POSHAN Abhiyaan 2022: জাতীয় পুষ্টি অভিযান যোজনা কি? সুবিধা ও লাভ

What is POSHAN Abhiyaan 2022? Eligibility, Registration & Benefits | PM POSHAN Abhiyaan 2022 (জাতীয় পুষ্টি অভিযান যোজনা 2022), জাতীয় পুষ্টি অভিযান যোজনা কি? এই যোজনার লাভ কি? জাতীয় পুষ্টি অভিযান যোজনা তে কিভাবে আবেদন করবেন? এবং এই যোজনার আরও তথ্য এখানে দেখুন।

POSHAN Abhiyaan 2022: ভারত সরকার কতৃক দেশ ও দেশের মানুষের বিভিন্ন সমস্যা দূরীকরণে যেসব কার্যকর প্রকল্প গ্রহন করা হয়েছে তারমধ্যে পোশান অভিযান বা জাতীয় পুষ্টি মিশন অন্যতম।

দেশের অনেক মানুষ যেখানে অপুষ্টির শিকার, তাদের মৌলিক চাহিদা পূরণে এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলেছে। জাতীয় পুষ্টি মিশন (এনএনএম) নামে পরিচিত পোশন অভিযান ভারত সরকার প্রচলিত অপুষ্টিজনিত সমস্যা মোকাবিলার লক্ষ্যে ২০১৮ সালে চালু করা হয়।

POSHAN Abhiyaan: Eligibility Registration & Benefits
POSHAN Abhiyaan: Eligibility Registration & Benefits

জাতীয় পুষ্টি মিশনের প্রধান লক্ষ্য হ’ল অপুষ্টির মাত্রা হ্রাস করা এবং দেশের শিশুদের খাদ্যতালিকায় পুষ্টির মাত্রা বৃদ্ধি করা। মিশনটি একটি সমন্বিত মন্ত্রণালয় অর্থ্যাৎ দুইয়ের অধিক মন্ত্রণালয় কতৃক গৃহীত উদ্যোগ, এবং এই উদ্যোগের লক্ষ্য হচ্ছে ২০২২ সালের মধ্যে দেশ থেকে অপুষ্টি অপসারণ করা।

সুপ্রিয় পাঠক আমাদের আজকের আর্টিকেলে আমরা জাতীয় পুষ্টি মিশন সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। চলুন দেরী না করে মূল আলোচনায় যাওয়া যাক।

জাতীয় পুষ্টি মিশনের লক্ষ্য:

কিশোর-কিশোরী, শিশু, গর্ভবতী মহিলা এবং স্তন্যদানকারী মায়েদের পুষ্টির মাত্রা বৃদ্ধি এবং তাদের পর্যাপ্ত পুষ্টি নিশ্চিত করতে জাতীয় পুষ্টি অভিযান বদ্ধ পরিকর।

জাতীয় পুষ্টি মিশন সরকারের বিভিন্ন বিভিন্ন বিভাগ থেকে প্রযুক্তি, বিভিন্ন মডিউল এবং সমন্বয়ের সুবিধা নিয়ে কাজ করে চলেছে। কারণ শুধুমাত্র কোন একক মন্ত্রণালয়ের পক্ষে পুরো মিশনের কাজ শেষ করা সম্ভব নয়।

জাতীয় পুষ্টি মিশন প্রধানমন্ত্রী কতৃক গৃহীত হয়, যার উদ্দেশ্য দেশ থেকে অপুষ্টি দূর করা এবং দেশের জনসংখ্যার আদর্শ পুষ্টি নিশ্চিত করা।

জাতীয় পুষ্টি মিশনের লক্ষ্য হচ্ছে দেশের মানুষের, রক্তস্বল্পতা, অপুষ্টি এবং জন্মের সময় কম ওজন নিয়ে জন্ম হ্রাস করা। এই লক্ষ্যগুলো পূরণ করার জন্য নির্দিষ্ট কর্মসূচি এই মিশনের আওতায় গ্রহণ করা হয়েছে।

২০২২ সালের মধ্যে ২৫” মিশন অনুসারে, জাতীয় পুষ্টি মিশন ২০২২ সালের মধ্যে অপুষ্টির মাত্রা ৩৮.০২% থেকে ২৫% এ নামিয়ে আনার লক্ষ্য নিয়েছে।

মিশন বাস্তবায়নে কাজ করছে যেসব সংস্থা:-

জাতীয় পুষ্টি মিশনে আইসিটি-ভিত্তিক রিয়েল-টাইম মনিটরিং সিস্টেমের মাধ্যমে অপুষ্টি সম্পর্কিত বিভিন্ন তথ্যসংগ্রহ ও তা কাজে লাগানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

এছাড়া নির্ধারিত লক্ষ্যগুলি পূরণের জন্য রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির কাজ সমন্বয় করা, তাদের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডকে উৎসাহিত করা, এবং সেবা কেন্দ্র ও উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের কার্যকারিতা বৃদ্ধির জন্য বিভিন্ন ধরনের সচেতনতা বৃদ্ধি, উৎসাহিতকরণ, ফান্ড গঠনে সহায়তা করাও এই মিশনের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য।

জাতীয় পুষ্টি মিশন সরকারী প্রকল্প হলেও এটা বাস্তবায়নে সকল ধরনের প্রতিষ্ঠানের সাহায্য ও সদিচ্ছা প্রয়োজন যাতে সরকারী পর্যায় ছাড়াও বেসরকারী, ব্যক্তি ও সংগঠন পর্যায়েও দেশ থেকে অপুষ্টি দূরীকরণে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়া হয়৷

মিশন সংশ্লিষ্ট অন্যান্য সংস্থা:

ভারত সরকার কতৃক গৃহীত অন্যান্য প্রকল্পগুলোর মধ্যে রয়েছে প্রধানমন্ত্রী মাতৃবন্দন যোজনা (পিএমএমভিওয়াই), জননী সুরক্ষা যোজনা, কিশোরী মেয়েদের জন্য প্রকল্প (এসএজি), স্বাস্থ্য ভারত অভিযান, পিডিএস, জাতীয় স্বাস্থ্য মিশন ইত্যাদি। অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রগুলির জন্য, মিশনটি নিম্নলিখিত কাজগুলো সম্পাদন করে:

আইটি-ভিত্তিক সরঞ্জামগুলি ব্যবহারের জন্য অঙ্গনবাদী কর্মীদের (এডাব্লুডাব্লু )কে প্রণোদনা প্রদান করে।

এডাব্লুডাব্লু দ্বারা ব্যবহৃত রেজিস্টারগুলি সংরক্ষন ও পরবর্তীতে ব্যবহার নিশ্চিত করে। অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রগুলিতে বাচ্চাদের উচ্চতা পরিমাপ করা হয়, দেখা হয় বয়স অনুযায়ী তাদের উচ্চতা ঠিকভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে কিনা। কারণ সঠিক পুষ্টি পেলে বয়স অনুযায়ী উচ্চতা ঠিকভাবে বৃদ্ধি পাবে।

মিশনের আর একটি উপাদান হ’ল বিশ্বব্যাংকের সহায়তায় সমন্বিত শিশু উন্নয়ন পরিষেবাদি (আইসিডিএস) সিস্টেমের অধীনে জাতীয় পুষ্টি মিশনের লক্ষ্যসমূহ বাস্তবায়নের উদ্দেশ্য সমস্ত পদক্ষেপ সঠিকভাবে নেওয়া হচ্ছে কিনা তা নিশ্চিত করা।

মিশন বাস্তবায়নে কাজ করছে যেসব সংস্থা:

জাতীয় পুষ্টি মিশন বাস্তবায়নকারী সংস্থা হ’ল মহিলা ও শিশু উন্নয়ন মন্ত্রণালয়, জিওআই। NITI Aayog ও এই মিশনে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে চলেছে।

ন্যাশনাল কাউন্সিল অন ইন্ডিয়ার নিউট্রিশনাল চ্যালেঞ্জস, যা পশান বা পুষ্টি অভিযানের অধীনে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, এর সভাপতির পদে এনআইটিআইয়ের ভাইস চেয়ারপারসন রয়েছে, যিনি পুষ্টি মিশনের সামগ্রিক কাজের সমন্বয়ের বিষয়টি দেখেন।

এই সংস্থানকে জাতীয় পুষ্টি কাউন্সিলকে পুষ্টি বা এনসিএন জাতীয় কাউন্সিলও বলা হয়।

এনসিএন পুষ্টিগত চ্যালেঞ্জগুলি মোকাবিলার জন্য নীতি নির্দেশনা দেয় এবং একই জন্য প্রোগ্রামগুলি পর্যালোচনা করে।এটা পুষ্টি সম্পর্কিত জাতীয় সকল কর্মকান্ডের সমন্বয় এবং সমজাতীয় কাজগুলো একত্রিতকরণ করে থাকে।

জাতীয় পুষ্টি মিশন নির্দিষ্ট লক্ষ্য অর্জন টার্গেট নিম্নলিখিত:

  • বছরে ২% স্টান্টিং হ্রাস করা, বার্ষিক 2% অপুষ্টি হ্রাস করা,
  • রক্তস্বল্পতা বার্ষিক 3% হ্রাস করা।
  • কম ওজনের শিশু জন্ম বার্ষিক ২% হ্রাস করা। অপুষ্টিতে কোভিড -১৯ এর প্রভাব
  • কোভিড -১৯ লক্ষ লক্ষ মানুষকে দারিদ্র্যের দিকে ঠেলে দিচ্ছে, আরও অনেকের আয় হ্রাস করছে এবং অর্থনৈতিকভাবে সুবিধাবঞ্চিতদের উপর প্রভাব ফেলছে, যারা অপুষ্টি ও খাদ্য নিরাপত্তাহীনতায় সবচেয়ে বেশি ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।
  • এছাড়াও, মহামারীর জন্য দেওয়া লকডাউনগুলি প্রয়োজনীয় পরিষেবাগুলিকে ব্যাহত করেছে – যেমন অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রগুলির অধীনে পরিপূরক খাদ্য বিতরণ কর্মসূচি, মধ্যাহ্নভোজ, টিকাদান এবং পুষ্টিকর পরিপূরক বিতরণ যা অপুষ্টির মাত্রা হ্রাস করে।

আরও কিছু

বর্তমান সরকার কতৃক গৃহীত যেসব প্রকল্পগুলো স্বপ্নের ভারত গঠনে অগ্রগণ্য ভূমিকা রাখবে তাদের মধ্যে পোশান অভিযান বা জাতীয় পুষ্টি মিশন অন্যতম। কারণ দেশের দ্ররিদ্র এবং অল্প সচেতন জনগোষ্ঠী ঠিকমত পুষ্টিকর খাদ্য না পেলে কখনোই কর্মক্ষম জনগোষ্ঠী গড়ে তোলা সম্ভব নয়।

দেশের সকল কাজ এবং উন্নয়ন তো মানুষকে উদ্দেশ্য করেই পরিচালিত হয়। তাই এই অভিযান শুধু সরকারী পদক্ষেপ নয়, দেশের জনগণদের মধ্যেও এই কাজের গুরুত্ব ছড়িয়ে দিচ্ছে, যাতে সবাই এ লক্ষ্য অর্জনে এগিয়ে আসে, সচেতনতা বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখে।

সুপ্রিয় পাঠক, আপনি নিজেও ভারতের নাগরিক, তাই নিজের সাধ্যমত এই মিশন সফল করতে ভূমিকা রাখুন, নিজে এ ব্যাপারে সচেতন হোন, অন্যদের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখুন। তাহলেই জাতীয় পুষ্টি মিশন ২০২২ সালের মধ্যে লক্ষ্য অর্জনে সফল হবে।

আশা করি জাতীয় পুষ্টি মিশন সম্পর্কে বিস্তারিত জানানোর প্রয়াস সফল হয়েছে। পোস্টটির বিষয়ে কোন তথ্য জানানোর হলে বা কোন প্রশ্ন থাকলে কমেন্ট সেকশনে কমেন্ট করুন। আমরা অবশ্যই তথ্য জানিয়ে আপনাকে সাহায্য করার চেষ্টা করব। আজকের মত এখানেই শেষ করছি।

ধন্যবাদ সবাইকে।

কেন্দ্র সরকারের সমস্ত যোজনাClick Here
পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত প্রকল্পClick Here
বাংলাভুমি হোমClick Here

Leave a Comment