Polygamy Laws in India | বহুবিবাহ কি ভারতে বৈধ? জানুন বহুবিবাহ আইন

বহুবিবাহ বৈধ নাকি বৈধ নয়,তা দেশের আইন বা নিয়মের উপর নির্ভর করে। হিন্দু ধর্মে এটা নিষিদ্ধ তবে কিছু ব্যতিক্রম দেখা যায়।

তাহলে প্রশ্ন আসতে পারে, ভারতে বহু বিবাহ বৈধ কোথায়? ঠিক আছে, মুসলিম বিবাহ, আদিবাসী এমনকি গোয়ান বাসিন্দাদের অধীনে বহুবিবাহের আইনী মর্যাদা এবং অনুমতি রয়েছে।

Indian Polygamy Law in Bangla
Indian Polygamy Law in Bangla

গোয়ানদের বিগামী অনুশীলনের অনুমতি দেওয়া হয়, এটি বহুবিবাহের এক রূপ। ভারতে বহুবিবাহ বৈধ নাকি বৈধ নয় তা ভারতীয় আইন এবং ধর্মীয় আইনের উপর নির্ভর করে।

বহুবিবাহ অনেক স্থানেই বৈধ যেখানে অন্যান্য জায়গাগুলিতে তা প্রযোজ্য নয়। সুপ্রিয় পাঠক আমাদের আজকের আর্টিকেলটি সাজানো হয়েছে ভারতে বহুবিবাহ বৈধ কি বৈধ নয় সে বিষয়টি নিয়ে।

বহুবিবাহ ভারতে বৈধ?

বহুবিবাহ কি

বহুবিবাহ ভারতে বৈধ কিনা তা নিয়ে আলোচনা করার আগে প্রথমে ‘বহুবিবাহ’ এর অর্থ বুঝতে হবে।অক্সফোর্ড ডিকশনারি অনুযায়ী বহুবিবাহ অর্থ একই সাথে একাধিক স্ত্রী বা স্বামী রাখা।

একজন পুরুষের একইসাথে একাধিক স্ত্রী বর্তমান থাকা এবং তাদের সাথে সম্পর্ক থাকা এবং একজন নারীর একই সাথে একের অধিক বিবাহ এবং স্বামী বর্তমান থাকা এবং তাদের সাথে সম্পর্ক থাকাকে বহুবিবাহ বলে।

সমাজে বহুবিবাহের প্রচলন বিভিন্ন ধর্ম এবং গোত্র অনুযায়ী প্রাচীনকাল থেকেই চলে আসছে। কিন্তু আমাদের দেশে বহুবিবাহ এখন আইনানুযায়ী বৈধ নয়।

বহুবিবাহের ঐতিহাসিক ইতিহাস

ভারতে বহুবিবাহের ঐতিহাসিক উদাহরণ রয়েছে। এমনকি ভারতীয় ইতিহাসে এমন উদাহরণ প্রচুর রয়েছে যেখানে সম্রাট এবং রাজাগণ বহুবিবাহ করেছেন এবং বেশ তাদের সবারই একের অধিক স্ত্রী ছিলেন।

বহুবিবাহের এ জাতীয় উদাহরণ ধর্মীয় গ্রন্থ ও শাস্ত্রেও রয়েছে। প্রাচীন ভারতে এক সময় ছিল যখন বহু বিবাহ বন্ধন নিষিদ্ধ ছিল না।

প্রকৃতপক্ষে অভিজাত ও সম্রাটদের মধ্যে এটি একটি প্রচলিত রীতি ছিল। তখন বেশিরভাগ দেশে বহুবিবাহ প্রচলিত ছিল।

তবে পরবর্তীকালে ভারতে হিন্দুধর্মে বহু বিবাহ বাতিল হয়ে যায়। ১৮৬০ এর ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪৯৪ এবং ৪৯৫ ধারা কার্যকর হওয়ার পরে বহুবিবাহ নিষিদ্ধ ছিল।

এছাড়াও, পরবর্তীকালে ১৯৫৫ সালে বহুবিবাহ নিষিদ্ধকরণ কার্যকর হয়। সেখান থেকে হিন্দু বিবাহ আইনটি খসড়া করা হয়েছিল। এই আইনে উল্লেখ আছে যে, হিন্দুদের দু’বার বিবাহ করা অপরাধ হিসেবে গণ্য হবে, বিশেষত যদি স্বামী / স্ত্রী এখনও জীবিত থেকে থাকে।

তবে আদিবাসী এবং গোয়ার বাসিন্দাদের ক্ষেত্রে এই আইনের ব্যতিক্রম ছিল। মুসলিমদের ইসলাম ধর্ম অনুযায়ী বহু বিবাহ আইনত দন্ডনীয় নয়। তারা ধর্ম অনুযায়ী স্ত্রী বর্তমান থাকতেও আরেকটি বিয়ে করতে পারে।

কিন্তু বহুবিবাহচর্চা রোধ করতে বহু মুসলিম মহিলা প্রতিবাদ জানিয়েছেন। এর ফলে বিশেষ বিবাহ আইনটির মাধ্যমে স্ত্রীর অনুমতি ব্যাতিত বিবাহ নিষিদ্ধ এই বিশেষ আইনের সহায়তা নিয়েছেন।

এই আইনের অধীনে, এমনকি একজন মুসলিম কেবল একটি ব্যক্তির সাথে বিবাহ করতে পারে। তার একাধিক পত্নী থাকতে পারে না।

বহুবিবাহ ভারতে বৈধ?

বহুবিবাহের অর্থ কী এবং সমাজে এই জাতীয় অনুশীলনের অবস্থান কী তা আমরা ইতিমধ্যে আলোচনা করেছি।

পুরানো দিনগুলিতে বহু বিবাহ একটা সমাজের অঙ্গ ছিল এবং এর কোনও আইনী বাধ্যবাধকতা ছিল না। লোকেরা বহুবিবাহ অবাধে অনুশীলন করত।

বহু বিবাহ সম্পর্কে শ্রদ্ধার সাথে সেই সময়ে প্রচলিত আইনগুলি কঠোর বা কঠোর ছিল না। সুতরাং লোকেরা বিনা শাস্তি দেওয়ার ভয় ছাড়াই বহু বিবাহ করার অভ্যাস করত।

মুসলিম ব্যক্তিগত আইনে বহুবিবাহের চর্চা দণ্ডনীয় নয়। এটি সামাজিক রীতিনীতিটির একটি অংশ যা বহু শতাব্দী ধরে লোকেরা অনুসরণ করে আসছে।

বিভিন্ন জায়গায় বহুবিবাহের আইন এখনো বলবৎ রয়েছে। সুতরাং উপরিউক্ত আলোচনা থেকে, এটি স্পষ্ট যে বহু-বিবাহ এখনও কিছু জায়গায় এখনো খুব বেশি প্রচলিত।

ভারতে বহুবিবাহের অবস্থান

যদিও বেশিরভাগ লোকেরা বহুবিবাহের অনুশীলনকে অবৈধ মনে করেন, তবে কিছু লোক এখনও এটি অনুসরণ করে। সুতরাং, ভারতে বহু বিবাহের প্রচলন আইনসম্মতভাবে ধর্মানুযায়ী পরিবর্তিত হয়।

৪৯৪ এবং ৪৯৫ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী বহু বিবাহের জন্য শাস্তি প্রযোজ্য। তবে মুসলিম সমাজে প্রথম স্ত্রীর আপত্তি না থাকলে এটি শিথিলযোগ্য। কোনও পুরুষ ভারতে দুটি নারীকে বিয়ে করতে বা দুটি স্ত্রী একইসাথে রাখতে পারে না।

মুসলমানদের ব্যক্তিগত আইন অনুযায়ী চিত্রটি কিছুটা আলাদা। যেহেতু মুসলমানদের চার স্ত্রী রাখার অনুমতি রয়েছে, যদিও গোয়া এবং পশ্চিম উপকূলে বহুবিবাহ বৈধ।

যদিও একজন হিন্দুকে একাধিক বিয়ে করা নিষেধ করা হয়েছে, তবে এখনও পর্যন্ত মুসলমানদের বহু বিবাহে বাধা দেওয়া হয়নি। বহু বিবাহ করার চর্চা বন্ধ করার মত তাদের কোনও আইন নেই।

বহুবিবাহ কি অবৈধ?

উপরিউক্ত আলোচনা অনুযায়ী নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন যে, ভারতে বহুবিবাহ বৈধ নাকি বৈধ নয় তা নির্ভর করে ধর্মের উপর। হিন্দু ধর্ম অনুযায়ী স্ত্রী জীবিত থাকতে আরেকটি বিবাহ আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

কিন্ত মুসলিম সমাজে বহুবিবাহ দন্ডনীয় নয়। আর একজন মুসলিম পুরুষ ৪ টা পর্যন্ত বিবাহ করতে পারবেন, কিন্তু একজন নারী একই সাথে একজন পুরুষকেই বিবাহ করতে পারবেন।

তবে বর্তমানে আধুনিক আইনে মুসলিম পুরুষ যদি আরেকটি বিবাহ করতে চান তবে স্ত্রীর সম্মতি প্রয়োজন হবে, না হলে তা দন্ডনীয় অপরাধ হবে। এটা বিশেষ আইন দ্বারা স্বীকৃত।

তাই ভারতে বহুবিবাহ বৈধ না অবৈধ তা বেশ জটিল একটি প্রশ্ন। তবে বর্তমান প্রেক্ষাপট অনুযায়ী বহুবিবাহের হার অনেক কমে এসেছে।

আর বহু বিবাহ এমন একটি বিষয় যা দেশের জনসংখ্যা বাড়ায় এবং মেয়েদের জীবন নষ্ট করে। তাই বহু বিবাহকে মোটেই উৎসাহিত করা উচিত নয়। এটাকে আইনত দন্ডনীয় করাই উচিত৷

বহুবিবাহ বিষয়ে সমস্যা হলে কার নিকট সাহায্য চাইতে হবে?

আপনার নিকটবর্তী কোনও ভাল আইনজীবীর কাছ থেকে বহুবিবাহ মোকাবিলা করার জন্য কেবল আইনি পরামর্শ নিন।

জরুরী কথা

বহু বিবাহ হিন্দু আইনে অবৈধ হলেও মুসলিম আইনে নয়। তবে বর্তমানে স্ত্রীর অনুমতি ব্যতীত যেহেতু দ্বিতীয় বিবাহ করা যাবে না, সেহেতু বহুবিবাহের প্রচলন অনেকটাই কমে গেছে৷

তবে ভারতের অঞ্চলবিশেষে এখনো বহু বিবাহ চালু আছে। বহুবিবাহের মত অপরাধ যেন সমাজে ছড়িয়ে না পড়ে সে বিষয়ে অবশ্যই সকল ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে আইন প্রণয়ন করা উচিত।

কারণ এতে নারীদের ক্ষতি হয়, অশান্তি, পরিবারে ভাঙন এবং জনসংখ্যা বৃদ্ধি পায়। তাই বহুবিবাহ চর্চা নিষিদ্ধ হওয়া উচিত।

বহু বিবাহ নিষিদ্ধ কিনা এর উত্তর যথেষ্ঠ জটিল হলেও আশা করি তা ব্যাখ্যা করার প্রচেষ্টা সফল হয়েছে।

সুপ্রিয় পাঠক পোস্টটি পড়ে আপনাদের মতামত জানাতে ভুলবেব না। এরপর কোন বিষয় নিয়ে জানতে চান তা আমাদের কমেন্ট করে জানান। আমরা পরবর্তীতে সে বিষয়ে তথ্য নিয়ে হাজির হব। আজকের মত এখানেই শেষ করছি।ধন্যবাদ সবাইকে।

Leave a Comment