উত্তরাধিকার উইল ছাড়া সম্পত্তি কীভাবে ভাগ করা যায়?

কোন ব্যক্তি মারা গেলে তার সম্পত্তির বন্টন তার মৃত্যুর আগে রেখে যাওয়া উইল অনুযায়ী হয়ে থাকে। কিন্তু কোন কারনে মৃত্যুর আগে উইল করে না গেলে, তার সম্পত্তি ভারতীয় উত্তরাধিকার আইন অনুযায়ী বন্টন করা হবে। এই উত্তরাধিকার আইন বিভিন্ন ধর্মের জন্য আলাদা আলাদা আলাদা আলাদা হয়ে থাকে। 


হিন্দু, জৈন, বৌদ্ধ এবং শিখ ধর্মাবলম্বীদের জন্য হিন্দু উত্তরাধিকার আইন, মুসলিমদের উত্তরাধিকার আইনের জন্য মুসলিম আইন, খৃষ্টানদের জন্য ভারতীয় উত্তরাধিকারী আইন অনুসরন করা হয়। আমরা যদি এই উত্তরাধিকার আইন সম্পর্কে না জানি, তাহলে আমাদের যে কোন সময় এমন সম্পত্তি ভাগাভাগি নিয়ে ঝামেলায় পড়তে হবে। 


আমাদের বাংলাভূমি সাইটে আমরা নিয়মিতভাবে জমি সংক্রান্ত নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা করে থাকি। এতে করে আপনারা জমি সংক্রান্ত বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ন তথ্য সহজেই জানতে পারেন। এরই ধারাবাহিকতায় আজ আপনাদের সাথে উত্তরাধিকার উইল ছাড়া কিভাবে সম্পত্তি ভাগ করা যায় তা নিয়ে আলোচনা করবো। এতে করে আপনারা খুব সহজেই এই ব্যপারে ভারতীয় উত্তরাধিকার আইনে কি আছে তা জানতে পারবেন। 


আসুন দেখে নিই, হিন্দু আইনে কিভাবে সম্পত্তির উত্তরাধিকারদের মাঝে সম্পত্তি ভাগ করা হয়।


মৃতব্যক্তি পুরুষ হলে উত্তরাধিকার আইন

কোন কারনে উইল না করে কোন পুরুষ মারা গেলে তার সম্পত্তি হিন্দু উত্তরাধিকার আইন অনুসারে বন্টন করা হবে এবং তার সম্পত্তি বৈধ উত্তরাধিকারদের মালিকানায় হস্তান্তর হবে। এই বৈধ উত্তরাধিকারী আবার ২ প্রকার হয়ে থাকে। এরা হলো, শ্রেণী ১ এবং শ্রেণী ২। আসুন দেখে নিই, শ্রেণী ১ এবং শ্রেণী ২ অনুযায়ী বৈধ উত্তরাধিকারী কারা।


শ্রেণী ১ উত্তরাধিকারী 

শ্রেণী ১ উত্তরাধিকারী হিসেবে মৃত পুরুষের সরাসরি পারিবারিক সম্পর্কিত লোকজন বৈধ উত্তরাধিকার হিসেবে গন্য হয়। এরা হচ্ছে স্ত্রী, পুত্র, কন্যা, মাতা। মৃত পুরুষের মৃত্যু হলে তার স্ত্রী, সন্তানরা ও মা তার সম্পত্তির মালিকানা লাভ করবে। 


শ্রেণি ২ উত্তরাধিকারী 

কোন কারণে মৃতব্যক্তির শ্রেণী ১ এর কোন উত্তরাধিকারী না থাকলে তার সকল সম্পত্তি শ্রেনী ২ এর অন্তর্গত উত্তরাধিকারীগন মালিকানা লাভ করবেন। এই শ্রেণী ২ এ মৃতব্যক্তির পুত্র কন্যা ব্যতিত অন্যান্য আত্মীয়রা অন্তর্ভুক্ত থাকে। 


এই শ্রেণী ২ এর কয়েকটি ধাপ থাকে। কোন কারনে প্রথম ধাপের লোকজন না থাকলে পরের ধাপের লোকজন উত্তরাধিকার হিসেবে গন্য হবে। এভাবে ঐ ধাপের লোকজন না থাকলে পরের ধাপের মানুষ ঐ সম্পত্তির উত্তরাধিকার লাভ করবে। 


মৃতব্যক্তি নারী হলে উত্তরাধিকার আইন

ভারতীয় উত্তরাধিকার সংশোধন আইন ২০০৫ এর ফলে ভারতীয় হিন্দু নারী সম্পত্তির উত্তরাধিকার প্রশ্নে পুরুষের সমান অধিকার লাভ করে থাকে। ভারতীয় আইন অনুযায়ী, মৃত ব্যক্তি নারী হলে তার মৃত্যুর পর তার স্বামী, সন্তান সকল সম্পত্তির উত্তরাধিকার লাভ করবে। যদি তার কোন সন্তান জীবিত না থাকে, তাহলে তার নাতি নাতনি ও সম্পত্তির উত্তরাধিকারী হবে। 


সম্পত্তিতে গর্ভের শিশুর অধিকার

কোন ব্যক্তি মারা যাওয়ার সময় তার স্ত্রীর গর্ভে সন্তান থাকলে, ঐ সন্তানও আইন অনুযায়ী তার সকল সম্পত্তির উত্তরাধিকারী হিসেবে গন্য হবে। 


কোন ব্যক্তি ধর্মান্তরিত হলে

কোন ব্যক্তি ধর্মান্তরিত হলে, তার সে তার উত্তরাধিকার সূত্রে সম্পত্তি পেতে অযোগ্য হবে। যদি এই ব্যক্তি আবার তার পূর্বের ধর্মে ফিরে আসে, তবে পুনরায় সে তার উত্তরাধিকার অধিকার ফিরে পাবে। 


কোন খুনির সম্পত্তিতে অধিকার

কোন ব্যক্তি খুন করে আদালত কতৃক প্রমানিত হলে, সে তার উত্তরাধিকার সম্পত্তির অধিকার হতে অযোগ্য বলে গন্য করা হবে। 


কোন ব্যাক্তির বৈধ উত্তরাধিকারী না থাকলে

কোন ব্যাক্তির কোন উত্তরাধিকারী না থাকলে, তার সকল সম্পত্তি ভারতীয় উত্তরাধিকার আইন অনুযায়ী সরকারের সম্পত্তি হিসেবে গন্য হবে। 


বিধবা স্ত্রী পুনরায় বিবাহ করলে

কোন ব্যক্তির বিধবা স্ত্রী পুনরায় বিবাহ করলে, সে তার পূর্বের স্বামীর সম্পত্তির উত্তরাধিকার হতে অযোগ্য হবে না। 


তবে, মৃত ব্যক্তির পুত্রের বা ভাইয়ের বিধবা স্ত্রী পুনরায় বিবাহ করলে, সে সম্পত্তির উত্তরাধিকার হতে বঞ্চিত হবে। 


এভাবে আজ আমরা উত্তরাধিকার উইল না থাকলে সম্পত্তির মালিকানা নিয়ে আলোচনা করলাম। পরবর্তী লেখায় আরো বিস্তারিত লেখা থাকবে। তাই আমাদের পেজে নিয়মিত চোখ রাখুন। এই লেখাটি অনেকের কাজে লাগতে পারে তাই লেখাটি যতটুকু সম্ভব শেয়ার করুন, যাতে করে অনেকে এই লেখা থেকে শিক্ষা নিয়ে জমি সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারবেন।  

About Bangla Bhumi

বাংলা ভূমি, বাংলা ও বাঙালিদের জন্য অন্যতম একটি ওয়েবসাইট যেখানে সাধারণ মানুষের প্রয়োজনীয় তথ্য প্রতিনিয়ত দেওয়া হয়ে থাকে। এখানে ভূমি সংক্রান্ত জমির তথ্য, খতিয়ান ও দাগের তথ্য, সম্পত্তি আইন ও সম্পত্তি বিনিয়োগ, সরকরি যোজনা ও প্রকল্প, ব্যাঙ্ক, লোন ইত্যাদি সমস্ত রকম তথ্য প্রতিদিন প্রকাশিত করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *