আমরুত প্রকল্পঃ নাগরিক সুযোগসুবিধা প্রদানের একটি উদ্যোগ

আমরুত প্রকল্প 2023 নাগরিক সুযোগসুবিধা প্রদানের একটি উদ্যোগ

অটল মিশন ফর রিজিউভেনশন অ্যান্ড আরবান ট্রান্সফর্মেশন (আমরুত প্রকল্প) Atal Mission for Rejuvenation and Urban Transformation (AMRUT Scheme) ভারত সরকারের অধীনে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী দ্বারা ২০১৫ সালের জুনে চালু করা হয়েছিল। আমরুত প্রকল্পটি শহুরে অঞ্চলে দরিদ্র ও সুবিধাবঞ্চিতদের প্রধান দৃষ্টি নিবদ্ধ করে জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে বেসামরিক নাগরিক সুযোগসুবিধা প্রদানের একটি উদ্যোগ।

প্রকল্প সম্পর্কে আরও তথ্যের জন্য,যে কেউ অফিসিয়াল ওয়েবসাইটটি দেখতে পারেন – http://amrut.gov.in/ নবজাগরণ ও নগর রূপান্তরের জন্য ২০১৫ সালের জুন মাসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী প্রকল্পটি চালু করেছেন সরকারী আবাসন ও নগর বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের অধীনে, যার উদ্দেশ্য ১ লাখের বেশী বা কাছাকাছি জনসংখ্যার নির্দিষ্ট কিছু শহরে নাগরিক সুবিধা, জল সরবরাহ ও নিষ্কাশন এবং অন্যান্য সুবিধার ব্যবস্থা করা।

আমরুত প্রকল্পঃ নাগরিক সুযোগসুবিধা প্রদানের একটি উদ্যোগ
আমরুত প্রকল্পঃ নাগরিক সুযোগসুবিধা প্রদানের একটি উদ্যোগ

শহরকে পুরো যান্ত্রিক হতে না দেওয়া, প্রাকৃতিক ভারসাম্য বজায় রাখতে পার্ক, খোলা জায়গা এবং পরিবেশ দূষন রোধ করে এমন যানবাহনের প্রচলন ও প্রসার করাও এই প্রকল্পের আওতাভুক্ত। মূলত এই প্রকল্পের মাধ্যমে শহরের নাগরিকরা একই সাথে শহরের সুবিধাও পাবেন, সাথে পরিবেশের ভারসাম্য বজায় থাকে এমন বিষয়ের উন্নয়নও ঘটবে।

সুপ্রিয় পাঠক আজ আমাদের আয়োজন সাজানো হয়েছে আমরুত প্রকল্পের বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা নিয়ে। চলুন দেরী না করে মূল আলোচনায় যাওয়া যাক।

আমরুত প্রকল্পের উদ্দেশ্যসমূহ

আমরুত প্রকল্পটি নগর পুনরুদ্ধার প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে শহুরে অঞ্চলে পর্যাপ্ত নর্দমা ব্যবস্থা এবং জলের সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্য একটি অবকাঠামো স্থাপনের নিমিত্তে চালুকৃত একটি প্রকল্প। আমরুত প্রকল্পের আওতায় রাজ্য বার্ষিক কর্ম পরিকল্পনা জমা দেওয়ার প্রথম রাজ্য ছিল রাজস্থান।

অন্যান্য বিভিন্ন প্রকল্প যেমন পরিষ্কার ভারত মিশন, সবার জন্য গৃহ ২০২২ এবং জল সরবরাহ, নিকাশী ও পরিকাঠামো সম্পর্কিত স্থানীয় রাজ্য প্রকল্পগুলিও আমরুত প্রকল্পের মত একই ধরনের উদ্দেশ্য নিয়ে গঠিত। স্মার্ট সিটিস মিশনের আওতায় নগর উন্নয়নে প্রায় ১ লক্ষ কোটি ডলার বিনিয়োগ এবং ৫০০ টি নগরীর পুনর্জীবন ও নগরে রূপান্তরের জন্য অটল মিশন ইতিমধ্যে সরকার কতৃক অনুমোদিত হয়েছে।

পুনর্জীবন ও নগর রূপান্তরের জন্য অটল মিশনের মূল লক্ষ্যগুলি

প্রতিটি বাড়িতে পানির যথাযথ সরবরাহ এবং পানি-নিষ্কাশন নিশ্চিত করা।

শহরগুলির বেড়ানোর এবং অন্যান্য সুযোগ-সুবিধার মান বাড়ানোর জন্য সবুজ এবং সু-রক্ষণাবেক্ষণযুক্ত উন্মুক্ত স্থান এবং পার্কগুলির উন্নয়ন করা।

পাবলিক ট্রান্সপোর্টের স্থানে মোটরযুক্ত পরিবহনের জায়গায় নন-মোটরযুক্ত পরিবহন সুবিধা যেমন হাঁটা এবং সাইকেল চালানোর মাধ্যমে দূষণ হ্রাস করা। অ্যাটল মিশন ফর রিজুভেনশন অ্যান্ড আরবান ট্রান্সফর্মেশন আমরুত এর লক্ষ্য রয়েছে প্রায় ৫০০ টি শহর যা কাফেরাইজড পৌরসভায় এক লক্ষেরও বেশি জনসংখ্যা নিয়ে রয়েছে সেসব শহরগুলিতে নাগরিক সুবিধা যেমন জল সরবরাহ, জল নিষ্কাশন, ঝড় পরবর্তী জল নিষ্কাশন এবং বিভিন্ন নাগরিক সুবিধাদি প্রদান করা এই প্রকল্পের আওতায় পড়ে।

আমরুত মিশন নিম্নলিখিত প্রধান উপাদান উদ্দেশ্য নিয়ে গঠিত:-

জল ও পয়ঃনিষ্কাশন জল সরবরাহ এবং পরিচালনা,ঝড়ের পানির নিষ্কাশন

নগর পরিবহন সুবিধার উন্নতি

সবুজ জায়গা এবং পার্কের উন্নয়ন।

অমৃত প্রকল্পের জন্য নির্দিষ্ট শহরের রাজ্য সরকার আবেদন করতে পারে।

অটল মিশন ফর রিজিউভেনশন অ্যান্ড নগর ট্রান্সফরমেশন এর লক্ষ্য প্রায় এক লাখেরও বেশি জনসংখ্যার প্রায় ৫০০ টি শহরকে নাগরিক সুবিধার আওতায় আনা হবে। আমরুত স্কিমের অধীনে নির্বাচিত হওয়ার জন্য, শহরগুলি / শহরগুলি নিম্নলিখিত বিভাগগুলির মধ্যে আসে

২০১১ সালের আদমশুমারি অনুসারে যে সমস্ত শহর ও শহরগুলির জনসংখ্যা এক লক্ষ বা ততোধিক লোকের মধ্যে রয়েছে সেসব শহরগুলো মিউনিসিপ্যালিটির আওতাভুক্ত এবং সিভিলিয়ান এরিয়া হিসেবে বিবেচিত হবে।

সমস্ত রাজধানী শহর বা রাজ্য কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির শহরগুলি যা উপরের মানদণ্ডের আওতায় পড়ে না। সকল বড় বড় সিটি এবং টাউনগুলো এই প্রকল্পের আওতাভুক্ত নয়। গৃহায়ন এবং নগরায়ন মন্ত্রণালয়

কতৃক যেসব সিটিগুলোকে ঐতিহ্যের শহর হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে সেগুলো হৃদয় প্রকল্পের আওতাভুক্ত হবে।

১৩ টি শহর ও শহর যা মূলত নদীর তীরে পড়ে এবং এর জনসংখ্যা ৭৫,০০০ এরও বেশি তবে ১ লক্ষেরও কম।

পার্বত্য রাজ্য, দ্বীপপুঞ্জ এবং পর্যটন কেন্দ্রের অন্তর্ভুক্ত দশটি শহর। আমরুত স্কিমের অধীনে এই শহরগুলির মধ্য থেকে প্রত্যেক ক্যাটাগরির শহর থেকে কেবলমাত্র একটি শহর নির্বাচন করা যেতে পারে।

রাজস্থান হল দেশের প্রথম রাজ্য যা পুনর্জীবন ও নগর রূপান্তরের (আমরুত)প্রকল্পের আওতায় আসার জন্য অটল মিশনের অধীনে রাজ্য বার্ষিক কর্মপরিকল্পনা জমা দেয়।

পরিষ্কার ভারত অভিযান (এসবিএ) বা ক্লিন ইন্ডিয়া মিশন হ’ল উন্মুক্ত মলত্যাগ বন্ধ করতে এবং কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনা (এসডাব্লুএম) উন্নত করার জন্য ২০১৪ সালে ভারত সরকার একটি দেশব্যাপী প্রচারণার উদ্যোগ নিয়েছিল। দ্বিতীয় ধাপ ২০২০-২১ থেকে ২০২৪-২০২৫ এর মধ্যে প্রয়োগ করা হবে।

উপসংহার

আমরুত প্রকল্পের মাধ্যমে ভারতের ঘনবসতিপূর্ণ শহরগুলোর নাগরিক সেবাসমূহ বৃদ্ধির ব্যবস্থা করা হচ্ছে। যাতে শহরে বাসকারী নাগরিকরা তাদের নাগরিক সেবা উপভোগ করতে পারেন। কারণ যখন শহরে বাস করা সত্ত্বেও জলের সরবরাহ কম হয়, ঝড়-বৃষ্টি হলে জল নিষ্কাশনের ব্যবস্থা থাকেনা, শহরে পর্যাপ্ত খোলামাঠ বা পার্কের মত খোলাস্থান এবং অন্যান্য সুবিধার অভাব থাকে তখন তা নামেই শহর হয়ে দাড়ায়, কার্যক্ষেত্রে নয়।

কারণ গ্রামে খোলা মাঠ বা বেড়ানোর জায়গার অভাব থাকেনা, সেখানে জলাবদ্ধতা বা পানীয় জলের সর্বত্র হাহাকারও থাকেনা কারণ সেখানে নদী,কুয়া, টিউবওয়েল,ডিপ টিউবওয়েল রয়েছে। তাই এই সুবিধাগুলো শহরে প্রদান করা জরুরী, যেখানে শহরের জল সাপ্লাইয়ের মাধ্যমে দেওয়া হয়। তাই জলের মান যেন সকল কাজে ব্যবহার উপযোগী হয় তার দিকে লক্ষ্য রাখা একান্ত প্রয়োজন।

সুপ্রিয় পাঠক, আমাদের লেখার উদ্দেশ্য থাকে ভারত সরকারের উন্নয়ন প্রকল্প এবং তার অগ্রগতি সম্পর্কে আপনাদের জানানো, যাতে সেগুলো সম্পর্কে আপনারা অবগত হতে পারেন এবং সুবিধাসমূহ উপভোগ করতে পারেন। আশা করি পোস্টটি ভাল লাগলে এ বিষয়ে মন্তব্য করে আমাদেরকে উৎসাহ প্রদান করবেন। আজকের মত এখানেই শেষ করছি।

ধন্যবাদ সবাইকে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *