কোনও ভাড়াটে কখন সম্পত্তির মালিক হতে পারেন?

আমরা মাঝে মাঝেই শুনে থাকি যে, ভাড়াটে একই বাড়িতে দীর্ঘদিন বসবাস করলে ঐ বাড়ীর মালিক হয়ে যায়। এটা কি সত্যি ? আমরা অনেকেই ব্যপারটি ভালোভাবে জানি না। তাই কখনোই সঠিকটি বলতে পারি না। আমরা জানিনা, এ সংক্রান্ত আইন সত্যি সত্যি কি বলেছে। 

 

এজন্য আমাদের সবারই এই আইন সম্পর্কে সঠিকভাবে জানা দরকার। আমাদের জানা থাকলে ভবিষ্যতে ভাড়াটিয়া এবং বাড়ির মালিকের এ সংক্রান্ত বিরোধে সহয়তা করতে পারবো। ঠিক তেমনি বাড়ি ভাড়া দেয়ার সময় কিছু বিষয় লক্ষ্য রেখে বাড়ি ভাড়া দিতে হবে, যাতে করে ভাড়াটিয়া একটা সময় পর বাড়িতে মালিকানা দাবি করতে পারবে না। 

 

আমাদের বাংলাভূমি সাইটে আমরা নিয়মিতভাবে জমি সংক্রান্ত নানা বিষয় নিয়ে আপনাদের সাথে আলোচনা করে থাকি। এর ফলে আপনারা জমি সংক্রান্ত নানা আইন জানতে পারেন এবং এ সংক্রান্ত নানা পরামর্শ পেয়ে থাকেন। 

 

এরই ধারাবাহিকতায় আজ আমরা আপনাদের সাথে ভাড়াটে কখনো সম্পত্তির মালিক হতে পারে কিনা তা নিয়ে আলোচনা করবো। এর ফলে আপনারা ভাড়াটিয়ার অধিকার সম্পর্কে ভালো ভাবে জানতে পারবেন। সেই সাথে কি কি কারণে ভাড়াটিয়া সম্পত্তির মালিকানা দাবি করতে পারবে, তা সম্পর্কে জানতে পারবেন। 

 

আসুন দেখে নিই, ভারতীয় আইনে ভাড়াটিয়ার কি কি অধিকার রয়েছে।

 

মৌখিক চুক্তি না করা

কোন বাড়ির মালিক যদি, শুধুমাত্র মৌখিক চুক্তিতে বাড়ি ভাড়া দিয়ে চায় তাহলে ভাড়াটিয়ার ঐ মৌখিক চুক্তি না করা অধিকার আছে। বাড়ি ভাড়ার চুক্তি লিখিত হওয়া এবং ওই চুক্তিতে বাড়ি ভাড়ার সময়সীমা উল্লেখ থাকা বাঞ্চনীয়। 

 

বাড়িতে শান্তিপূর্ন ভাবে দখল পাওয়া

ভাড়াটিয়া তার ভাড়া করা বাড়িতে শান্তিপূর্নভাবে দখল পাবার অধিকার রাখেন। ভাড়া দেয়ার পর ঐ বাড়িতে বাড়ির মালিক প্রবেশ করতে চাইলেও অনুমতি নিয়ে প্রবেশ করা উচিত। ভাড়া করা বাড়িতে কেউ অযথা বিরক্ত করা ঠিক না। এমনকি বাড়ির মালিকও ভাড়াটিয়াকে বিরক্ত করতে পারবে না। 

 

সময়ের আগেই ভাড়াটিয়াকে বাড়ি ছাড়তে বাধ্য না করা

বাড়ির মালিক চাইলেই ভাড়াটিয়াকে বাড়ি ছাড়তে বাধ্য করতে পারবে না। বাড়ি ভাড়ার চুক্তি অনুসারে, ভাড়াটিয়াকে নির্দিষ্ট সময়ের আগেই বাড়ি ছাড়টে বাধ্য করা বেআইনি। বাড়ির মালিকের বাড়ির প্রয়োজন হলে, ভাড়াটিয়াকে নতুন বাড়ি খুঁজে নেয়ার জন্য কমপক্ষে ১ মাস সময় দিতে হবে। 

 

ভাড়াটিয়ার জমাকৃত অর্থ ফেরত পাওয়া

অনেক সময় বাড়ি ভাড়া করার সময় বাড়ির মালিকের কাছে অর্থ জমা রাখতে হয়। বাড়ি ছেড়ে চলে যাবার সময় বাড়ির মালিক অবশ্যই তার জমাকৃত অর্থ ফেরত দিতে হবে। কোন ভাবেই এই টাকা রাখা যাবে না। 

 

ইচ্ছামত বাড়িভাড়া না বাড়ানো

বাড়ির মালিক চাইলেই প্রতিবছর বাড়ি ভাড়া বাড়াতে পারবেনা। বাড়ি ভাড়া নিয়ে চুক্তিবদ্ধ সময়ের মাঝে বাড়ি ভাড়া বাড়ানো যাবে না। বাড়ি ভাড়া বাড়ানো নিয়ে সরকার নির্ধারিত আইন অনুসারে ভাড়া বাড়ানো যেতে পারে। 

 

বাড়ি ভাড়ার সময় চুক্তির সময়সীমা বাড়ানো

কোন বাড়ির মালিক চুক্তিবদ্ধ সময় শেষ হবার পরেও আবার চুক্তি করার জন্য চাপ প্রয়োগ করতে পারবে না। ভাড়াটিয়ার ইচ্ছা হলে নতুন চুক্তির প্রস্তাব দেবে। 

বাড়ির জল, গ্যাস, ইলেক্ট্রিসিটি সরবরাহ বন্ধ না করা 

বাড়ির মালিক তার ইচ্ছামত ভাড়াটিয়ার জল, ইলেক্ট্রিসিটি, টেলিফোন ইত্যাদি সেবা বন্ধ করতে পারবে না। কোন কারণে বন্ধ করা লাগলে তা পূর্বেই জানাতে হবে। 

 

ভাড়াটিয়া কি বাড়ির মালিকানা দাবি করতে পারে? 

ভারতীয় আইন অনুযায়ী বাড়ির ভাড়াটিয়া ঐ বাড়ির মালিকানা দাবি করতে পারবে, যদি গত ১২ বছর সময়ের মাঝে ভাড়াটিয়া ভাড়া না দিয়ে থাকে এমন পরিস্থিতি হয় তাহলে ভাড়াটিয়া ঐ বাড়ির মালিকানা দাবি করতে পারবে। তার মানে, কোন ভাড়াটিয়া ১২ বছর পর্যন্ত ভাড়া না দিলে সে ওই বাড়ির মালিকানা দাবি করতে পারবে। 

 

এভাবে আজ আমরা ভাড়াটিয়া কিভাবে সম্পত্তির মালিকানা দাবি করতে পারে নিয়ে আলোচনা করলাম। পরবর্তী লেখায় আরো বিস্তারিত লেখা থাকবে। তাই আমাদের পেজে নিয়মিত চোখ রাখুন। এই লেখাটি অনেকের কাজে লাগতে পারে তাই লেখাটি যতটুকু সম্ভব শেয়ার করুন, যাতে করে অনেকে এই লেখা থেকে শিক্ষা নিয়ে জমি সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারবেন।  

Leave a Comment