2022 জোম্যাটো অ্যাপের সাথে ব্যবসা করবেন কিভাবে | 2022 Zomato App Business Idea in Bengali

Zomato App Business Idea 2022 (জোম্যাটো অ্যাপের সাথে ব্যবসা 2022): How to Start Zomato App Business in India | Zomato App Business Idea in Bengali | Zomato App Business Plan 2022 in Bengali.

Zomato App Business Idea in Bengali 2022: জোমাটো অ্যাপ একটি ফুড ডেলিভারি অ্যাপ। এই অ্যাপের নাম নিশ্চয়ই শুনেছেন। অনেকে ঘরে বসে এই অ্যাপের মাধ্যমে বিভিন্ন রকমের সুস্বাদু খাবার অর্ডার দিয়ে থাকেন। জোমাটো এমন একটি কোম্পানি যা কিনা প্রায় ২৪ দেশে চলে এবং খুব তাড়াতাড়ি উন্নতি সাধনে সফল হয়েছে এই জোমাটো অ্যাপ।

তাছাড়া এখন বেশিরভাগ মানুষের ফোনে এই অ্যাপটি আছে কারণ খাবারের ছবি দেখে ঘরে বসেই অর্ডার দেওয়া যায় সুস্বাদু বিভিন্ন রকমের খাবার।

আর সেই কারণেই আপনি এই অ্যাপের মধ্যে রেজিস্ট্রেশন করিয়ে নিজের ব্যবসাটাকে বাড়াতে পারেন। এখানে আপনি আপনার খাবারের মেনুর ফটো যুক্ত করতে পারেন। যার মাধ্যমে মানুষ সেই খাবারগুলি তে আকর্ষিত হয়ে আপনার থেকে খাবার অর্ডার করবেন।

Zomato App Business Idea in Bengali
Zomato App Business Idea in Bengali

আর আপনার ব্যবসাটি ও বেশ ভালোভাবে এগিয়ে যাবে। এর সাথে সাথে আপনি আপনার ব্যবসাটি ডিজিটাল মাধ্যমে শুরু করতে পারবেন। যেমন আমাদের সরকার ডিজিটাল এর উপরে বেশি জোর দিয়ে থাকে। জোম্যাটোর সাথে যুক্ত হয়ে অনেক মানুষ অনেক উপার্জন করছেন।

জোমাটো অ্যাপ এর সাথে ব্যবসা করার পদ্ধতি:

জোমেটো এর সাথে দুই রকম ভাবে আপনি ব্যবসা করে উপার্জন করতে পারেন:-

#১) আপনার নিজস্ব রেস্টুরেন্ট অথবা হোটেলকে জোমাটো অ্যাপ এর সাথে রেজিস্টার করে ব্যবসা করতে পারেন।

#২) তাছাড়া জোমাটো অ্যাপ এর সাথে যুক্ত হয়ে ডেলিভারি সার্ভিস দেওয়ার ব্যাক্তি হিসেবে কাজ করতে পারেন।

#১) আপনার নিজস্ব রেস্টুরেন্ট অথবা হোটেলকে জোমাটো এর সাথে জুড়ে ব্যবসা করুন:

আজকাল বাইরে রেস্টুরেন্টে খাবার খেতে যাওয়ার তুলনায় ঘরে বসেই বিভিন্ন রকমের সুস্বাদু খাবার অর্ডার করতে বেশি পছন্দ করছেন মানুষ। আর সেই কারণেই ঘরে খাবার ডেলিভারি দেওয়ার মাধ্যমে আপনি আপনার ব্যবসা টিকে আরো বড় করতে পারেন।

চলুন জানা যাক কিভাবে জোম্যাটোর সাথে ব্যবসা করবেন:-

জোমেটো বিজনেস অ্যাপ ডাউনলোড করুন:-

অ্যাপ ডাউনলোড করার পর সেখানে লগইন করুন। লগইন করার পর আপনার হোটেল অথবা রেস্টুরেন্ট এখানে যুক্ত করুন। তারপরে আপনি রেস্টুরেন্টকে ফোনের মাধ্যমে হ্যান্ডেল করতে পারবেন।

তাছাড়া আপনি যদি চান তাহলে real-time নোটিফিকেশন এবং রিভিউ দেখতে পারেন। যদি আপনার কাছে কোন রকম আপডেট আসে তাহলে সেটা ফোনের মাধ্যমে আপডেট করতে পারেন।

চাইলে গ্রাহককে আকর্ষিত করার জন্য ডিসকাউন্ট দিতে পারেন যার ফলে আপনার অর্ডার আরো বেশি আসবে।

জোমেটো অ্যাপ এর সাথে রেস্টুরেন্ট রেজিস্টার করবেন কিভাবে:

প্রথমে আপনাকে বিজনেস অ্যাপ রেজিস্টার করতে হবে তারপর সমস্ত রকমের জোমাটো সম্পর্কিত তথ্য আপনাকে ভালোভাবে পড়তে হবে। তার সাথে সাথে বিভিন্ন রকমের তথ্য আপনি এখান থেকে পেয়ে যাবেন।

যেমন ধরুন ফোন নাম্বার, শহর এবং অন্যান্য তথ্য। এরপরে আপনার রেস্টুরেন্ট সম্পর্কিত অ্যাড এই অ্যাপ এর সাথে যুক্ত করতে হবে। এর পরে আপনার একটি ভেরিফিকেশন হবে তারপরে আপনি এটাকে ব্যবহার করতে পারবেন।

জোমেটো অ্যাপ এর সাথে কিভাবে কাজ করবেন:

#১) এজন্য আপনাকে সবার প্রথমে আপনার রেস্টুরেন্টকে এই অ্যাপের সঙ্গে যুক্ত করতে হবে যাতে লোক আপনার খাবার সম্পর্কে জানতে পারে।

#২) তারপর কোম্পানি থেকে আপনাকে কিছু তথ্য পাঠানো হবে সেই তথ্য গুলিকে মাথায় রেখে আপনাকে মেনু বানাতে হবে।

#৩) মেনু বানানোর সময় প্রত্যেক ছোট ছোট জিনিসের উপর ভালভাবে নজর রাখাটা জরুরি। যাতে আপনার খাবারের প্রতি আকর্ষিত হয় সবাই।

#৪) ভালোভাবে মেনু তৈরি করার পর লোকের পছন্দ হওয়ার সাথে সাথে অর্ডার পাবেন আপনি অনেক পরিমাণে।

#৫) এর ফলে আপনার ব্যবসার শুরু খুব ভালোভাবে হবে এবং ব্যবসাটি এগোতে থাকবে।

#৬) আপনি যদি মনে করেন তাহলে মেনুতে ডিসকাউন্ট অফার ও রাখতে পারেন। তার ফলে লোক আপনার কাছে প্রচুর অর্ডার দেবেন।

জোম্যাটোর সাথে কাজ করার জন্য যোগ্যতা:

আপনি যদি জোমাটো অ্যাপ এর সঙ্গে ব্যবসা (Zomato App Business) করতে চান তাহলে আপনার পাশে প্রাইভেট লিমিটেডের লাইসেন্স, এলএলপি থাকাটা অবশ্যই প্রয়োজন। তার সাথে সাথে আপনার বিজনেস টার্নওভার এবং FSSAI লাইসেন্স ও থাকাটা বাধ্যতামূলক।

জোমাটো কে কমিশন:

যখন আপনি রেজিস্টার করবেন এই অ্যাপের সাথে তখন কিন্তু ৭.৫ % কমিশন দিতে হবে। যার মধ্যে ডেলিভারি সার্ভিস এবং পেমেন্ট গেটওয় চার্জ ও শামিল থাকে।

তাছাড়া যে রেজিস্টার এর কাছে প্রতি সপ্তাহে পঞ্চাশের কম অর্ডার আসে তাহলে ৯৯ টাকার সাথে ২.৯৯ শতাংশ কমিশন দিতে হবে। আর যে রেস্টুরেন্ট পঞ্চাশের বেশি অর্ডার পাস করে ফেলে, তাহলে কোনরকম কমিশন দিতে হয়না। যার ফলে আপনার অর্ডার নেওয়ার ক্ষেত্রে সুবিধা হয়।

জোমাটো অ্যাপ এর ফায়দা:

যদি আপনি জোম্যাটোর সাথে ব্যবসা করেন, তাহলে আপনার ব্যবসাতে অনেক প্রফিট হবে। প্রতিমাসে কম করে ২০,০০০ থেকে ৩০,০০০  টাকা পর্যন্ত ইনকাম করতে পারবেন, যা আপনার জন্য অনেক লাভ দায়ক।

ঘর থেকে কি করা যায় জোম্যাটোর সাথে ব্যবসা:

এমন অনেক মানুষ আছেন যারা ঘর থেকেই খাবারের বিজনেস করে থাকেন। এখন প্রশ্ন হলো যে, ঘর থেকে কি জোমেটোর সাথে ব্যবসা করা যায়? তাহলে উত্তরটা হবে হ্যাঁ, আপনি ঘর থেকে জোমেটোর সাথে ব্যবসা করতে পারবেন।

যেমন ধরুন আপনি কোন বেকারি অথবা খাবারের দোকানের সাথে পার্টনারশিপ করতে পারেন, যা আপনার প্রোডাক্ট কে জোমাটো অ্যাপ এর সাথে সংযুক্ত করে।

যার পরে আপনার অর্ডার আসা শুরু হয়ে যায়। যখনই অর্ডার আসবে তখন ব্রেকার এর মালিক অথবা খাবারের দোকানের মালিক আপনার সাথে যোগাযোগ করবেন। যার পরে আপনি সেই খাবার জিনিসপত্রগুলি সেখানে পৌঁছে দিতে পারবেন আর যার অর্ডার হলে খাবারের অর্ডার গুলি জোমাটো বয় নিয়ে যায়।

#২) জোমাটো ডেলিভারি সার্ভিস দিয়ে উপার্জন:

যদি আপনার নিজস্ব কোন রেস্টুরেন্ট অথবা হোটেল না থাকে, তাহলে জোমেটো এর সাথে যুক্ত হয়ে ডেলিভারি সার্ভিস দিতে পারেন। এই কাজটি ঠিক এমনই, যেমন ধরুন যেমন কোন অনলাইন শপিং অ্যাপ অথবা ট্রাভেলিং অ্যাপ হয় এতে আপনি ডেলিভারি বয়ের কাজ করতে পারেন।

লোকের অর্ডার নিয়ে সেই লোকের ঘর পর্যন্ত আপনাকে জিনিসপত্র পৌঁছে দিতে হবে তার বিনিময়ে আপনি বেতন পাবেন এর থেকেও কিন্তু ভালোমতো উপার্জন করতে পারেন আপনি।

জোমাটো ডেলিভারি বয় এর যোগ্যতা:

জোমাটো ডেলিভারি বয় হওয়ার জন্য সবচেয়ে প্রয়োজনীয় যেটা সেটা হল আপনাকে কম করে উচ্চমাধ্যমিক পাশ হতে হবে। তবেই আপনি এই অ্যাপ এর সাথে যুক্ত হয়ে কাজ করতে পারবেন।

জোমাটো ডেলিভারি বয়ের কমিশন:

জোমাটো ডেলিভারি বয়ের রেস্টুরেন্ট থেকে ৫ থেকে ১০ % কমিশন দিয়ে থাকে। তার সাথে সাথে ডেলিভারি সার্ভিস দেওয়ার জন্য কাস্টমার টিপ স্বরূপ টাকা দিয়ে থাকেন। আর এই কারণে এদের উপার্জন টা বেশ ভালোই।

জোমাটো ডেলিভারি বয় এর উপার্জন:

জোমাটো ডেলিভারি বয় হয়ে আপনি প্রতি মাসে ৫ থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত উপার্জন করতে পারেন। আর যদি কোন উৎসবের সময় হয় তো  উপার্জন  দ্বিগুণ পরিমাণে বেড়ে যায়।

তার সাথে সাথে খাবারের অর্ডার টাও থাকে প্রচুর পরিমাণে। একসাথে উৎসবের সময় কমিশন আর টিপ বেশি পরিমাণে মেলে। আর এই কারণে উৎসবের সময়ে সবচেয়ে বেশি ফায়দা হয় ডেলিভারি বয়ের।

জোমেটো বিজনেস মার্কেটিং:

জোমেটোর সাথে যুক্ত হয়ে আপনি যদি ব্যবসা করেন তাহলে নিজের রেস্টুরেন্টের মার্কেটিং টাও ভালোভাবে করতে হবে। মার্কেটিং করার জন্য আপনি সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করতে পারেন। এর থেকে ভালো প্ল্যাটফর্ম আপনি মার্কেটিং এর জন্য আর পাবেন না।

জোমেটো ব্যবসার ঝুঁকি:

যদি আপনি জোমাটো অ্যাপ এর সাথে যুক্ত হয়ে ব্যবসা করেন। তাহলে কোন রকম ঝুঁকি নেই। এর সাথে সাথে আপনার ফায়দাটাই বেশি। কেননা এই অ্যাপের মাধ্যমে আপনার রেস্টুরেন্টের বিষয়ে অনেক মানুষ জানতে পারবেন। আর যদি আপনার বানানো খাবার সবার পছন্দ হয়, তো আরো বেশি প্রফিট হবে আপনার এই ব্যবসাতে।

আর আরও বেশি লোক যখন জোমাটো অ্যাপ এর মাধ্যমে এই খাবার অর্ডার করবেন, এর থেকে ডেলিভারি বয়ের ভালো মত একটা উপার্জন আসবে। এই জন্য এই ব্যবসাতে কোনো রকম ঝুঁকি নেই। নিঃসন্দেহে খুব সহজভাবে আপনি এই ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন।

Home Click Here
Zomato Website Click Here
Zomato App (Android) Click Here
Zomato App (iOS) Click Here

Leave a Comment