প্রধানমন্ত্রী কিষান যোজনা 2024: স্ট্যাটাস, লিস্ট ও আবেদন

প্রধানমন্ত্রী কিষান যোজনা 2024 (PM Kisan Samman Nidhi Yojana 2024): প্রধানমন্ত্রী কৃষক সম্মান নিধি যোজনা স্ট্যাটাস চেক করুন অনলাইন, জানুন কিষান সম্মান নিধি লিস্ট 2024-25, PM Kisan Yojana Beneficiary list 2024 (প্রধানমন্ত্রী কিষান যোজনা 2024)

PM Kisan Yojana 2024 pmkisan.gov.in: আমাদের বেঁচে থাকার জন্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন যেটা অক্সিজেন এর পাশাপাশি খাদ্যদ্রব্য। যেটা উৎপন্ন করে থাকেন দেশের সমস্ত কৃষকেরা। তবুও কৃষকদের জীবিকা নির্বাহের জন্য সঞ্চিত কোন অর্থ থাকে না, অথবা কোনো অসুবিধায় তাদের হেল্প করার মতো কোনো পরিস্থিতি তৈরি হয় না।

ক্ষুদ্র এবং প্রান্তিক কৃষকদের যখন চাষবাস ছাড়া জীবিকা নির্বাহের কোন উপায় নেই, এবং ভালোভাবে বাঁচার জন্য কোন সঞ্চিত টাকা নেই। বৃদ্ধ বয়সে কৃষকদের অবস্থা আরও বেশি করুন হয়ে ওঠে।

প্রধানমন্ত্রী কৃষক দের জন্য একটি প্রকল্প চালু করেন, আর তা হলো প্রধানমন্ত্রী কিষান সম্মান নিধি যোজনা 2024 (PM Kisan Samman Nidhi Yojana 2024) । এই প্রকল্পে আবেদন করলে প্রতিবছর আপনি আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ৬০০০ টাকা পেতে পারেন।

PM Kisan Samman Nidhi, Eligibility for Apply at pmkisan.gov.in
প্রধানমন্ত্রী কিষান যোজনা 2024: স্ট্যাটাস, লিস্ট ও আবেদন

প্রধানমন্ত্রী কিষান সম্মান নিধি যোজনা তে এই টাকা তিন কিস্তিতে দেওয়া হয়। অর্থাৎ চার মাস পর পর আপনি ২০০০ করে টাকা পাবেন। সেটা বছরে মোট ৬ হাজার টাকা।

PM Kisan Registration: অনলাইন আবেদন পক্রিয়া

PM Kisan Status: আবেদনের ও টাকা পাওয়ার স্ট্যাটাস

প্রধানমন্ত্রী কিষান সম্মান নিধি যোজনা বৈশিষ্ট্য গুলি:

১) প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী তার অন্তিম বাজেট অধিবেশনে ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনের আগে কৃষকদের সুবিধার্থে কৃষকদের জন্য এই প্রকল্পটি নিয়ে আসেন।

২) এই প্রকল্প লঞ্চ করে সরকার চাইছিল এই প্রকল্পের মাধ্যমে কৃষকদের আর্থিক সহযোগিতা করতে।

৩) প্রধানমন্ত্রী কিষান সম্মান নিধি যোজনার মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট কৃষকদের আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করা হবে। কিষান সম্মান নিধি যোজনার যাবতীয় আর্থিক ব্যয় ভার সরাসরি সম্পূর্ণভাবে কেন্দ্র সরকার বহন করবে। অপরদিকে এই যোজনার আর্থিক সাহায্য পাওয়ার পর কৃষকেরা তাদের কৃষি কাজে উন্নতি ঘটাতে পারবে।

৪) এই প্রকল্পের মাধ্যমে আশা করা যায় যে, এই যোজনার আওতায় যেসব কৃষকেরা আছেন ২০২২ সালের মধ্যে কৃষকদের কৃষিকাজে আয় দ্বিগুণ হবে। তার সাথে সাথে যে হারে কৃষক আত্মহত্যা করছেন সেই আত্মহত্যার ঘটনাও কমতে থাকবে।

৫) কৃষকদের কথা মাথায় রেখেই সরকার বছরে ৬ হাজার টাকা আর্থিক সাহায্য দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন।

৬) কৃষক সম্মান নিধি যোজনার সমস্ত টাকা কৃষকের ব্যাংক একাউন্টে দেয়া হবে। এই প্রকল্পের টাকা পাওয়ার জন্য কৃষকদের কোন জায়গায় চক্কর কাটার কোন দরকার নেই।

৭) কৃষক সম্মান নিধি যোজনার জন্য ২০১৮-২০১৯ এই বছরে ২০ হাজার কোটি টাকা, ২০১৯-২০২০ এই বছরে ৭৫ হাজার কোটি টাকা, অর্থাৎ সবমিলিয়ে ৯৫ হাজার কোটি টাকা ধার্য করা হয়েছে এই প্রকল্পের জন্য।

৮) কৃষক সম্মান নিধি যোজনা এর মাধ্যমে ভারতবর্ষে পিছিয়ে পড়া  ১২ কোটিরও বেশি কৃষক অনেকটাই লাভবান হবে বলে আশা করা যায়।

৯) তাছাড়াও কেন্দ্র সরকারের অনুমান, একটার পর একটা প্রাকৃতিক বিপর্যয় এ বিপর্যস্ত কৃষকেরা এই প্রকল্পের টাকা সরাসরি তাদের ব্যাংক একাউন্টে পাওয়ার পর কিছুটা হলেও উপকৃত হবেন।

১০) আবার যে সমস্ত কৃষকদের ঋণ আছে আর যারা ঋণ সময়মতো পরিশোধ করছে সেই সমস্ত কৃষকদের শনাক্ত করে তাদের আরো বেশি উৎসাহিত করার জন্য সরকার বিশেষভাবে পুরস্কৃত করবে।

১১) পরবর্তীতে ভারতবর্ষের বিকাশ ও সরকার তহবিলে আর্থিক উন্নতি দেখা দিলে কৃষকদের এই আর্থিক সাহায্য পরিমাণটা ভবিষ্যতে বাড়তে পারে। Official Website: pmkisan.gov.in

প্রধানমন্ত্রী কিষান সম্মান নিধি যোজনার কয়েকটি নিয়ম:

১) এই প্রকল্পের নিয়ম হলো এই যোজনার টাকা একজন কৃষককে তিনটি কিস্তির মাধ্যমে দেয়া হবে। অর্থাৎ চার মাস পর ২০০০ টাকাা, তাহলে প্রতিমাসে ৫০০ করে টাকা আপনি পাবেন।

২) প্রধানমন্ত্রী কিষান সম্মান নিধি প্রকল্পের নিয়ম অনুযায়ী যে সমস্ত কৃষক আবেদন করেছিলেন তারা যোজনার রাশি প্রথম ইনস্টলমেন্ট এর ২০০০ টাকা ২০১৯ সালের ৩১ শে মার্চ এর মধ্যে তালিকাভুক্ত আবেদনকারী সমস্ত কৃষকেরা তাদের ব্যাংক একাউন্টে পেয়ে গেছেন।

প্রধানমন্ত্রী কিষান সম্মান নিধি যোজনা লাভ কারা পাবেন:

১) এই প্রকল্পের আওতায় আসা সমস্ত কৃষকেরা এই প্রকল্পের লাভ পাবেন। যদিও সরকার প্রথমে যে সমস্ত কৃষকদের ৫ একর জমি আছে শুধুমাত্র সেই সমস্ত কৃষকদেরই এই প্রকল্পের লাভ দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছিলেন তবে পরবর্তীতে তিনি এই ঘোষণা সরিয়ে নেন।

২) ভারতের সমস্ত কৃষক এই প্রকল্পের লাভ পাওয়ার জন্য যোগ্য। তবে এই প্রকল্পের সুবিধা নেওয়ার জন্য সেই কৃষকের ব্যাংক একাউন্ট থাকা বাধ্যতামূলক।

৩) তবে যে সমস্ত কৃষকদের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নেই, তাদের অবশ্যই নিজের নামে একটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলে দিতে হবে। এটা এমন কোন কঠিন কাজ নয়।

৪) সরকার যে সমস্ত ছোট ছোট কৃষক পরিবার, যেসব পরিবারে স্বামী-স্ত্রী, নাবালক শিশুু, সব মিলিয়ে  ২ হেক্টর এর কম জমি আছে, সেই সমস্ত কৃষকরাও প্রধানমন্ত্রী কৃষক সম্মান নিধি যোজনার লাভ পাবেন।

এবার জানা যাক এই যোজনার লাভ কারা নিতে পারবেন না:

১) ভারতবর্ষের যে সমস্ত নাগরিক অথবা কৃষক যারা ইনকাম ট্যাক্স দিয়ে থাকেন তারা কিন্তু এই প্রকল্পের সুবিধা নিতে পারবেন না।

২) রাজ্য এবং কেন্দ্রীয় সরকারের যে কোন সরকারি চাকরিজীবী ব্যক্তি এই কিষান সম্মান নিধি যোজনার কোন সুবিধা পাবেন না।

৩) তাছাড়া সরকারি চাকরিজীবীী, রিটায়ার্ড সার্ভিস ম্যাান, যারা কিনা ১০,০০০ টাকার বেশি পেনশন পান তারাও কিন্তু এই প্রকল্পের সুবিধা নিতে পারবেন না।

৪) আবার উকিল, ডাক্তাার, ইঞ্জিনিয়ার, চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট এই ধরনের ইত্যাদি পেশার ব্যাক্তিিরাও এই প্রকল্পের সুবিধা পাবেন না।

সব দিক থেকে দেখা যায় যে হতদরিদ্র কৃষক পরিবার এই প্রকল্পের মাধ্যমে কিছুটা হলেও উপকৃত হবেন। টাকার অভাবে অনেকে চাষের জমি থাকা সত্বেও চাষবাস ঠিকমত করে উঠতে পারেন না।

সেই কারণে বাৎসরিক এই টাকার বিনিময়ে চাষের কাজে উন্নতি ঘটানোর পাশাপাশি নিজেদের আর্থিক অবস্থার উন্নতি ঘটাতে পারবেন অনেক কৃষক পরিবার।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *