Grameen Kaushalya Yojana 2022: Registration & Benefits of DDUGKY

Deen Dayal Upadhyaya Grameen Kaushalya Yojana (DDU-GKY) দ্বীন দয়াল উপাধ্যায় গ্রামীণ কৈশল্যা যোজনা একটি গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র সরকারী প্রকল্প যা ভারতের গ্রামীণ উন্নয়নের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে।

Grameen Kaushalya Yojana-DDUGKY in Bangla
Grameen Kaushalya Yojana-DDUGKY in Bangla

দ্বীন দয়াল উপাধ্যায় গ্রামীণ কৈশল্যা যোজনা (DDU-GKY) ২০১৪ সালে ঘোষিত একটি কেন্দ্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা প্রকল্প। এটি জাতীয় পল্লী জীবিকা নির্বাহ মিশনের (এনআরএলএম) একটি অংশ।

এর দুটি প্রধান লক্ষ্য হ’ল:

১. গ্রামীণ দরিদ্র পরিবারের আয়ের সাথে বৈচিত্র্যকে অন্তর্ভুক্ত করা এবং

২. গ্রামীণ যুবকদের ক্যারিয়ার নিয়ে আকাঙ্ক্ষাগুলি পূরণ করা।

যারা অদক্ষ বা স্বল্প দক্ষ বলে নিজেদের পছন্দমাফিক ক্যারিয়ার গঠন করতে পারেন নি, কিন্তু দক্ষতা লাভ করলেই নিজেদের ক্যারিয়ার গঠন করতে পারবেন তাদের প্রশিক্ষিত করাই দ্বীন দয়াল উপাধ্যায় প্রকল্পের উদ্দেশ্য।

সুপ্রিয় পাঠক আমাদের আজকের আয়োজনে থাকছে, দ্বীন দয়াল উপাধ্যায় প্রকল্পের উদ্দেশ্য, সুবিধা,ব্যয় এবং অন্যান্য তথ্য সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা। চলুন দেরী না করে মূল আলোচনায় যাওয়া যাক। দ্বীন দয়াল উপাধ্যায় প্রকল্প সম্পর্কে জেনে নিন:-

দ্বীন দয়াল উপাধ্যায় গ্রামীন কৌশল্যা যোজনা:

দ্বীন দয়াল উপাধ্যায় এই স্কিমটির কেন্দ্রবিন্দু ১৫ থেকে ৩৫ বছর বয়সের গ্রামীণ দরিদ্র যুবকরা, যারা প্রশিক্ষিত হয়ে তাদের ইচ্ছামত কাজ করতে পারবেন।

এটি একটি চাহিদা-ভিত্তিক দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ প্রোগ্রাম যা স্থান-ভেদে বিভিন্ন স্থানে আয়োজন করা হয়।

এটি দক্ষ ভারত প্রচারের অংশ হিসাবে সরকারের সামাজিক ও অর্থনৈতিক প্রোগ্রাম যেমন ডিজিটাল ইন্ডিয়া, মেক ইন ইন্ডিয়া, স্মার্ট সিটিস, স্টার্ট-আপ ইন্ডিয়া এবং স্ট্যান্ড আপ ইন্ডিয়ার মতই একটি উন্নয়নমূলক প্রকল্প যা ডিজিটাল ভারত গঠনের স্বপ্নপূরণকে একধাপ এগিয়ে নিয়ে যাবে।

Deen Dayal Upadhyaya Grameen Kaushalya Yojana in Bangla
Deen Dayal Upadhyaya Grameen Kaushalya Yojana in Bangla

আনুষ্ঠানিক শিক্ষার অভাব এবং প্রয়োজনীয় দক্ষতার অভাবে গ্রামাঞ্চলের যুবকরা আরও ভাল জীবন ও জীবিকা অর্জনের পথে বিভিন্ন বাধার মুখোমুখি হয়েছেন।

দ্বীন দয়াল উপাধ্যায় প্রকল্পটি এই প্রকল্পের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ প্রকল্পগুলিকে তহবিল সরবরাহ করে এই ব্যবধানটি কমিয়ে আনতে চাইছে যেগুলি বিশ্বব্যাপী অবস্থান নির্ধারণ, রক্ষণাবেক্ষণ, ক্যারিয়ারের অগ্রগতি এবং বিদেশে স্থান নির্ধারণের দিকে দৃষ্টি নিবদ্ধ করে প্রশিক্ষণ প্রকল্পগুলিকে অর্থায়ন করে।

প্রকল্পটি পল্লী উন্নয়ন মন্ত্রনালয়ের আওতাধীন এবং এই মন্ত্রণালয়ের অধীনে বাস্তবায়িত হবে।

এই প্রকল্পটি ২০০৪ সালের স্বর্ণজয়ন্তী গ্রাম স্বরোজগার যোজনা (এসজিএসওয়াই) এর ‘বিশেষ প্রকল্প’ থেকে এই প্রকল্পের ধারণা উন্নয়ন হয়েছিল, এটি ২০১৪ সালে দ্বীন দয়াল উপাধ্যায় প্রকল্প হিসাবে সংশোধন ও পুনঃস্থাপন করা হয়েছে।

দ্বীন দয়াল উপাধ্যায় প্রকল্পের তাৎপর্য

২০২২ সালের মধ্যে দক্ষতা বিকাশ ও উদ্যোক্তা জাতীয় নীতি ২০১৫ অনুযায়ী ২৪ টি মূল সেক্টরে দক্ষতার ব্যবধান রয়েছে ২০২০ সালের মধ্যে বিশ্বজুড়ে ১০৯.৭৩ মিলিয়ন জনসংখ্যার।

ভারতে জনসংখ্যার উপাত্তের সুবিধা বিবেচনা করে এবং ভারতের বিপুল সংখ্যক কম দক্ষ বা অদক্ষ বেকার যুবকদের সঠিকভাবে প্রশিক্ষিত করতে পারলে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা সম্ভব।

নীচের সারণিটি এই প্রকল্পের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট, http://ddugky.gov.in/ এ সরকার প্রদত্ত দ্বীন দয়াল উপাধ্যায় গ্রামীণ কৈশল্যা যোজনায় সর্বশেষ আপডেটেড ডেটা সম্পর্কে জানতে পারবেন।

Grameen Kaushalya Yojana - DDUGKY
Grameen Kaushalya Yojana – DDUGKY

দ্বীন দয়াল উপাধ্যায় প্রকল্পে রাজ্য / কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিতে প্রকল্প – ২৮টি, জেলা – ৬৮৯টি ,ব্লক – ৭৪২৬ টি, প্রকল্পগুলি বাস্তবায়িত হচ্ছে – ১৫৭৫ টি,
অংশীদার -> ৭১৭ টি, [৫০ টি শিল্প খাতে ৫০২ টিরও বেশি ব্যবসায় থেকে]
প্রশিক্ষিত প্রার্থীরা -> ৯.৯ লক্ষ, যারা বিভিন্ন সেক্টরে কাজ করছেন -> ৫.৩ লক্ষ মানুষ।

দ্বীন দয়াল উপাধ্যায় প্রকল্প কীভাবে কাজ করে?

উন্নত, আধুনিক এবং সজ্জিত প্রশিক্ষণ কেন্দ্রগুলি চালু করার জন্য ডিডিইউ-জিকেওয়াই বেসরকারী শিক্ষা এবং দক্ষতা প্রশিক্ষণ বিশেষজ্ঞদের সহায়তা দেয়।

এই প্রশিক্ষণ কেন্দ্রগুলিতে যোগ্য প্রশিক্ষকরা কর্মমুখী দক্ষতা প্রশিক্ষণ, কম্পিউটার / ট্যাবলেট ব্যবহারের প্রশিক্ষণ, স্পোকেন ইংলিশ এবং অন্যান্য জীবন-দক্ষতা সরবরাহ করবেন।

প্রশিক্ষণ শেষ হওয়ার পরে, শিক্ষার্থীদের কাজের ক্ষেত্রেও সহায়তা করা হয়। প্রশিক্ষণ শিক্ষার্থীদের জন্য সম্পূর্ণ বিনামূল্যে এবং তাদের বিনামূল্যে বই, ইউনিফর্ম, ট্যাবলেট এবং অধ্যয়নের উপকরণ সরবরাহ করা হয়।

আবাসিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের ক্ষেত্রে, খাবার এবং থাকার ব্যবস্থা করা হয় বিনামূল্যে। অনাবাসিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্রগুলির ক্ষেত্রে, প্রতিটি সম্পূর্ণ প্রশিক্ষণের জন্য প্রতিদিন এবং একদিনের জন্য সমস্ত উপকরণ ও সুবিধা বিনামূল্যে সরবরাহ করা হয়।

দ্বীন দয়াল উপাধ্যায় প্রকল্পের আওতা

১৫ থেকে ৩৫ বছর বয়সের গ্রামীণ যুবকরা এই প্রকল্পের অধীনে প্রশিক্ষণ গ্রহণের জন্য যোগ্য। মহিলা, এসসি / এসটি এবং শারীরিকভাবে অক্ষম ব্যক্তিদের জন্য ৪৫ বছর অবধি বয়স অবকাশ রয়েছে।

প্রশিক্ষণ কোর্সে বিভিন্ন ক্ষেত্র যেমন স্বাস্থ্য, খুচরা ব্যবসায়, সেবাখাত, মোটরগাড়ি, নির্মাণ, রত্ন, চামড়া, নদীর গভীরতানির্ণয়, বৈদ্যুতিক, গহনা ইত্যাদির কভার দেওয়া শেখানো হয়।

ব্যবসায়ের নির্দিষ্ট দক্ষতা ছাড়াও কর্মসংস্থান, সফট স্কিল, ইংরেজি ভাষার ব্যবহার, তথ্য প্রযুক্তি ইত্যাদির জন্যও প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়।

অন্তিম কথা

দেশের অনগ্রসর বেকার এবং অদক্ষ যুবকদের নিজেদের পছন্দ অনুযায়ী বিষয়ে দক্ষতা অর্জন সাপেক্ষে ব্যবসায় বা অন্যান্য দেশে কাজের সুযোগ করে দেওয়ার জন্যই মূলত এই প্রকল্পটি গ্রহন করা হয়েছে।

দেশের বেকার এবং অদক্ষ যুবকরা শুধুমাত্র পর্যাপ্ত প্রশিক্ষণ ও শিক্ষার অভাবে নিজেদের পছন্দমত ক্যারিয়ার গঠন করতে পারেনা।

কিন্তু এই প্রকল্প তাদের সেই সুযোগ করে দিচ্ছে তারা যাতে প্রশিক্ষিত হয়ে নিজেদের এবং দেশের উন্নয়নে কাজ করতে পারে। আশা করি দ্বীন দয়াল উপাধ্যায় গ্রামীণ কৌশল যোজনা সম্পর্কে সবাই ধারণা পেয়েছেন।

সুপ্রিয় পাঠক, আমাদের লেখার উদ্দেশ্য থাকে ভারত সরকারের উন্নয়ন প্রকল্প এবং তার অগ্রগতি সম্পর্কে আপনাদের জানানো, যাতে সেগুলো সম্পর্কে আপনারা অবগত হতে পারেন এবং সুবিধাসমূহ উপভোগ করতে পারেন।

কেন্দ্র সরকারের সমস্ত যোজনাClick Here
পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত প্রকল্পClick Here
বাংলাভুমি হোমClick Here

Leave a Comment