সম্পত্তির উত্তরাধিকার আইন মুসলিম, খৃস্টান ও পার্সিদের জন্য

ভারতের ভূমির উত্তরাধিকার আইন নিয়ে আমাদের অনেক কিছুই অজানা রয়েছে। গত লেখায় আপনাদের সাথে হিন্দু ধর্মের ভূমির উত্তরাধিকারী আইন নিয়ে আলোচনা করেছিলাম। সেই লেখায় আপনাদের অনেক সাড়া দেখতে পাওয়ায় আজ আবার নিয়ে আসলাম ভূমির উত্তরাধিকার আইন নিয়ে দ্বিতীয় লেখা। ভূমির উত্তরাধিকার আইন ধর্ম ভেদে আলাদা আলাদা হওয়ায়, আমাদের সাইটে ভারতের মুসলিম, খৃস্টান ও পারসি ধর্মের উত্তরাধিকারী আইন নিয়ে আজ আমরা আলোচনা করবো।

 

ভারতের মাটিতে হিন্দু, খৃস্টান, মুসলিম, পার্সিসহ নানা ধর্মের মানুষ পাশাপাশি বাস করায় আমাদের অনেক প্রতিবেশিই আমাদের নিজ ধর্মের নয়। কিন্তু সমাজে চলার সময় আমরা অনেক সময় অন্য ধর্মের মানুষের কাছ থেকে জমি কিনে থাকি। তখন বিক্রেতা এই জমি কিভাবে মালিকনা পেয়েছে তা দেখা দরকার হয়। 

 

বিক্রেতা যদি উত্তরাধিকার সূত্রে জমির মালিক হয়ে থাকে, তাহলে আপনাকে যাচাই করে নিত হবে, ভারতীয় উত্তরাধিকার আইন অনুযায়ী এই জমির মালিকানা বৈধ কিনা। অন্যথায় জমি কেনার পর অন্য কোন বৈধ উত্তরাধিকার এসে মালিকানার দাবি করলে আপনি ঝামেলার মুখামুখি হতে হবে। তাই আপনি জমি কেনার আগেই ঐ ধর্মের উত্তরাধিকার আইন কি বলে তা জেনে নিতে হবে।

 

আমাদের সাইটে আমরা নিয়মিতভাবে আপনাদের সাথে জমি সংক্রান্ত নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা করে থাকি। এরই ধারাবাহিকতায় আজ আপনাদের জন্য লিখলাম, ভূমির উত্তরাধিকারী আইন (মুসলিম, খৃস্টান ও পার্সি)। এই লেখা পড়ে আপনি বিভিন্ন ধর্মের উত্তরাধিকার আইন সম্পর্কে জানতে পারবেন।

 

আসুন দেখে নি মুসলিম, খৃস্টান ও পার্সি উত্তরাধিকার আইন অনুযায়ী কে কে বৈধ উত্তরাধিকার হবেন।

 

মুসলিম ধর্মের আইন অনুযায়ী সম্পত্তির বৈধ উত্তরাধিকার কে হবেন?

Muslim Personal Law (Shariat) Application Act, 1937 অনুযায়ী মুসলিম ব্যক্তির সম্পত্তির উত্তরাধিকারী কারা হবেন তা নিচে দেয়া হলো। 

 ১) স্বামী (শর্ত থাকে যে, বিবাহ অবশ্যই রেজিস্টার্ড হতে হবে)।

২) স্ত্রী (শর্ত থাকে যে, বিবাহ অবশ্যই রেজিস্টার্ড হতে হবে)।

৩) পুত্র (সৎ পুত্র, পালিত পুত্র সম্পদের উত্তরাধিকারী হবে না)।

৪) কন্যা (সৎ কন্যা, পালিত কন্যা সম্পদের উত্তরাধিকারী হবে না)।

৫) পুত্রের পুত্র

৬) পুত্রের কন্যা

৭) বাবা (সৎ বাবা, অবৈধ বাবা সম্পদের উত্তরাধিকারী হবে না)।

৮) মা ( সৎ মা, অবৈধ মা সম্পদের উত্তরাধিকারী হবে না)।

৯) বাবার বাবা

১০) বাবার মা

১১) সকল ভাই (যারা একই বাবা ও একই মায়ের সন্তান)।

১২) সকল বোন (যারা একই বাবা ও একই মায়ের সন্তান)।

১৩) যে সকল ভাই একই বাবা কিন্তু আলাদা মায়ের সন্তান

১৪) যে সকল বোন একই বাবা কিন্তু আলাদা মায়ের সন্তান।

১৫) যে সকল ভাই একই মা কিন্তু আলাদা বাবার সন্তান।

১৬) যে সকল বোন একই মা কিন্তু আলাদা বাবার সন্তান।

১৭) ভাইয়ের পুত্র।

১৮) বাবার ভাই।

১৯) বাবার ভাইয়ের পুত্র।

২০) বাবার ভাইয়ের পুত্রের পুত্র।

 

খৃস্টান ধর্মের আইন অনুযায়ী সম্পত্তির বৈধ উত্তরাধিকার কে হবেন?

Indian Succession Act, 1925 এর 32 ধারা মোতাবেক খৃস্টান ব্যক্তির সম্পত্তির বৈধ উত্তরাধিকারী কারা হবে তা নিচে দেয়া হলো।

১) বিধবা স্ত্রী

২) পুত্র

৩) কন্যা

৪) মা

৫) বাবা

৬) ভাই

৭) বোন

৮) বাবার বাবা, তার বাবা

৯) পুত্রের পুত্র

১০) পুত্রের পুত্রের পুত্র

পার্সি ধর্মের আইন অনুযায়ী সম্পত্তির বৈধ উত্তরাধিকার কে হবেন?

Indian Succession Act, 1925 এর 54 ধারা মোতাবেক পার্সি ব্যক্তির সম্পত্তির বৈধ উত্তরাধিকারী কারা হবে তা নিচে দেয়া হলো।

১) বাবা।

২) মা।

৩) ভাই।  

৪) বোন।

৫) বাবার বাবা।

৬) মায়ের বাবা।

৭) বাবার মা।

৮) মায়ের মা।

৯) বাবা ও মায়ের সকল ভাই ও বোন।

১০) নিজের সন্তান ও ভাই বোনদের সন্তান।

 

আজ আমরা আপনাদের সাথে মুসলিম, খৃস্টান ও পার্সি ধর্মের উত্তরাধিকার আইন নিয়ে আলাদা আলাদা বিস্তারিত আলোচনা করলাম। পরবর্তী লেখায় আরো বিস্তারিত লেখা থাকবে। তাই আমাদের পেজে নিয়মিত চোখ রাখুন।


 এই লেখাটি অনেকের কাজে লাগতে পারে তাই লেখাটি যতটুকু সম্ভব শেয়ার করুন, যাতে করে অনেকে এই লেখা থেকে শিক্ষা নিয়ে জমি সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারবেন। 

Leave a Comment