হঠাৎ লোন ধারকের মৃত্যু হলে ব্যাংক কিভাবে লোনের টাকা আদায় করে

বেশিরভাগ লোকেদের এই ভুল ধারণা থাকে যে যদি লোন নেওয়া ব্যক্তির হঠাৎ করে মৃত্যু হয়ে যায় তাহলে তার নেওয়া লোন মাফ করে দেওয়া হয়। এই ধারণা একদম ভুল, ব্যাঙ্ক তাদের টাকা ঠিক আদায় করে নেয়। তাহলে আসুন জেনে নিন ব্যাঙ্ক এই কাজ কিভাবে করে।

আমাদের বর্তমান সময়ে সব জিনিসে আমরা লোনের উপর নির্ভর থাকি। সেটা হোম লোন হোক বা বিজনেস লোন, পার্সোনাল লোন, অটো লোন, এডুকেশন লোন ইত্যাদি যে কোনো লোন। আর হবেই না কেন সাধারণ মানুষের ইনকাম এতটাও থাকে না যে এই বড় বড় কাজ টাকা জমিয়ে করতে পারে তাই তাদের লোনের ওপর নির্ভর হতে হয়।

কিন্তু এখানে একটি বড় প্রশ্ন আসে যে যদি লোন নেওয়া ব্যক্তির হঠাৎ কোনো কারণে মৃত্যু হয়ে যায় তাহলে কি হয় ? ব্যাঙ্ক কি তাদের লোন ক্ষমা করে দেয় ?

বেশিরভাগ লোকেদের এই ভুল ধারণা থাকে যে যদি লোন নেওয়া ব্যক্তির হঠাৎ করে মৃত্যু হয়ে যায় তাহলে তার নেওয়া লোন মাফ করে দেওয়া হয়। কিন্তু এই ধারনা একদম ভুল। ব্যাঙ্ক কখনই তাদের নোকসান হতে দেয় না, তারা তাদের টাকা ঠিক আদায় করে। তাহলে কাদের কাছ থেকে ব্যাঙ্ক টাকা আদায় করে ? এই বিষয়ে সবকিছু নিচে দেওয়া আছে।

 

হোম লোন যদি বাকি থাকে : Home Loan

যদি লোন ধারকের হোম লোন বাকি থাকে, তাহলে মৃতকের মৃত্যুর পর যে ওই সম্পত্তির অধকারী থাকে তাকেই বাকি লোন চুকাতেই হয়। যতক্ষণ না লোনের টাকা চুকানো হয় ততক্ষন ওই সম্পত্তির মালিক হয় যাবে না। যদি কোনো কারণে সম্পত্তির অধিকারী এই লোন মেটাতে অসমর্থ হয় তাহলে ব্যাঙ্ক ওই ব্যক্তির সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে নেয়। সম্পত্তি নিলাম করে ব্যাঙ্ক তার টাকা উদ্ধার করে নেয়।

বেশিরভাগ ব্যাঙ্ক হোম লোন দেবার সময় লোন ধারক কে টার্ম ইন্সুরেন্স করায় যার ফলে হোম লোন সুরক্ষিত থাকে। এই স্থিতি টি লোন ধারকের মৃত্যু হলে লোনের টাকা ইন্সুরেন্স কোম্পানির থেকে ব্যাঙ্ক উদ্ধার করে নেয়। যদি কোনো লোন ধারকের মৃত্যু হয় তো প্রথমে এটা দেখা হয় যে ওই ব্যক্তির টার্ম ইন্সুরেন্স আছে কি না, যদি থাকে তাহলে ব্যাঙ্ক সরাসরি ওই ইন্সুরেন্স কোম্পানির কাছে লোনের টাকার ক্লেম করে তাদের টাকা উদ্ধার করে নেয়।

যদি টার্ম ইন্সুরেন্স না থাকে তাহলে সম্পত্তির অধকারী থেকে লোনের টাকা উদ্ধার করা হবে। এমনকি যদি ওই ব্যক্তির কোনো উত্তরাধিকারী না থাকে তাহলে ব্যাংকার সম্পূর্ণ অধিকার থাকে ওই ব্যক্তির সম্পূর্ণ সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে এবং তা নিলাম করে টাকা উদ্ধার করা।

 

অটো লোন যদি বাকি থাকে : Auto Loan

অটো লোনের ব্যাপারেও ওই নিয়ম লাগানো হয় যা হোম লোনের ক্ষেত্রে দেওয়া হয়েছে। এই ব্যাপারে লোন ধারকের উত্তরাধিকারীর থেকে লোনের টাকা দেওয়ার জন্য বলা হয়ে থাকে। যদি কোনো কারণে ওই ব্যক্তি লোন মেটাতে অসমর্থ থাকে তাহলে ব্যাঙ্ক ধারকের বাহন কে বাজেয়াপ্ত করে নিলাম করে দিয়ে তার টাকা থেকে ব্যাঙ্ক তাদের লোনের টাকা উদ্ধার করে নেয়।

 

বিজনেস লোন যদি বাকি থাকে : Business Loan

বিজনেস লোন তো তখনি নিশ্চিত করে নেওয়া হয় যে, যদি লোন ধারকের মৃত্যু হয় তাহলে এই লোন কে মেটাবে। ব্যাঙ্ক বিজনেস লোন দেবার আগে ইন্সুরেন্স কাভার নিয়ে নেয় যার প্রিমিয়াম প্রথমেই লোন ধারকের কাছ থেকে নিয়ে নেওয়া হয়।

আর যদি লোন ধারকের মৃত্যু হয় তাহলে বেঁচে টাকা বাকি লোনের টাকা ব্যাঙ্ক ইন্সুরেন্স কোম্পানির কাছ থেকে আদায় করে নেয়। বিজনেস লোনের ক্ষেত্রে ব্যাঙ্ক আগে থেকেই নিজেদের টাকা সুরক্ষিত করে নেয়। যেখানে লোনের সময় ব্যাঙ্ক লোন ধারকের কাছ থেকে লোনের মূল্যের সমান সোনা, জমি, বাড়ি, ফিক্স ডিপোজিট ইত্যাদি বন্ধক রেখে নেয়। লোন ধারকের মৃত্যুর পর এই সম্পত্তি বিক্রি করে ব্যাঙ্ক তাদের টাকা আদায় করে নেয়।

পার্সোনাল লোন যদি বাকি থাকে : Personal Loan

আসলে পার্সোনাল লোন একটি অসুরক্ষিত লোন। এই লোনের বাকি টাকা লোন ধারকের উত্তরাধিকারীকে জন্য ব্যাঙ্ক বলে থাকে। পার্সোনাল লোন সব সময় ইন্সুর্ড লোন হয়, যার প্রিমিয়াম লোন ধারক EMI সাথে দিতে থাকে। এই কারণে ব্যাঙ্ক পার্সোনাল লোনের বাকি টাকা ব্যাঙ্ক সরাসরি ইন্সুরেন্স কোম্পানির থেকে আদায় করে নেয়।

 

ক্রেডিট কার্ড যদি বাকি থাকে : Credit Card Loan

যদি ক্রেডিট কার্ড ধারকের মৃত্যু হয়ে যায় তাহলে, কার্ড ধারকের সম্পত্তির অধকারীর থেকে বাকি টাকা নেওয়া হয়। মৃতক ব্যক্তির সম্পত্তির অধিকারীকে তার সম্পত্তি থেকে বাকি টাকা মিটিয়ে দিতে হয়।

তাহলে আপনারা জানতে পারলেন যে যদি কোনো লোন ধারক ব্যক্তির হঠাৎ করে মৃত্যু হয়ে যায় তাহলে তার লোণের বাকি টাকা মেটানোর দায়ী কে থাকে আর ব্যাঙ্ক তাদের লোনের টাকা কিভাবে আদায় করে। আশা করি মৃত্যুর পর ব্যাঙ্ক লোন ক্ষমা করে দেয়, এই ভুল ধারণা বুঝতে পেরেছেন।

আশা করি আমাদের এই তথ্য আপনাদের সাহায্য করবে, যদি আমাদের এই তথ্য আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই সকলের সাথে শেয়ার করবেন এবং এই ধরণের আরো নতুন নতুন তথ্য পাবার জন্য আমাদের ওয়েবসাইটে নজর রাখুন।

Leave a Comment