agrimarketing.wb.gov.in 2021 Agriculture Marketing Department of West Bengal

0
(0)

Agriculture Marketing Department of West Bengal: পশ্চিমবঙ্গের এগ্রিকালচার মার্কেটিং একটি বিশাল মাপের বিপণন কেন্দ্র।

এগ্রিকালচার এর বিভিন্ন রকম লাভ এবং খাদ্যদ্রব্য ও চাষের জিনিসপত্র কেনাবেচা করাটাও বিশেষভাবে জরুরি।

পশ্চিমবঙ্গ এগ্রিকালচার মার্কেটিং:

পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে এগ্রিকালচার মার্কেটিং ডিপার্টমেন্টের (Agriculture Marketing Department) এর অধীনে তিনটি সংস্থা আছে।

১) ডিরেক্টরেট অফ এগ্রিকালচারাল মার্কেটিং ২) ওয়েস্ট বেঙ্গল স্টেট এগ্রিকালচারাল মারকেটিং বোর্ড ৩) পশ্চিমবঙ্গ এগ্রি মার্কেটিং কর্পোরেশন লিমিটেড

চলুন এই সংস্থা গুলির কাজ সম্পর্কে জানা যাক:-

#১) ডিরেক্টরেট অফ এগ্রিকালচারাল মার্কেটিং:

এগ্রিকালচার মার্কেটিং এর অধিদপ্তর হল উপভোক্তাদের বিষয়ক সকল দপ্তরের কেন্দ্রীয় দপ্তর। পাশাপাশি মার্কেটিং এর ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়, এই সংস্থা দৈনিক বাজার দর সংগ্রহ করে এবং বাজার থেকে উৎপাদন যত তথ্য সংগ্রহ করেন তার পাশাপাশি এই অধিদপ্তর নজর রাখে, যে বাজারদরের গতি প্রকৃতির উপর এবং সেই তথ্য তারা AGMARKNET এখানে নিয়মিত আপলোড করে।

#২) ওয়েস্ট বেঙ্গল স্টেট এগ্রিকালচারাল মার্কেটিং বোর্ড:

ওয়েস্ট বেঙ্গল এগ্রিকালচারাল প্রডিউস মার্কেটিং (রেগুলেশন) অ্যাক্ট, ১৯৭২ বিধির ৩৬ নম্বর ধারা মেনে ওয়েস্ট বেঙ্গল এগ্রিকালচার মার্কেটিং বোর্ড গঠন হয়। এই বোর্ডের দায়িত্ব, বাজার কমিটি গুলির কার্যকলাপ এর সমন্বয় রক্ষণাবেক্ষণ অভিমুখ ও পরিচালনা করা।

সমস্ত কৃষকদের কথা মাথায় রেখেই বিভিন্ন বাজার কমিটি গুলির নানারকম প্রকল্পের কারিগরি অনুমোদন দিয়ে থাকে। এই বোর্ড কৃষক বাজার তৈরি করছে, এর পাশাপাশি বিভিন্ন বাজার সংযোগকারী রাস্তা ওয়াজেদের পরিকাঠামোর দিকেও নজর রাখে এই বোর্ড।

Krishak Bazar of West Bengal Government
Krishak Bazar of West Bengal Government

পুরনো সমস্ত বাজার কমিটিগুলোকে পুনরায় সংগ্রহীত করে ও একত্রিত করে ২১ টি জেলাস্তরে বাজার কমিটি ও একটি মহাকুমা স্তরের বাজার কমিটি গঠন করা হয়েছে।

ওয়েস্ট বেঙ্গল এগ্রিকালচার মার্কেটিং রেগুলেশন আমেন্ডমেন্ট অ্যাক্ট 2017 তে চাষী ও ক্রেতাদের মধ্যে বিপণন অনেক সহজ হয়েছে এই সংস্থার মাধ্যমে।

#৩) পশ্চিমবঙ্গ এগ্রি মার্কেটিং কর্পোরেশন লিমিটেড:

এই সংস্থা বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ও চাষী গোষ্ঠীদের সঙ্গে গোবিন্দভোগ, তুলাইপাঞ্জি চাল কে ভারতীয় বিদেশে বঙ্গকৃষিশ্রী  ব্র্যান্ড নামে জনপ্রিয় করে তুলতে মার্কেটিং এর কর্মসূচি শুরু করেছে।

এছাড়াও সুগন্ধি চাল যেমন- গোবিন্দভোগ, তুলাইপাঞ্জি চাল, মুনিয়া, কাটারিভোগ, রাধা তিলক, রাধুনী পাগল, চালের প্রচারমূলক ড্রাইভ শুরু করেছে।

তাছাড়া প্রশাসনিক সুবিধা অবকাঠামোগত পুনর্বিবেচনার জন্য সুফল বাংলা প্রকল্প শুরু করেছে এই সংস্থা, 2016-17 সালের তারিফ মরসুমে এই সংস্থা বাঁকুড়া ও হুগলি জেলা থেকে বাজার কমিটির মাধ্যমে ধান সংগ্রহ করেছে।

এখনো পর্যন্ত এক ১১২৯ জন চাষির থেকে ৫৯৪৫.৩১২ মেট্রিক টন ধান সংগ্রহ করা হয়েছে। যাদের সর্বনিম্ন সমর্থন মূল্য হিসেবে কুইন্টাল পিছু ১৫৫০ টাকা প্রদান করেছে তাদের ব্যাংকে।

এগ্রিকালচার মার্কেটিং ডিপারমেন্ট এর কাজ:

বিভিন্ন রকম কৃষিপণ্যের বাড়তি উৎপাদনেও বিক্রির জন্য আর কোনো রকম সমস্যায় পড়তে হবে না বাংলার কৃষক দের। রাজ্যের কৃষকদের জন্য বিশ্বের বাজার খুলে দিচ্ছে রাজ্য সরকার। এক জানলা নীতি এবার কৃষিতেও।

দি ওয়েস্ট বেঙ্গল এগ্রিকালচার প্রডাক্ট মারকেটিং রেগুলেশন সংশোধন এর ফলে রাজ্যের সব বাজারে একটিমাত্র লাইসেন্স থাকলেই কোন ব্যবসায়ী রাজ্যের কৃষকদের উৎপাদিত সামগ্রী কিনতে পারবেন। কেবল একটি মাত্র জায়গায় নির্দিষ্ট ফি দিলেই বাংলার যে কোন জায়গায় তারা জিনিস বিক্রি করতে পারবেন। এর আগে প্রত্যেকটি কৃষি পণ্যের জন্য আলাদা লাইসেন্স এর দরকার হতো।

তাছাড়াও অনলাইনে জিনিস বিক্রির সুযোগ পাবেন কৃষকরা। রাজ্যের বিভিন্ন জেলার কেন্দ্রীয় বাজারে অনলাইন মার্কেটিং সুবিধা দেবে রাজ্য সরকার। অন্যান্য রাজ্যেও দ্রব্য রপ্তানি করতে পারবেন কৃষকরা অর্থাৎ বাংলার কৃষকরা অনেক বড় বাজারে তাদের সামগ্রী বিক্রি করতে পারবেন।

এছাড়াও কৃষকদের ভালো ফসল বিক্রি ও মার্কেটিং এর জন্য প্রশিক্ষণ দেওয়ার পরিকল্পনা করছে রাজ্য। যেমন ধরুন- ভালো পদ্ধতিতে কৃষি পণ্য উৎপাদন ও বাজারজাত করনের জন্য তরুণ কৃষকদের প্রশিক্ষণ দেওয়ার জন্য পদক্ষেপ গ্রহণ করছে রাজ্য সরকার।

রাজ্য এগ্রিকালচার মার্কেটিং (Agriculture Marketing) বিভাগ পরবর্তী এক বছরের মধ্যে ১০০৩ জন যুবককে প্রশিক্ষণ প্রদানের লক্ষ্যমাত্রা রেখেছে। প্রত্যেককে ৯০ দিনের জন্য প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে এবং প্রশিক্ষণ কর্মসূচি সফল করতে এক একটি জেলার দুটি করে ব্লকে এই কর্মসূচি সংঘটিত হবে।

এগ্রিকালচার মার্কেটিং ডিপার্টমেন্টের ওয়েবসাইট:

যেহেতু এখন সমস্ত কাজ অনলাইনে সম্পন্ন করা যায়। তাতে যেমন খরচ কম তেমনি সময় বাঁচানো যায় অনেকটাই। তাই এই ডিপার্টমেন্টের জন্য ওয়েবসাইটটি হল: agrimarketing.wb.gov.in

এগ্রিকালচার মার্কেটিং ডিপার্টমেন্টের ওয়েবসাইট এর কাজ:

অনেক আগে কৃষকরা অনেক কষ্ট করে কৃষি পণ্য উৎপাদন করে তারপর সেগুলো কে বাজারে নিয়ে বিক্রি করে তবেই তার লাভ ভোগ করতে পারত।

Agriculture Marketing Department of West Bengal Government
Agriculture Marketing Department of West Bengal Government

তবে উন্নত প্রযুক্তির যুগে অনলাইনে বেশিরভাগ কৃষক তাদের সমস্ত রকম অসুবিধা সুবিধা এবং বিভিন্ন রকম পরামর্শ এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে অনলাইনে ঘরে বসেই জানতে পারেন। এছাড়াও অনলাইনে জিনিস বিক্রির সুযোগ পাবেন কৃষকরা।

কোন বাজারে তারা তাদের কৃষিজাত পণ্য বিক্রি করতে পারবেন সেদিকেও বিশেষভাবে খেয়াল রাখতে পারেন। তাছাড়া বাজার দর জানার বিষয় তেও তারা আজকে পিছিয়ে নেই।

এগ্রিকালচার মার্কেটিং (Agriculture Marketing of West Bengal) এর বিষয়ে কোন তথ্য জানার জন্য এই ডিপার্টমেন্টের ওয়েবসাইটে গিয়ে তথ্য সংগ্রহ করা যাবে অনায়াসেই। agrimarketing.wb.gov.in

পশ্চিমবঙ্গ এগ্রিকালচার মার্কেটিং ডিপার্টমেন্ট এর বেশ কিছু তথ্য:

এই ডিপার্টমেন্টের Minister-in-charge:

শ্রী বিপ্লব মিত্র

ঠিকানা: খাদ্য ভবন 4th floor Block B 11A, Mirza Galib Street, Kolkata- 700087

ফোন নাম্বার: 2252-0619

ফ্যাক্স: 2252-0307

ইমেইল এড্রেস: micagrimarketing@gmail.com

এই ডিপার্টমেন্টের সেক্রেটারি (অ্যাডিশনাল চার্জ):

শ্রী রাজেশ কুমার সিনহা (আই এ এস)

ঠিকানা: খাদ্য ভবন, 4th floor 11A, Mirza Galib Street Kolkata-700087

ফোন নাম্বার: 2252-0441

ফ্যাক্স: 2252-0652

ইমেইল এড্রেস: agrmkt-wb@bangla.gov.in

এই ডিপার্টমেন্টের  Nodal অফিসার:

শ্রী অশোক কুমার দাস (স্পেশাল সেক্রেটারি)

ঠিকানা: খাদ্য ভবন, 4th floor,11A, Mirza Galib Street Kolkata- 700087

ফোন নাম্বার: 2252-0499

ফ্যাক্স: 2252-0574

ইমেইল এড্রেস: agrimarketing.wb@gmail.com অথবা dasak1729@gmail.com

যেসব কৃষকরা কৃষি কাজ কে তাদের জীবিকা নির্বাহের জন্য পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন, তাদের জন্য এই মার্কেটিং ব্যবস্থা ভীষণভাবে জরুরী।

তাদের কষ্ট করে উৎপন্ন করা খাদ্য শস্য সঠিক মূল্যে, সঠিক জায়গায় বিক্রি করার মাধ্যমে তাদের জীবিকা নির্বাহ হওয়ার পাশাপাশি তাদের অনেক স্বপ্ন পূরণও হতে পারে।

সেই কারণে এগ্রিকালচার মার্কেটিং ডিপার্টমেন্ট (Agriculture Marketing Department of West Bengal) বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে, ছোট থেকে বড় সমস্ত রকম কৃষকদের জন্য। তাদের কষ্টের দাম এবং সঠিক জায়গা পাওয়ার জন্য পশ্চিমবঙ্গ সরকার এমন একটি উপহার তাদের দিয়েছে।

এর ফলে শুধুমাত্র দেশে অথবা রাজ্যে নয়, বিদেশে পাড়ি দিচ্ছে বাংলার কৃষকের তৈরি করা বিভিন্ন রকম খাদ্যশস্য।

Official WebsiteClick Here
HomeClick Here

আপনাদের এই তথ্য কেমন লেগেছে?

এই পোস্টে মতামত দিতে একটি স্টারে ক্লিক করুন!

Average rating 0 / 5. Vote count: 0

No votes so far! Be the first to rate this post.

যেহেতু আপনি এই পোস্টটি দরকারী বলে মনে করেছেন ...

সোশ্যাল মিডিয়াতে আমাদের অনুসরণ করুন!

আমরা দুঃখিত যে এই পোস্টটি আপনার জন্য দরকারী ছিল না!

চলুন আমাদের এই পোস্ট উন্নত করা যাক!

আমাদের বলুন কিভাবে আমরা এই পোস্ট উন্নত করতে পারি?

Leave a Comment