাণগুলির চিত্র দিয়ে চিত্রিত করা আছে।

মৃন্ময়ী মন্দির:

রাধশ্যাম মন্দিরের ঠিক বিপরীতে মৃন্ময়ী মন্দির, বিষ্ণুপুরের প্রাচীনতম মন্দির। দুর্ভাগ্যক্রমে পুরাতন কাঠামোর আর অস্তিত্ব নেই এবং মৃন্ময়ীর প্রাচীন প্রতিমাটি একটি নতুন নির্মিত কাঠামোতে স্থাপন করা হয়েছে। মৃন্ময়ী দেবী দুর্গার অবতার এবং এই মন্দিরে দুর্গাপূজা হয়।

৩.বিষ্ণুপুরে গিয়ে কী কী কেনাকাটা করবেন:

বিষ্ণুপুরে হ্যান্ডলুম শাড়িগুলির প্রচুর চাহিদা রয়েছে। বালুচরী শাড়ি এখন বিষ্ণুপুরের বিখ্যাত পণ্য। মন্দিরগুলির পোড়ামাটির আদল দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়ে শাড়িগুলি টেরাকোটার  প্রতিরূপে বোনা হয় যা মহাকাব্য, ঐতিহাসিক এবং ধর্মীয় গ্রন্থগুলির গল্প চিত্রিত করে। স্বর্ণচুরি বিষ্ণুপুরের আর একটি বিখ্যাত শাড়ি।

বিষ্ণুপুরে শপিংয়ের সময় পোড়ামাটির আইটেমগুলির বিক্রি সবথেকে বেশি। বাঁকুড়ার টেরাকোটার দীর্ঘ গলা জিরাফের মত ঘোড়া এখন বাংলার হস্তশিল্পের প্রতীক। এই পোড়ামাটির ঘোড়াগুলি বিভিন্ন আকারে উপলব্ধ। ঘোড়াগুলি ছাড়াও বিভিন্ন পোড়ামাটির নিদর্শন পাওয়া যায়।

চুড়ি সহ শঙ্খের শেল দিয়ে তৈরি সজ্জিত শঙ্খ শেল  এই আইটেমগুলো বিষ্ণুপুরের জনপ্রিয় শপিং আইটেম।

৪.কীভাবে যাবেন বিষ্ণুপুরে?

কলকাতা থেকে বিষ্ণুপুর যাওয়ার জন্য আপনি ধর্মতলা বা এসপ্ল্যানেড এড়িয়া থেকে বাসে করে সরাসরি বিষ্ণুপুর যেতে পারেন।

এছাড়াও হাওড়া থেকে বিষ্ণুপুর যাওয়ার অনেক ট্রেন চলাচল করে। যেমন চক্রধরপুর এক্সপ্রেস, পুরুলিয়া এক্সপ্রেস ইত্যাদি। আপনাকে বিষ্ণুপুর জংশনে নামতে হবে।

৫.কোথায় থাকবেন:

বিষ্ণুপুরে থাকার জন্য প্রচুর হোটেল রয়েছে ৪০০ টাকা থেকে শুরু করে ৪০০০ টাকা পর্যন্ত সব রেঞ্জের হোটেল লজ রয়েছে।

আপনাদের এই তথ্য কেমন লেগেছে?

এই পোস্টে মতামত দিতে একটি স্টারে ক্লিক করুন!

Average rating 0 / 5. Vote count: 0

No votes so far! Be the first to rate this post.

যেহেতু আপনি এই পোস্টটি দরকারী বলে মনে করেছেন ...

সোশ্যাল মিডিয়াতে আমাদের অনুসরণ করুন!

আমরা দুঃখিত যে এই পোস্টটি আপনার জন্য দরকারী ছিল না!

চলুন আমাদের এই পোস্ট উন্নত করা যাক!

আমাদের বলুন কিভাবে আমরা এই পোস্ট উন্নত করতে পারি?

Leave a Comment