সময়ের কাজ সময়ে শেষ করার ৫ টি অব্যর্থ কৌশল জেনে নিন

সময়ের কাজ যে সময়েই শেষ করা উচিত এই তথ্য আমরা সকলেই জানি, কিন্তু এটা আমরা মেনে চলতে পারিনা অনেক সময়েই।

অলসতা, কাজ পরে করার মানসিকতা, অন্যান্য সমস্যা ইত্যাদি কারণে আমরা সময়ের কাজ সময়মত করতে ব্যর্থ হই৷

শুনতে সাধারণ শোনালেও এটা আমাদের জীবনের জন্য অনেক বড় একটি সমস্যা। এই একটি খারাপ অভ্যাস আমাদেরকে জীবনের দৌড়ে সবার পিছনে ফেলে দেয়।

মনে করুন সামনেই আপনার পরীক্ষা, আপনি কি কি পড়তে হবে তার নোটও বানিয়ে ফেলেছেন, কিন্তু সময়মত রিভিশন দেননি।

পরীক্ষার হলে জানা বিষয়টিই রিভিশন না দেওয়ায় যখন মনে পড়বেনা, তখনই বুঝতে পারবেন সময়মত কাজ না করতে পারলে কি পরিণতি ঘটে।

অফিসের জন্য ফাইল রেডি করতে হবে, আপনি আজকাল করে কাজ ফেলে রাখলেন,সব তথ্য সংগ্রহে থাকার পরেও নির্দিষ্ট সময়ে কাজ জমা দেয়ায় আপনি বসের বিরাগভাজন হয়ে যাবেন।

এভাবেই জীবনে সবক্ষেত্রে আপনি পিছিয়ে যাবেন, যদিনা, সময়ের কাজ সময়ে করা সম্ভব হয়।

সুপ্রিয় পাঠক, আমাদের আজকের আলোচনায় থাকছে সময়ের কাজ সময়ে করার ৫ টি কৌশল সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা।

চলুন দেরী না করে আলোচনা শুরু করা যাক।

সময়ের কাজ সময়ে করার ৫ টি অব্যর্থ কৌশল জেনে নিন:

১. পরিকল্পনা করুন

যেকোন কাজ যথাসময়ে করার সবচেয়ে ভাল উপায় হচ্ছে, আগে পরিকল্পনা করে নেওয়া৷ কোন কাজটি কোন সময়ে করবেন,কতসময় লাগতে পারে।

ঐ সময়ে কোন কোন কাজে কম সময় দেবেন, বা কি অসুবিধা থাকতে পারে এইসব কিছু মিলিয়ে একটি সুন্দর পরিকল্পনা সাজিয়ে নিন। তারপর পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজে হাত দিন।

তাহলে সময় নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে না। পরিকল্পনামাফিক কাজ এগোবে।

২. ইচ্ছাশক্তি প্রয়োগ

মানুষ যে কাজটিই করতে যাক না কেন, প্রতিটি কাজের সফলতা ও ব্যর্থতা নির্ভর করে মানুষের ইচ্ছাশক্তির উপর। মনে করুন আপনি একটি কাজ করছেন, সেড়া শেষ করতে হবে একঘন্টার ভিতর।

আপনি যদি ইচ্ছা করেন কাজটি আর একটু আগেও শেষ করতে পারবেন। কিন্তু তারজন্য ইচ্ছাশক্তি কাজে লাগাতে হবে৷ ইচ্ছাশক্তি মানে হচ্ছে কোন কাজের প্রবল আগ্রহ।

আর আপনি যদি কাজটি করে কি হবে, বা হোক দেরী এভাবে ভাবেন, তবে কাজটি সময়ের মধ্যে কখনোই শেষ হবেনা। তাই সময়ের কাজ সময়ে শেষ করতে ইচ্ছাশক্তি কাজে লাগান।

৩. নিজেকে চ্যালেঞ্জ করুন

মানুষ চ্যালেঞ্জ নিয়ে কাজ করতে বরাবরই ভালবাসে। কোন কাজ সবাই হয়ত বলেছে অসম্ভব, কিন্তু আপনি সেটা সম্ভব করে দেখাবেন বলে নিজেকে নিজে চ্যালেঞ্জ করলেন, তাহলে চ্যালেঞ্জ জেতার জন্যই আপনি কাজে অধিক মনোযোগী হয়ে উঠবেন।

সময়ের কাজ সময়ে করার জন্য এটা একটা অব্যর্থ টিপস। যে কাজটিতে দেরী বা আলসেমি করার সম্ভাবনা রয়েছে সেই কাজেই নিজেকে চ্যানেঞ্জ করুন। এটা যেকোন অপছন্দের বা কঠিন কাজ করতে আপনাকে সাহায্য করবে।

৪. ইচ্ছাকৃতভাবে সমালোচনা শুনুন

যখন কেউ আমাদের ব্যর্থতা বা দূর্বলতা নিয়ে আমাদের খোচা দিয়ে বা আঘাত করে কথা বলে তখন আমরা ভিতরে ভিতরে রেগে যাই,,এবং সেই কাজটি করার আগ্রহ জন্ম নেয়।

তাই যদি কখনো মনে হয় কোন কাজ সময়ের মধ্যে করা আপনার পক্ষে সম্ভব হবেনা, তখন এমন কারো সাথে এ বিষয়ে আলাপ করুন যে আপনার সমস্যা শুনে আপনাকে অঅনুপ্রাণিত করার বদলে সমালোচনা করবে বা নিরুৎসাহিত করবে।

অথবা কাজটি করার জন্য তাড়না দেবে। স্কুল কলেজে আমরা নিয়মের মধ্যে থেকে পড়াশুনা করি কারণ সেখানে শাসন, সমালোচনা করার জন্য স্যাররা ছিলেন। জীবনের সর্বক্ষেত্রেই এমন কাউকে প্রয়োজন।

তাই দরকার পড়লে এমন পরিস্থিতি কৌশলে সৃষ্টি করে নিন। এতে আপনি অবশ্যই সময়ের কাজ সময়ে শেষ করতে পারবেন।

৫. নিজেকে অনুপ্রাণিত করুন

প্রতিদিনই আমাদের সাথে এমন সব ঘটনা ঘটতে পারে বা ঘটে থাকে যা আমাদের মনোবল নষ্ট করে দেয়। এমন সময়ে আমরা হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়ি, কাজের আগ্রহ হারিয়ে ফেলি।

কোন কাজই সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করার আগ্রহ থাকেনা। কিন্তু এভাবে আমরা সবার চেয়ে পিছিয়ে পড়ব জীবনে। হতাশ হয়ে বসে থাকাটা কোন কাজের কথা নয়।

এজন্য নিজেকে প্রতিদিন অনুপ্রাণিত করুন যে আপনি পারবেনই, আপনি চাইলে সব পারেন। এ ব্যাপারে উৎসাহিত হতে ভাল বই পড়তে পারেন, বিশেষ করে মনিষীদের জীবন কাহিনি, মোটিভেশনাল ভিডিও দেখতে পারেন অথবা সফল কোন মানুষের সাথে কথা বলতে পারেন, যে আপনার মত পরিস্থিতি মোকাবেলা করে জীবনে সফল হয়েছেন।

এভাবেই সময়ের কাজ সময়ে করার আগ্রহ ও অনুপ্রেরণা খুঁজে পাবেন। আর আপনার অভ্যাসও গড়ে উঠবে। সময়ের কাজ সময়ে করতে আর সমস্যায় পড়তে হবেনা আপনাকে।

উপসংহার

সময়ের কাজ সময়ে করার অভ্যাস গঠন করা জীবনের জন্য সবচেয়ে দরকারী একটি কাজ। এর উপরই জীবনের সবক্ষেত্রে আপনার সফলতা ও বিফলতা নির্ভর করে।

মেধাবী হয়ে কোনই লাভ নেই যদিনা সময়ের মধ্যে নিজের প্রতিভা দেখাতে সমর্থ হন। তাই নিজের জীবন গঠনের জন্য আজ থেকেই সময়ের কাজ সময়ে করার অভ্যাস গড়ে তুলুন। উপরিউক্ত ৫ টি উপায় অনুসরণ করলে অবশ্যই সফল হবেন আশা করি।

পোস্টটি কেমন লাগলো অবশ্যই জানাবেন, পোস্টটির বিষয়ে কোন তথ্য জানানোর হলে বা কোন প্রশ্ন থাকলে কমেন্ট সেকশনে কমেন্ট করুন। আমরা অবশ্যই তথ্য জানিয়ে আপনাকে সাহায্য করার চেষ্টা করব। আজকের মত এখানেই শেষ করছি।

ধন্যবাদ সবাইকে।

Leave a Comment