wbsportsandyouth.gov.in 2023 Youth Services and Sports Department of West Bengal

West Bengal Youth Services and Sports Department:পশ্চিমবঙ্গের মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত ধরে রাজ্যের বিভিন্ন প্রকল্প চালু হয়েছে, এবং যা পেয়েছে ব্যাপক সাফল্যও।

নারী, পুরুষ, শিশু, শিল্পীদের, কথা মাথায় রেখে এবং তাদের কল্যাণের উদ্দেশ্যে যে সকল প্রকল্প চালু হয়েছে, তারই হাত ধরে বর্তমানে এগিয়ে চলেছে বাংলা দ্রুতগতিতে।

এইসব বিভিন্ন উন্নয়নমূলক প্রকল্পের মধ্যে আরেকটি বিশেষ প্রকল্প টি রাজ্যের উন্নয়ন কর্মসূচি কে আরো বেশি উন্নতি করছে সেটি হল “খেলাশ্রী প্রকল্প (West Bengal Khelashree Prakalpa)।” উন্নয়নমূলক প্রকল্প টি রাজ্যের খেলাধুলার কাজকর্মকে উৎসাহিত করার জন্যই চালু করা হয়েছে।

Youth Services and Sports Department of West Bengal
Youth Services and Sports Department of West Bengal – wbsportsandyouth.gov.in

পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের যুব কল্যাণ ও ক্রীড়া দপ্তর এর অধীনে খেলার মাধ্যমে রাজ্যের ক্রীড়াবিদ দের সম্মান জ্ঞাপন করা এবং রাজ্যের খেলাধুলাকে অনুপ্রাণিত করার জন্য এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের যুব কল্যাণ এবং ক্রীড়া দপ্তর এর তরফ থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরণায়।

পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের খেলাধুলাকে বিশেষভাবে গুরুত্ব দিয়েছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেক্ষেত্রে খেলার বিষয়ে বিভিন্ন রকমের তৎপরতার মধ্যে দিয়ে খেলাটা কে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার প্রেরণা জুগিয়ে চলেছেন তিনি। এর ফলে যুব সমাজ বিশেষভাবে উৎসাহিত।

Youth Services and Sports Department এর কাজ: 

খেলাশ্রী প্রকল্পের উদ্দেশ্য:

এই ডিপার্টমেন্ট যুব কল্যাণ এবং ক্রীড়া উন্নয়ন এর দিকে খেয়াল রেখে ক্রীড়া জগৎ কে উন্নতির পথে এগিয়ে নিয়ে যাওয়াই রাজ্য সরকারের মূল উদ্দেশ্য, এবং সেই উদ্দেশ্য মাথায় রেখেই চালু করা হয়েছে খেলাশ্রী প্রকল্প (Khelashree Prakalpa) টি।

Youth Services and Sports Department of West Bengal - wbsportsandyouth.gov.in
Youth Services and Sports Department of West Bengal

মূলত স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসা, ক্লাব স্তরের খেলোয়াড়দের উৎসাহ প্রদানের মাধ্যমে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে তৈরি করা এবং বাংলার উন্নয়নে সহায়তা প্রকল্পের অন্যতম উদ্দেশ্য।

খেলাশ্রী প্রকল্পের সুবিধা গুলি:

খেলাশ্রী প্রকল্প এর মাধ্যমে যুবসমাজ বিশেষভাবে উপকারিত, যেমন:

#১) খেলাশ্রী প্রকল্পের (Khelashree Prakalpa) মাধ্যমে রাজ্যের স্কুল কলেজ এবং ক্লাবগুলোকে পাঁচটি করে ফুটবল প্রদান করা হবে।

#২) এই প্রকল্পের অধীনে রাজ্যের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, হাই মাদ্রাসা, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, কলকাতা লিগের প্রথম বিভাগ থেকে পঞ্চম বিভাগের সকল ক্লাব গুলি এবং ক্রীড়া প্রতিষ্ঠান গুলির বার্ষিক আর্থিক সহযোগিতা পাবে এবং পাঁচটি করে ফুটবল পাবে রাজ্য সরকারের তরফ থেকে।

#৩) এর পাশাপাশি খেলাশ্রী প্রকল্পের মাধ্যমে রাজ্যের উন্নয়ন মূলক কাজ বৃদ্ধি পাবে।

#৪) খেলাশ্রী প্রকল্পের অধীনে রাজ্যের বিভিন্ন ক্রীড়া প্রতিষ্ঠান ক্লাবগুলো রাজ্য সরকারের যে আর্থিক অনুদান লাভ করবে, তার ফলে ক্রীড়াক্ষেত্রে খেলোয়াড়েরা অনুপ্রেরণা পাবে ও তাদের পারদর্শিতা আরো অনেক বাড়বে।

#৫) খেলাশ্রী প্রকল্প টি পশ্চিমবঙ্গের ক্রীড়াজগৎ কে কেন্দ্র করে বাস্তবায়িত হয়েছে। আর্থিক সাহায্য প্রদান করা ছাড়াও এই প্রকল্পের মাধ্যমে বর্ষিয়ান এবং ক্রীড়াবিদদের সম্মান জানানো হয়ে থাকে। খেলাশ্রী প্রকল্প (West Bengal Khelashree Prakalpa) উঠতি খেলোয়াড়দের উৎসাহ বৃদ্ধি করতে অনুপ্রেরণা যোগাচ্ছে।

#৬) খেলাশ্রী প্রকল্পের আওতায় রাজ্য সরকারের উদ্যোগে আয়োজিত খেলার অনুষ্ঠানে কৃতি ক্রীড়াবিদদের হাতে স্মারক, ট্রফি ও উত্তরীয় তুলে দেওয়াও হয়ে থাকে, রাজ্য সরকারের তরফ থেকে।

খেলাশ্রী প্রকল্পের জন্য কারা আবেদন করতে পারবে:

পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের তরফ থেকে এই খেলাশ্রী প্রকল্পের জন্য আলাদাভাবে কোন আবেদন করার প্রয়োজন নেই। রাজ্য সরকারের তরফ থেকে রাজ্যের ক্রীড়া প্রতিষ্ঠানগুলিকে আর্থিক অনুদান এবং পাঁচটি করে ফুটবল প্রদান করা হবে।

সে ক্ষেত্রে বোঝাই যাচ্ছে, স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা, ক্লাব এবং সমস্ত রকম ক্রীড়া প্রতিষ্ঠানকে এই প্রকল্পের আওতায় আনা হয়েছে। যার ফলে সমস্ত রকমের ক্রীড়াবিদরা উৎসাহ পাবে ভালোভাবে।

খেলাশ্রী প্রকল্প, পেনশন এর সুবিধা:

এই প্রকল্পের মধ্যে আরেকটি খুশির খবর হলো, প্রাক্তন খেলোয়াড়দের পেনশন দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী। এই রাজ্যের ৬০ বছর বা তার বেশি বয়সের প্রায় ২০০০ ক্রীড়াবিদদের প্রদান করা হবে ১০০০ টাকা করে পেনশন, তাদের বাকি জীবন সুনিশ্চিত করার উদ্দেশ্যে।

তার পাশাপাশি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর পরিকল্পনা মতে এবং বিশেষজ্ঞ কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী প্রতি বছর ১০০ জন খেলোয়াড় কে বেছে নেওয়া হবে এবং তারা বাইরে খেলতে গেলে তাদের যাবতীয় খরচ বহন করবে রাজ্য সরকার।

তাছাড়া এই দপ্তরের তৎপরতায় নতুন করে তৈরি হয়েছে:

#১) ঝাড়গ্রামের নয়াগ্রাম স্টেডিয়াম

#২) ঝাড়গ্রামের আর্চারি একাডেমী

#৩) পশ্চিম মেদিনিপুর এর শালবনি স্টেডিয়াম

#৪) পূর্ব বর্ধমান মেমারি স্টেডিয়াম

#৫) পূর্ব বর্ধমানের ভাতার স্টেডিয়াম

#৬) দক্ষিণ ২৪ পরগনার বারাইপুর সুইমিংপুল

#৭) দক্ষিণ ২৪ পরগনা ক্যানিং এর সুইমিংপুল

#৮) বাঁকুড়ার খাতরায় স্পোর্টস একাডেমী এবং স্টেডিয়াম

#৯) উত্তর ২৪ পরগনার ব্যারাকপুরে স্পোর্টস কমপ্লেক্স ও স্টেডিয়াম

#১০) উত্তর ২৪ পরগনা নৈহাটি স্পোর্টস কমপ্লেক্স ও স্টেডিয়াম

#১১) হাওড়া উলুবেরিয়া স্টেডিয়াম

#১২) কলকাতার টালা পার্কে স্পোর্টস কমপ্লেক্স,

#১৩) উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুরে স্টেডিয়াম

#১৪) বাঁকুড়া ওন্দা স্টেডিয়াম

এছাড়াও ক্রীড়া পরিকাঠামোর ব্যাপক সংস্কার এবং আধুনিকীকরণের বাস্তবায়ন:

#১) কলকাতার মোহনবাগান, ইস্টবেঙ্গল, মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব মাঠে ফ্লাড লাইটের ব্যবস্থা এবং পরিকাঠামো সংস্কার।

#২) দার্জিলিংয়ের এবং স্টেডিয়ামের সংস্কার এবং কাঞ্চনজঙ্ঘা স্টেডিয়াম শিলিগুড়ি দার্জিলিং এ ফ্লাড লাইটিং এর ব্যবস্থা।

#৩) কোচবিহারে ইন্ডোর স্টেডিয়াম রাজবাটি স্টেডিয়াম কমপ্লেক্স এর মেরামতি সংস্কার।

#৪) দক্ষিণ দিনাজপুরের বালুরঘাট ইনডোর স্পোর্টস কমপ্লেক্স।

#৫) মুর্শিদাবাদের বহরমপুর স্টেডিয়াম কমপ্লেক্স এর কাঁটাতারের বেড়াসহ সীমানা প্রাচীর নির্মাণ।

#৬) মালদায় বৃন্দাবনী পার্কের D.S.A. স্টেডিয়াম এবং সত্য চৌধুরী ইন্ডোর স্টেডিয়াম এর উন্নয়ন।

#৭) বীরভুমের বোলপুর স্টেডিয়াম এবং সিউড়ি স্টেডিয়াম উন্নয়ন এবং সংস্কার।

#৮) নদীয়া রানাঘাট শান্তিপুর কৃষ্ণনগর কল্যাণী নবদ্দীপ স্টেডিয়ামের উন্নয়ন ও সংস্কার এবং বিভূতি ক্লাব খেলার মাঠ বীরনগর এ ক্লাব হাউজ থেকে গ্যালারির নির্মাণ কাজ।

#৯) দক্ষিণ ২৪ পরগনার ডায়মন্ড হারবার স্পোর্টস কমপ্লেক্স এবং কুলতলী এবং ডাক্তার বি আর আম্বেদকর কলেজ স্টেডিয়াম নির্মাণ ও সংস্কার।

#১০) পূর্ব মেদিনীপুরে রাখাল মেমোরিয়াল স্পোর্টস কমপ্লেক্স এবং অরবিন্দ স্টেডিয়াম এর সংস্কার।

#১১) পুরুলিয়া ইন্ডোর স্টেডিয়াম, স্পোর্টস হোস্টেল এবং কাশীপুরে কাশীপুর স্টেডিয়াম পুরুলিয়া।

#১২) হাওড়ার হাওড়া মিউনিসিপাল কর্পোরেশন স্টেডিয়ামের সংস্কার।

#১৩) হুগলিতে ইস্টার্ন গ্রাউন্ড চুঁচুড়া ও বারিজহাটিতে সুইমিং পুলের সংস্কার।

#১৪) পূর্ব বর্ধমান এ স্পন্দন স্পোর্টস গ্রাউন্ড কালনা অঘোরনাথ পার্ক স্টেডিয়াম এর সংস্কার ও উন্নতিকরণ।

#১৫) ঝাড় গ্রামে ঝাড় গ্রাম স্টেডিয়াম সংস্কার।

Youth Services and Sports Department এর ওয়েবসাইট:

এই ডিপার্টমেন্টের ওয়েবসাইটটি হল: www.wbsportsandyouth.gov.in এই ওয়েবসাইটের মধ্যে দিয়ে যুব কল্যাণ এবং ক্রীড়া দপ্তর এর বিভিন্ন রকমের কার্যকারিতা সম্পর্কে জানা যায়।

Youth Services and Sports Department এর ওয়েবসাইটের কাজ:

পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার ও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৎপরতায় রাজ্যের যুব কল্যাণ ও ক্রীড়া দপ্তর এর www.wbsportsandyouth.gov.in এই ওয়েবসাইটের মধ্যে দিয়ে খেলার জগতে যেসব উন্নতিসাধন হয়ে চলেছে, সে সম্পর্কে বিভিন্ন ধরনের ধারণা ও বিভিন্ন রকমের প্রকল্প প্রণয়নের কথা জানতে পারা যায়। আবেদন করার জন্য ফরম ডাউনলোড করা যায় এই ওয়েবসাইট থেকে।

তাছাড়া বিবেক চেতনা উৎসবের সূচনা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজ্যের ৩৪১ টি ব্লক ১১৮ টি পুরসভা ৬ টি কর্পোরেশন কলকাতা পৌরসংস্থার অধীন ১৪১ টি ওয়ার্ড এবং জিটিএ সহ রাজ্যের প্রতিটি জেলা সদরে এই উৎসব আয়োজিত হবে।

এই উৎসবে থাকবে পদযাত্রা, বিবেকানন্দের জীবন ও কর্ম বিষয়ক প্রদর্শনী, ছাত্র-যুবকদের চরিত্র গঠন বিষয়ক আলোচনা, বিবেকানন্দ বিষয়ক কুইজ, বিতর্ক, প্রদর্শনী ফুটবল ম্যাচ, বসে আঁকো, প্রবন্ধ রচনা, সহ অন্যান্য সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা ও অনুষ্ঠান।

খেলাশ্রী প্রকল্প নিয়ে বিশেষ কিছু কথা:

কোচিং ক্যাম্প গুলিকে খেলাশ্রী প্রকল্পের আওতায় আর্থিক অনুদান পেতে হলে যে শর্তগুলো মানতে হবে:

#১) কোচিং ক্যাম্পের কোচকে অবশ্যই স্বীকৃত রাজ্য ক্রীড়া সংস্থার অনুমোদনপ্রাপ্ত কোচ অথবা প্রাক্তন জাতীয় বা রাজ্য দলের খ্যাতনামা ক্রীড়াবিদ হতে হবে।

#২) কোচিং ক্যাম্পের শিক্ষার্থীদের নাম, বাবার নাম, ঠিকানা ও ফোন নাম্বার এর তালিকা জমা করতে হবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে।

#৩) কোচিং ক্যাম্পে প্রশিক্ষণ দেওয়ার উপযোগী ন্যূনতম নিজস্ব পরিকাঠামো থাকতে হবে।

#৪) কোচিং ক্যাম্প টি যাতে সারা বছর চালু থাকে, সে বিষয়ে বিশেষ নজর রাখতে হবে।

#৫) সরকার স্বীকৃত নির্ধারিত আবেদন পত্রে আবেদন করতে হবে, এই আবেদন পত্র এবং বিস্তারিত তথ্য এই দপ্তরের ওয়েবসাইট www.wbsportsandyouth.gov.in এখান থেকে ডাউনলোড করা যাবে এবং সরাসরি দপ্তর থেকেও পাওয়া যাবে।

খেলাশ্রী প্রকল্পের আবেদন পত্র কোথায় জমা দিতে হবে:

এই প্রকল্পের আবেদন পত্র জেলা যুব আধিকারিকের দপ্তরে অথবা যুব কল্যাণ ও ক্রীড়া দপ্তর এর এই ঠিকানায় জমা দিতে হবে –

যুব কল্যাণ ও ক্রীড়া দপ্তর, ব্লক-এ, সপ্তম তল (সাত তলা), নব মহাকরণ ভবন, ১, কিরণ শংকর রায় রোড, কলকাতা- ৭০০০০১, ফোন নাম্বার: (০৩৩)২২৬২-৪২৪২, ২২৬২-৭৪৬২  ইমেইল এড্রেস: [email protected], যুব কল্যাণ ও ক্রীড়া দপ্তর: পশ্চিমবঙ্গ সরকার।

Youth Services and Sports Department এর কিছু তথ্য:

এই ডিপার্টমেন্টের Minister-in-Charge:

শ্রী অরূপ বিশ্বাস

ঠিকানা: New Secretariat building, Block-A 6th floor, 1, KS রায় রোড, কলকাতা-700001

ফোন নাম্বার: 2262 4242, 2262 7462

ফ্যাক্স: 2262 7462

ইমেইল এড্রেস: [email protected]

এই ডিপার্টমেন্টে মিনিস্টার অফ স্টেট:

শ্রী মনোজ তিওয়ারি

ঠিকানা: New Secretariat building, Block-A 6th floor, 1, KS রায় রোড, কলকাতা-700001

এই ডিপার্টমেন্টে অ্যাডিশনাল চিফ সেক্রেটারি:

শ্রী সুব্রত বিশ্বাস, I.A.S.

ঠিকানা: New Secretariat building, Block-A 6th floor, 1, KS রায় রোড, কলকাতা-700001

ফোন নাম্বার: 2214 3345

ফ্যাক্স: 22 1457 76

ইমেইল এড্রেস: [email protected]

এই ডিপার্টমেন্টের Nodal অফিসার:

শ্রী মুকেশ কুমার সিং, WBCS (Exe), Joint Secretary

ঠিকানা: New Secretariat building, Block-A 6th floor, 1, KS রায় রোড, কলকাতা-700001

ফোন নাম্বার: 2262 5741

ইমেইল এড্রেস: [email protected]

Official Website Click here
Home Click here

Leave a Comment