টাটা মেমোরিয়াল হাসপাতালঃ প্রতিষ্ঠা, রেজিস্ট্রেশন ও অন্যান্য বিষয়ে জেনে নিন

আমাদের জীবনের নানা পর্যায়ে বিভিন্ন রোগের মোকাবেলা করতে হয়। কখনো নিজের, কখনোবা নিকটাত্মীয়ের সমস্যায় নানা হাসপাতালে ছুটাছুটি করতে হয়। প্রায়ই এই বিপদে আমরা দিশেহারা হয়ে যাই। এ হাসপাতাল ঐ হাসপাতাল খুঁজে বেড়াই, কোথায় ভালো চিকিৎষা পাওয়া যাবে, কোন হাসপাতালে চিকিৎষা খরচ কম হবে। অনেক সময় ঐ গোলকধাঁধায় পড়ে রোগীর চিকিৎসা সেবা ব্যহত হয়। 

তাই আমাদের যদি আগে থেকেই জানা থাকে যে, ভারতের কোন হাসপাতালে সহজেই ভালো চিকিৎষা সেবা পাওয়া যায় তাহলে কোন বিপদের সময়ে আপনি সহজেই সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন, কোথায় গিয়ে চিকিৎষা সেবা নেবেন। তাই আমাদের সবারই ভারতের বিভিন্ন হাসপাতাল সম্পর্কে জেনে রাখা উচিত। 

আমাদের বাংলাভূমি সাইটে নিয়মিতভাবে আমাদের দৈনন্দিন জীবনের নানা দরকারী বিষয় নিয়ে আলোচনা করে থাকি। এর ফলে আপনারা অনেক গুরুত্বপূর্ন তথ্য জেনে উপকৃত হতে পারেন। এরই ধারাবাহিকতায় আজ আমরা আপনাদের সাথে আলোচনা করবো ভারতের একটি আধুনিক সুবিধা সম্বলিত হাসপাতাল নিয়ে। যেখানে তুলনামূলক সাশ্রয়ী খরচে আপনি নিজের বা কোন প্রিয়জনের চিকিৎষা সেবা নিতে পারবেন।

 

আজ আমরা আলোচনা করবো টাটা মেমোরিয়াল হাসপাতাল নিয়ে। আমাদের আলোচনায় এই হাসপাতালের চিকিৎষা সেবা, চিকিৎষা খরচ, রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া সহ নানা বিষয় নিয়ে আপনাদের তথ্য দেয়ার চেষ্টা করবো। আসুন দেখে নিই, টাটা মেমোরিয়াল হাসপাতাল নিয়ে বিস্তারিত কিছু কথা। 

হাসপাতালের প্রতিষ্ঠা নিয়ে কিছু কথা

১৯৫২ সালে Indian Cancer Research Centre একটি গবেষনা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলে, যার নাম দেয়া হয় Cancer Research Institute (CRI) ।  ১৯৫৭ সালে স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় এই হাসপাতালের দ্বায়িত্ব নেয় এবং নতুন নামকরন হয় টাটা মেমোরিয়াল সেন্টার। পরবর্তীতে ১৯৬২ সালে এক যুগান্তকারী পদক্ষেপের ফলে  Tata Memorial Hospital এবং Cancer Research Institute এক হয়ে যায়। এর ফলে এই হাসপাতাল ভারতের চিকিৎষা সেবায় এক নতুন দিগন্ত সূচনা করে। 

টাটা মেমোরিয়াল হাসপাতালের বিশেষত্বঃ 

১) এই হাসপাতালে ১৯৮৩ সালে ভারতের প্রথম বোন মেরো ট্রান্সফার করা হয়। 

২) প্রতি বছর এই হাসপাতালে প্রায় ১৮৫০০ অপারেশন হয়ে থাকে। 

৩) প্রতি বছর প্রায় ৬০০০ রোগী এই হাসপাতালে রেডিওথেরাপি চিকিৎষা নিয়ে থাকে। 

৪) প্রতিদিন প্রায় ১৩০০ রোগী এই হাসপাতালের বর্হিবিভাগে চিকিৎষা নিয়ে থাকে। 

৫) ২০১৪ সাল থেকে এই হাসপাতালে চিকিৎষা কাজে রোবট সংযুক্ত করা হয়। এ পর্যন্ত প্রায় ৫০ টি অপারেশন রোবটের মাধ্যমে সম্পন্ন হয়েছে। 

এই হাসপাতালে ক্যান্সারের কি কি বিভাগ রয়েছে? 

বছরের পর বছর ধরে এই টাটা মেমোরিয়াল হাসপাতাল ভারতের ক্যান্সার রোগীদের জন্য আশ্রয়স্থল হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। এই হাসপাতালের কয়েকটি বিভাগে ক্যান্সারের চিকিৎষা করা হয়ে থাকে। আসুন দেখে নিই, ক্যান্সার চিকিৎষার জন্য কি কি বিভাগ রয়েছে।

• Surgical oncology; 

• Head and neck cancer; 

• Gynecological oncology;

• Plastic and reconstructive surgery.

রোগী হিসেবে কিভাবে রেজিস্ট্রেশন করবেন?   

আসুন টাটা মেমোরিয়াল হাসপাতালে অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করার ধাপগুলি দেখে নিই।

১) প্রথমেই টাটা মেমোরিয়াল হাসপাতালের সাইটে (ক্লিক করুন) প্রবেশ করুন। 

২) নিচের ডানপার্শে Online Registration এ ক্লিক করুন। 

৩) নতুন পেজ চালু হলে সেখানে New Registration এ ক্লিক করুন।

৪) সকল দরকারী তথ্য দিয়ে সাবমিট করুন। 

৫) User Name ও Password ঠিক করুন। 

৬) পরবর্তীতে ব্যবহারের জন্য User Name ও Password সংরক্ষন করে রাখুন। 

আজ এখানে আমরা ভারতের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ন হাসপাতাল সম্পর্কে আলোচনা করলাম। এই টাটা মেমোরিয়াল হাসপাতাল দীর্ঘদিন যাবত ভারতের জনগনের জন্য উন্নত ধরনের ক্যান্সার চিকিৎষা দিয়ে আসছে। তাই আমাদের যে কোন প্রিয়জনের চিকিৎষার ক্ষেত্রে আমরা সহজেই এই টাটা মেমোরিয়াল হাসপাতালে চিকিৎষার কথা বিবেচনা করতে পারি। এতে করে আমাদের সময়, অর্থ দুটোই সাশ্রয় হবে। সেই সাথে রোগী সময়মত চিকিৎষা সেবা পেয়ে সুস্থ্য হবার সম্ভাবনা বেড়ে যাবে। সেই সাথে ক্যান্সার চিকিৎষার আধুনিক চিকিৎষা সেবা লাভ করবে। 

আজ আমরা ভারতে খুবই উন্নতমানের ক্যান্সারের চিকিৎষা হয় এমন হাসপাতাল সম্পর্কে জানতে পারলাম। এতে করে অনেক দরিদ্র রোগী এই হাসপাতালে চিকিৎষা নিয়ে মরন ব্যাধি ক্যান্সার হতে রক্ষা পেতে পারে। তাই আমাদের উচিত সবাই কে এই লেখাটি শেয়ার করা। 

আমাদের সাইটের পরবর্তী লেখায় আপনাদের জন্য এই বিষয়ের উপর আরো বিস্তারিত লেখা থাকবে। তাই আমাদের বাংলাভূমি সাইটে নিয়মিত চোখ রাখুন। এই লেখাটি অনেকের কাজে লাগতে পারে তাই লেখাটি যতটুকু সম্ভব শেয়ার করুন, যাতে করে অনেকে এই লেখা থেকে শিক্ষা নিয়ে স্বাস্থ্য সেবা সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারবেন।  

জমি নিয়ে আরো অনেক লেখা পেতে আমাদের সাইটের অন্য লেখাগুলি দেখুন। আমাদের লেখা ভালো লাগলে বা যেকোন মন্তব্য আমাদের ফেসবুক পাতায় লিখুন। আমরা আপনার মন্তব্যের সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেবো। 

Leave a Comment