ভেহিকেল স্ক্র্যাপেজ পলিসি 2024: ভেঙ্গে ফেলা হবে লক্ষ-লক্ষ পুরাতন গাড়ি

ভেহিকেল স্ক্র্যাপেজ পলিসি যোজনা কি? এই যোজনায় কি কাজ হবে? কিভাবে ভেহিকেল স্ক্র্যাপেজ পলিসি দিয়ে সকল পুরাতন গাড়ি নষ্ট করা হবে? জানুন সবকিছু। Vehicle Scrappage Policy 2024 in Bangla

মোদী সরকারের নতুন ভেহিকেল স্ক্র্যাপেজ পলিসি কি? উদ্দেশ্য কি? কিভাবে লাভ হবে এই পলিসির দ্বারা। জেনে নিন এই ভেহিকেল পলিসি সম্পর্কে সবকিছু।

Vehicle Scrappage Policy 2024: অটোমোবাইল সেক্টারে ভেহিকেল স্ক্র্যাপেজ পলিসি 2024 নামে একটি নতুন প্রকল্পের উদ্যোগের কথা ঘোষণা করেছে সরকার।

পরিবেশ দূষণকে রোধ করতে সেই দিকে নজর দিল কেন্দ্র। এই নীতিটি ভারতীয় অটোমোবাইল খাতকে উতৎসাহিত করার জন্য একটি বড় পদক্ষেপ হিসাবে বিবেচিত হয়েছে কেন্দ্রে।

এটি কার্যকর করা হলে, স্ক্র্যাপেজ নীতিতে আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে ভারত বিশ্বের বৃহত্তম অটোমোবাইল হাব হিসাবে পরিণত হবে।

১লা ফেব্রুয়ারি, কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অটোমোবাইল উৎপাদন খাতে এবং কম কার্বন নিঃসরণকে মাথায় রেখে একটি যানবাহন স্ক্র্যাপিং নীতি ঘোষণা করেন।

যার ফলে বয়সের চাপে নুইয়ে পড়েছে এমন অনেক গাড়িকে স্ক্র্যাপ পলিসির আওতায় আনা হবে। অনেকেই আছেন যারা পুরনো গাড়ি বারবার মেরামত করে চালান তবে এক্ষেত্রে পরিবেশ দূষণের সম্ভাবনা অনেকাংশে বেড়ে যায়।

Modi Govt Vehicle Scrappage Policy in Bangla
ভেহিকেল স্ক্র্যাপেজ পলিসি 2024: ভেঙ্গে ফেলা হবে লক্ষ-লক্ষ পুরাতন গাড়ি

নতুন নির্দেশিকা অনুসারে ফিটনেস কেন্দ্রগুলির জন্য অ্যাপয়েন্টমেন্ট অনলাইনে বুক করা যেতে পারে।

কেন্দ্রীয় সরকার, রাজ্য সরকার, পৌর কর্পোরেশন, পঞ্চায়েতগুলি, রাজ্য পরিবহণের উদ্যোগে, সরকারী সেক্টরের উদ্যোগে এবং স্বায়ত্তশাসিত সংস্থার সমস্ত ইউনিয়ন এবং রাজ্য সরকারের সমন্বয়ে সমস্ত যানবাহনকে অন্তর্ভুক্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন।

অন্তর্ভুক্ত করার তারিখ থেকে ১৫ বছর পর বাতিল করা যেতে পারে নিবন্ধকরণ।পরিসংখ্যান অনুসারে ভারতে ২০ বছরেরও বেশি পুরানো মোটামুটি ৫১ লক্ষ হালকা মোটর গাড়ি বা এলএমভি রয়েছে। এছাড়াও এখনও ১৫ বছরের পুরনো গাড়িই মানুষ ব্যবহার করে চলেছেন।

১. এই প্রকল্পের উদ্দেশ্য:

  • সরকারের অটোমোবাইল আধুনিকায়ন কর্মসূচীটির লক্ষ্য বায়ু দূষণ হ্রাস, ভারতের জলবায়ুর প্রতি প্রতিশ্রুতি পূরণ, রাস্তা ও যানবাহন সুরক্ষার উন্নতি, জ্বালানীর উন্নতি সাধন এবং অটো, ইস্পাত এবং স্বল্প ব্যয়ে কাঁচামালের সহজলভ্যতা বৃদ্ধির একাধিক লক্ষ্য অর্জনের জন্যই এই বৈদ্যুতিন শিল্পের উদ্ভাবন।
  • এই প্রকল্পের ফলে কর্মসংস্থানের দিশা দেখাচ্ছে কেন্দ্র।
  • যারা এই স্কিমটি বেছে নেবে তারা স্ক্র্যাপেজ সেন্টারে পুরানো গাড়ির স্ক্র্যাপের মূল্য পাবে, যা নতুন যানবাহনের প্রাক্তন শোরুম মূল্যের প্রায় 4-6 শতাংশ।এবং ব্যক্তিগতভাবে 25 শতাংশ পর্যন্ত রোড ট্যাক্স ছাড় পাবে।যানবাহন এবং বাণিজ্যিক যানবাহনের উপর 15 শতাংশ ছাড়।তারা স্ক্র্যাপিং শংসাপত্রের নির্মাণের উপর 5 শতাংশ ছাড় দেবে এবং নিবন্ধন/রেজিস্ট্রেশন ফি’তেও ছাড় দেবে।
  • এই প্রকল্পটির লক্ষ্য 25-30 শতাংশ যানবাহনের বায়ুদূষণ কমানো এবং আরও ভাল জ্বালানির প্রয়োগ নিশ্চিত করা।পুরানো যানবাহনটি রাস্তা থেকে নিখোঁজ হয়ে যাওয়ার সাথে সাথে নতুন যানবাহনের চাহিদা বাড়ার সাথে সাথে,পরিষেবা ও উৎপাদন শিল্পের গতি বাড়াবে এই প্রকল্প।
  • এই প্রকল্পের প্রভাব যত তাড়াতাড়ি সম্ভব দেখা যেতে পারে। তবে তা নিশ্চিতভাবে কার্যকর করার জন্য সরকার কিছু সময়সীমা নির্ধারণ করেছে।
  • ফিটনেস সেন্টার এবং স্ক্র্যাপিং কেন্দ্রগুলির বিধিগুলি ১লা অক্টোবর থেকে কার্যকর হবে।১৫ বছরেরও বেশি সময় ধরে সরকারী যানবাহনগুলি স্ক্র্যাপিং করা যেতে পারে এই প্রকল্পে।১লা এপ্রিল, 2022 এর মধ্যে ব্যক্তিগত গাড়ির ফিটনেস পরীক্ষা করা হবে। ভারী এবং অন্যান্য বিভাগের যানবাহনকে  এপ্রিল, 2023 এর মধ্যে ফিটনেস পরীক্ষা করতে হবে।
  • সারাদেশে কমপক্ষে ১৮ টি কেন্দ্র নির্মাণ করার লক্ষ্য রয়েছে সরকারের।
Vehicle Scrappage Policy
Vehicle Scrappage Policy 2024

২. এই প্রকল্পের সুযোগ সুবিধা সম্পর্কে জানুন:

  • এই পদ্ধতিতে ১৫ বছরের পুরনো বাণিজ্যিক গাড়ি এবং ২০ বছরের পুরনো ব্যক্তিগত গাড়িকে ‘স্ক্র‌্যাপেজ পলিসি’ র আওতায় আনা হবে।
  • ২০ বছরের পুরনো ‘ব্যক্তিগত’ যানবাহন এবং ১৫ বছরের পুরনো ‘বাণিজ্যিক’ যানবাহনগুলিকে সরকার নিবন্ধিত ‘অটোমেটেড ফিটনেস সেন্টারস’ এ ফিটনেস পরীক্ষা করতে হবে।
  • পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়া যানবাহনগুলিকে ‘end of life vehciles’ হিসাবে ঘোষণা করা হবে, যার অর্থ হবে গাড়িটি পুনর্ব্যবহার করতে পারবেন।
  • এটি পুরানো যানবাহনগুলি বিনষ্ট করার পথ প্রশস্ত করবে।
  • নতুন নীতি অনুসারে, পুনরায় রেজিস্ট্রেশন ফি ‘ব্যক্তিগত’ যানবাহনের জন্য প্রায় ৮ বার এবং বাণিজ্যিক যানবাহনের জন্য প্রায় ২০ বার বাড়ানো হবে।
  • প্রতিটি যানবাহনকে স্বয়ংক্রিয় ফিটনেস কেন্দ্রগুলিতে বাধ্যতামূলক ফিটনেস পরীক্ষার অধীনে যেতে হবে।
  • এই কেন্দ্রগুলিতে নিয়োগীকরণ/রেজিস্ট্রেশন অনলাইনে বুক করতে হবে। কেন্দ্রের মতে এই প্রকল্পের মাধ্যমে গাড়ি শিল্পের লাভ হবে।
    15 বছরের বেশি পুরনো ‘ব্যক্তিগত’ যানবাহনের জন্য এখানে নতুন ফি কাঠামোটি দেওয়া হল:
    দ্বি-চাকার গাড়ি – ১,০০০ টাকা
    থ্রি-হুইলার / চতুর্ভুজ – 3,500 টাকা
    গাড়ি – 7,500 টাকা।বাণিজ্যিক যানবাহনের জন্য:
    যাত্রী মোটর গাড়ি – 10,000 টাকা
    ভারী পণ্য / বড় মোটর গাড়ি – 12,500 টাকা
  • আপনি যদি নতুন যানটি কিনে থাকেন তবে আপনাকে স্ক্র্যাপিং শংসাপত্র উপস্থাপন করার ক্ষেত্রে আপনাকে পাঁচ শতাংশ ছাড় দেওয়া হবে।
  • নতুন গাড়ি কেনার ক্ষেত্রে নিবন্ধন ফিও মকুব করা হবে।
  • ভারতের এই প্রথম আনুষ্ঠানিক স্ক্র্যাপেজ নীতিটি পরিবেশগত ঝুঁকি হ্রাস করতে সক্ষম হবে।
  • এই আনফিট বা পুরনো গাড়িগুলোকে বিক্রি করে নতুন গাড়ি কিনতে পারবেন।
  • এই নীতির ফলে সরকার মনে করছেন নতুন গাড়ির চাহিদা বাড়বে।

৩. এই প্রকল্পের কাজ:

  • ভেহিকেল স্ক্র্যাপেজ পলিসি অনুযায়ী, কোনও গাড়ির রেজিস্ট্রেশন ১৫ বছরের জন্যই বৈধ। তার পরে গাড়িটি যে আরটিও (রিজিওনাল ট্রান্সপোর্ট অফিস)- তে নথিভুক্ত, সেখানেই এটিকে নিয়ে যেতে হবে।
  • এখানেই গাড়িটির ব্রেক, জ্বালানি,লাইট, ইন্ডিকেটর সব পরীক্ষা করে দেখা হবে। যন্ত্রাংশ ঠিক থাকলে ফিট সার্টিফিকেট প্রদান করা হবে।ফলত আপনি গাড়িটি ৫ বছর আবার ব্যবহার করতে পারবেন।তারপরে আবার ফিটনেস প্রক্রিয়ার আওতায় আনতে হবে।
  • অথবা যদি গাড়িটি আনফিট থাকে তবে সেটিকে বাতিল ঘোষণা করা হবে। সেক্ষেত্রে গাড়িটি স্ক্র্যাপ করা হবে।
  • গাড়ি পরীক্ষার দিকে যথেষ্ট নজর দিতে চলেছে কেন্দ্র। গাড়ির খুঁটি নাঁটি পরীক্ষা হবে কম্পিউটারের মাধ্যমে।ফলে একবার কোনো যন্ত্রাংশ বাতিল ঘোষণা হলে আর সেই গাড়িটি সার্টিফিকেট পাবে না।
Central Govt's Vehicle Scrappage Policy in Bangla
Central Govt’s Vehicle Scrappage Policy 2024 in Bangla

৪. নতুন নিয়ম চালু করার জন্য সময়সীমা:

  • ফিটনেস টেস্ট এবং সরকারী স্ক্র্যাপিং সেন্টারগুলি কার্যকর হওয়ার জন্য সময় লাগবে। সম্ভবত এই বছরের  2021 এর অক্টোবর থেকে শুরু হবে এর কাজ।
  • 15 বছরের বেশি বয়সের সরকারী এবং পিএসইউ(PSU) যানবাহন স্ক্র্যাপিং শুরু হবে – ১লা এপ্রিল 2022 এ।
  • ভারী বাণিজ্যিক যানবাহনগুলির জন্য ফিটনেস পরীক্ষা শুরু হবে 1 এপ্রিল 2023এ।

৫. কিছু প্রয়োজনীয় কথা:

আপনার গাড়িটিকে এই স্ক্র্যাপিং এর হাত থেকে রক্ষা করার জন্য মোটা টাকার অর্থের ব্যায় করতে হতে পারে।

গাড়ির মালিক যদি মনে করেন তিনি এই পরীক্ষা করাবেন না তবে তাকে আরটিও- কে রোড ট্যাক্স ও গ্রিন ট্যাক্সে অনেকটা টাকা দিতে হবে।তবে যে রাজ্যে দূষণের পরিমাণ যত বেশি তার গ্রিন ট্যাক্সের টাকার পরিমাণ তত বেশি।

পরিবেশ দূষণ রোধ করতেই এই পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে পরিবহন মন্ত্রক।

একবার পলিসি কার্যকরী হলে ১৫ বছরের পুরনো কমার্শিয়াল গাড়িগুলিকে দেখাতে হবে যে তারা কতটা রাস্তায় চলার মতো অবস্থায় রয়েছে।

বলা যায় পরীক্ষা দিতে হবে তাদের।

যদি কোনওভাবে গাড়ির ফিটনেসে কোনও ত্রুটি খুঁজে পাওয়া যায় তবে তাদের সার্টিফিকেট আর রিনিউ করা হবে না।এই কাজগুলো করার জন্য দেশজুড়ে স্ক্র্যাপিং সেন্টার নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে।

কেন্দ্র সরকারের সমস্ত যোজনাClick Here
পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত প্রকল্পClick Here
বাংলাভুমি হোমClick Here

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *