PM Swachh Bharat Mission 2021: Application Processes & Benefits

স্বচ্ছ ভারত অভিযান (Swachh Bharat Mission) সম্পর্কে সর্বশেষ আপডেট – অর্থ মন্ত্রণালয় ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে ঘোষণা করেছিল যে স্বচ্ছ ভারত মিশন (নগর) ২.০ “স্বচ্ছ ও মঙ্গলকর” শিরোনামে চালু করা হবে। এসবিএম-ইউ পর্যায় -নগরাঞ্চলে সুবিধাবঞ্চিত জনসংখ্যাসহ সবাই এই অভিযানের সুবিধাভোগী হবেন।

জল নিস্কাশন, রাস্তা পরিষ্কার, ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়নসহ সবকিছুই থাকবে স্বচ্ছ ভারত অভিযানের অন্তর্ভুক্ত। নগরাঞ্চলে দূষনের মাত্রা অধিক, প্লাস্টিক, বর্জ্য, জলাবদ্ধতা ইত্যাদির জন্য প্রচুর পরিবেশ দূষন হয় এবং মশার বংশবিস্তার ঘটে যা বিভিন্ন কঠিন অসুখের সংক্রমণ ঘটায়।

Swachh Bharat Mission in Bangla
Swachh Bharat Mission in Bangla

এ সবকিছু থেকে নগরাঞ্চলকে মুক্ত করতে স্বচ্ছ ভারত অভিযানের সূচনা হয়। আমাদের আজকের আয়োজনে থাকছে স্বচ্ছ ভারত সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য। চলুন দেরী না করে মূল আলোচনায় যাওয়া যাক।

স্বচ্ছ ভারত অভিযান কী?

ভারতের ভারত ইতিহাসের অন্যতম জনপ্রিয় এবং উল্লেখযোগ্য মিশন স্বচ্ছ ভারত অভিযান।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এই প্রচারণা প্রবর্তন করেছিলেন এবং এই প্রচারণা মহাত্মা গান্ধীর একটি পরিচ্ছন্ন অভিযানের সাথে সাদৃশ্যপূর্ন, এবং এই অভিযানের প্রতি সম্মান প্রদর্শনপূর্বক স্বচ্ছ ভারত অভিযানের সূচনা হয় ২০১৪ সালের ২ রা অক্টোবর।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী স্বচ্ছ ভারত অভিযানের জন্য নিউইয়র্কের 25 সেপ্টেম্বর, 2019-এ গেটস ফাউন্ডেশন থেকে “গ্লোবাল গোলকিপার” পুরষ্কার পেয়েছিলেন।
প্রাথমিকভাবে, এই অভিযানটি শহরাঞ্চল গ্রামীণ ও নগর অঞ্চলে একযোগে জাতীয় পর্যায়ে পরিচালিত হয়েছিল।

আপনি কি পরিষ্কার ভারত মিশনের অধীনে প্রচারগুলি সম্পর্কে জানেন? এইগুলো হচ্ছে প্লাস্টিক থেকে সুরক্ষা, স্বচ্ছ সেবাদান, সর্বক্ষেত্রে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করা, শ্রমের ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা। স্বচ্ছ ভারত অভিযান প্রকল্পের জন্য ১,৪১,৬৭৮ কোটি টাকা যা দ্বারা সারাদেশে পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচি চালানো হবে।

স্বচ্ছ ভারত অভিযানের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে জনগণের মধ্যে পরিচ্ছন্নতা সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি এবং এর গুরুত্ব সম্পর্কে তাদেরকে সচেতন করা।

স্বচ্ছ ভারত অভিযানের মূল লক্ষ্য হচ্ছে টয়লেট, সলিড ও তরল বর্জ্য নিষ্কাশন ব্যবস্থা, গ্রামের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা এবং প্রত্যেক ব্যক্তিকে নিরাপদ ও পর্যাপ্ত পানীয় জলের সরবরাহের মতো মৌলিক স্যানিটেশন সুবিধা প্রদান করা।

স্বচ্ছ ভারত অভিযান কর্ম পরিকল্পনা

পরিষ্কার ভারত অভিযানের মূল কর্মপরিকল্পনা তৈরি করেছে পানীয় জল ও স্যানিটেশন মন্ত্রণালয়। ২০২১ সালের মধ্যে স্যানিটেশন সুবিধাকে তিনগুণ বাড়ানোর পরিকল্পনা করা হয়েছে।

স্বচ্ছ ভারত অভিযান বাস্তবায়নের জন্য সবচেয়ে বড় পরিবর্তন আনা হবে যত্রতত্র খোলা জায়গায় মল-মূত্র বিসর্জন রোধ করা। এই অভ্যাস পরিবেশ নষ্ট করে এবং খুবই দৃষ্টিকটু বিষয়ের মধ্যে অন্যতম।

কর্ম পরিকল্পনা হাইলাইটস:

২০১৯ সালের মধ্যে টয়লেটগুলির বৃদ্ধির হার ৩% থেকে ১০% এ উন্নিত করা।সারাদেশে প্রতিদিন ১৪০০০ থেকে ৪৮০০০ টয়লেট নির্মাণ করা।

সচেতনতার বার্তা প্রচারের জন্য অডিও-ভিজ্যুয়াল, মোবাইল টেলিফোন এবং স্থানীয় প্রোগ্রামগুলির মাধ্যমে একটি জাতীয় স্তর / রাজ্য স্তরের মিডিয়া প্রচার শুরু করা হয়েছে যাতে সকল স্তরের মানুষ স্বচ্ছ ভারত অভিযান সম্পর্কে ধারণা পায় এবং নিজেদের সচেতনতা বৃদ্ধি করতে পারে।

Swachh Bharat Mission Highlights
Swachh Bharat Mission Highlights

জল, স্যানিটেশন এবং স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কে সচেতনতা ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য ক্রিয়াকলাপে শিশুদের অংশগ্রহণও নিশ্চিত করা হচ্ছে কারণ তারাই সবচেয়ে বেশী পরিচ্ছন্নতার অভাবে ডায়রিয়া, কলেরা, পেটের অসুখে ভুগে থাকে।

স্বচ্ছ ভারত মিশন নগর উন্নয়ন মন্ত্রণালয়ের অধীনের আওতাধীন এবং ৩৭৭ মিলিয়ন জনসংখ্যার স্বাস্থ্য ও পরিবেশ সচেতনতা এর লক্ষ্য। ৪০৪১ টি বিধিবদ্ধ শহরে স্যানিটেশন সুবিধা নিশ্চিত করা এই অভিযানের অন্যতম উদ্দেশ্য। এই অভিযানের বিগত পাঁচ বছরে আনুমানিক ব্যয় ৬২,০০৯ কোটি রুপি যা কেন্দ্রের অংশীদারিত্বের ১৪,৬২৩ কোটি টাকা।

এই মিশনের লক্ষ্য এবং প্রত্যাশা হচ্ছে ১.০৪ কোটি পরিবারকে স্যানিটেশনসহ অন্যান্য সুবিধা নিশ্চিত করা,আড়াই লক্ষ কমিউনিটি টয়লেট প্রতিষ্ঠা করা, ২.৬ লক্ষ পাবলিক টয়লেট প্রতিষ্ঠা করা যাতে সারাদেশের মানুষ স্যানিটেশন সুবিধার আওতায় আসে, যখন তারা বাড়ির বাইরে অবস্থান করছেন তখনও যেন এই সুবিধার আওয়ায় থাকেন।

স্বচ্ছ ভারত অভিযানের আরেকটি অন্যতম উদ্দেশ্য হচ্ছে এটি প্রতিটি শহরে কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনার ব্যবস্থা করারও প্রস্তাব জানিয়েছে। এই মিশনের মূল অংশে ছয়টি উপাদান রয়েছে: স্বতন্ত্র পারিবারিক টয়লেট; কমিউনিটি টয়লেট;গণশৌচাগার; পৌর সলিড বর্জ্য ব্যবস্থাপনা; তথ্য ও শিক্ষা যোগাযোগ (আইইসি) এবং জনসচেতনতা; অবকাঠামোতে শৌচাগারের সংখ্যার নির্দিষ্টতা।

আরবান ক্লিন ইন্ডিয়া মিশন খোলাস্থানে মল-মূত্রত্যাগ নির্মূল করার চেষ্টা করেছে; সাধারন টয়লেটগুলি ফ্লাশ টয়লেটে রূপান্তর করার কাজও হাতে নিয়েছে যাতে মানুষ টয়লেট সহজে পরিষ্কার রাখতে পারে।

এই মিশনটি স্বাস্থ্যকর স্যানিটেশন অনুশীলনের জন্য মানুষের মধ্যে আচরণগত পরিবর্তন আনার উপর জোর দেয়, খোলাস্থানে মল-মূত্রত্যাগের ক্ষতিকারক প্রভাব সম্পর্কে সবাইকে অবগত করে যাতে তারা এইকাজ করতে নিরুৎসাহিত হয়। এছাড়াও যত্রতত্র ময়লা ফেলার অসুবিধা ও পরিবেশগত ঝুঁকি সম্পর্কে অবগত করে থাকে।

এই লক্ষ্যগুলি অর্জনের জন্য, মূলধন এবং অপারেশন ব্যয়ের উভয় ক্ষেত্রেই বেসরকারী খাতের অংশীদারিত্বের জন্য পরিবেশের সুবিধার্থে নগর স্থানীয় সংস্থাগুলির অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা হয়েছে, যাতে করে পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজের ডিজাইন, বাস্তবায়ন আরও কার্যকর ও শক্তিশালীভাবে করা সম্ভব।

অভিযানের উদ্দেশ্য ও সফলতা

স্যানিটেশনকে জীবনচক্র সমস্যা হিসাবে দেখা উচিত এবং তাই কর্মক্ষেত্র, শিক্ষাঙ্গন এবং অন্যান্য পাবলিক স্পেসে স্যানিটেশন সুবিধাকে গুরুত্বপূর্ণ মনে করতে হবে। এর জন্য সঠিক সময়ে সঠিক জায়গায় এবং সবচেয়ে উপযুক্ত উপায়ে বিনিয়োগ করা দরকার।

অনেক সময় ইতিমধ্যেই পার হয়েছে এবং মহাত্মার দেড়শতম জন্মবার্ষিকী খুব বেশি দূরে নয়। তিনি যে অভিযানের শুরু করেছিলেন তার পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়নে নগর উন্নয়ন পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় তাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছে।

স্বচ্ছ ভারত অভিযান আর দশটা সরকারী প্রকল্পের মত নয়, এটার কার্যকারিতা সুদূরপ্রসারী, এটা এমন অভিযানও নয় যা প্রথমদিকে খুব উৎফুল্লভাবে শুরু করা হলেও পরে স্তিমিত হয়ে পড়ে।

স্বচ্ছ ভারত অভিযানের অবশ্যই দুর্দান্ত লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য রয়েছে, এই অভিযান সম্পূর্ন সফল করতে অর্থ, কার্যকর বাস্তবায়ন ও সচেতনতা বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। এছাড়া অভিযান সফলের পথের বাধাসমূহ সঠিক পদ্ধতিতে মোকাবেলা করা দরকার।

ভারতের প্রতিটি নাগরিক যথাক্রমে সাক্ষর এবং নিরক্ষর উভয় শ্রেনীকেই তাদের পরিচ্ছন্নতা সম্পর্কিত বদঅভ্যাস দূরীকরণে আচরণগত পরিবর্তনে উৎসাহিত করা প্রয়োজন।

ভারতের ঐতিহ্যবাহী দর্শনীয় স্থানগুলোকেও পর্যাপ্ত স্যানিটেশন ব্যবস্থার আওতায় আনার জন্য কাজ করা হচ্ছে। খুব দ্রুতই ১০০ টি ঐতিহ্যবাহী স্থানে সম্পূর্ণ স্যানিটেশন ব্যবস্থার আওতায় নিয়ে আসা সম্ভব হবে।

উপসংহার

মহাত্মা গান্ধীর স্বপ্নের পরিচ্ছন্ন ভারত গঠনে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর উদ্যোগে স্বচ্ছ ভারত অভিযানের সফলতা অর্জনে নগর পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন।

সবকিছু ঠিক থাকলে এবং নাগরিকরা সঠিকভাবে সহায়তা ও নিজেরা সচেতন হলে এই অভিযানের কাঙ্ক্ষিত সাফল্যর্জন অবশ্যই সম্ভব হবে। আশা করি স্বচ্ছ ভারত অভিযান সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা দিতে সক্ষম হয়েছি।

পোস্টটির বিষয়ে কোন তথ্য জানানোর হলে বা কোন প্রশ্ন থাকলে কমেন্ট সেকশনে কমেন্ট করুন। আমরা অবশ্যই তথ্য জানিয়ে আপনাকে সাহায্য করার চেষ্টা করব। আজকের মত এখানেই শেষ করছি।

কেন্দ্র সরকারের সমস্ত যোজনা Click Here
পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত প্রকল্প Click Here
বাংলাভুমি হোম Click Here

Leave a Comment