2022 টমেটো সস তৈরির ব্যবসা শুরু করবেন কিভাবে? | 2022 Tomato Sauce Making Business Idea in Bengali

Tomato Sauce Making Business Idea 2022 (টমেটো সস তৈরির ব্যবসা 2022): How to Start Tomato Sauce Making Business in India? | Tomato Sauce Making Business Idea in Bengali | Tomato Sauce Making Business Plan in Bengali. জানুন টমেটো সস তৈরির ব্যবসা শুরু করার সম্পূর্ণ পদ্ধতি এবং লাভ ও ইনভেস্টমেন্ট

আমাদের ভারতবর্ষে বিভিন্ন রকমের সংস্কৃতির মানুষ বসবাস করেন, আর সেই কারণে বিভিন্ন রকমের খাবারের প্রচলন আছে। কিন্তু এখানে চাইনিজ রেসিপি অথবা চাইনিজ ডিস প্রচুর পরিমাণে চলে। বলা যেতে পারে সকলে ভীষণ পছন্দও করেন। তো সে ক্ষেত্রে টমেটোর সস এসব খাবারের জন্য অতি প্রয়োজনীয় একটি খাবার বলতে পারেন। শুধু চাইনিজ খাবার নয়, বিভিন্ন রকমের স্নাক্স, চটপটা খাবার এর ক্ষেত্রেও টমেটোর সস ব্যবহার করা হয়।

বাচ্চা থেকে বুড়ো সকলেই টমেটোর সস দিয়ে নুডলস, পাস্তা, ফ্রাই রাইস, ইত্যাদি খেতে ভীষণ পছন্দ করেন। আর তাইতো ভারতে এমন অনেক কোম্পানি আছে যারা টমেটো সস তৈরি করে বাজারে বিক্রি করে থাকে।

Tomato Sauce Making Business Idea - (টমেটো সস তৈরির ব্যবসা
Tomato Sauce Making Business Idea – (টমেটো সস তৈরির ব্যবসা

এর মাধ্যমে অধিক পরিমাণে উপার্জন সম্ভব। তেমনি আপনিও কিন্তু ছোট স্তরে টমেটোর সসের ব্যবসা শুরু করতে পারেন। এর চাহিদা কখনই কমবে না। কিভাবে শুরু করবেন এই টমেটো সসের ব্যবসা চলুন তাহলে জানা যাক:

টমেটো সস এর ব্যবসা শুরু করতে গেলে টোটাল ইনভেস্টমেন্ট:

আপনি যদি মনে করেন একটু বড় আকারে এই ব্যবসাটি শুরু করবেন তাহলে ৭ থেকে ৮ লাখ টাকা পর্যন্ত আপনার খরচ হতে পারে।

টমেটো সস তৈরিতে যে কাঁচামাল গুলি লাগবে এবং তার দাম:

১) এই ব্যবসা শুরু করতে গেলে সবচেয়ে জরুরি কাঁচামাল হিসেবে টমেটো প্রয়োজন। যা কিনা আপনি কোন চাষির কাছ থেকে অথবা হোলসেল মার্কেট থেকে কিনে নিতে পারেন।

২) মিষ্টি পদার্থ যা সস তৈরিতে আপনি ব্যবহার করে থাকবেন, যার দাম পড়বে ১২০০ টাকা প্রতি কিলোগ্রাম, সিরকা ৬০ টাকা প্রতি ৭০০ গ্রাম, লবণ ১৮ টাকা প্রতি কিলোগ্রাম এবং টমেটোর সসের ফ্লেভার ২০০০ টাকা প্রতি লিটার। বাজার থেকে আপনি পেয়ে যাবেন। তাছাড়া পিয়াজ, মসলা যেমন ধরুন গোলমরিচ, সরষে, আদা, ইত্যাদির প্রয়োজনীয়তা পড়বে।

টমেটো সস ব্যবসার ক্ষেত্রে মেশিন এবং তার দাম:

টমেটোর সস বানানোর জন্য বিশেষ এক ধরনের মেশিন আপনাকে কিনতে হতে পারে। এ মেশিনটি সম্পূর্ণ অটোমেটিক এবং প্রায় ৩৫ হাজার টাকার মধ্যে আপনি মেশিনটি পেয়ে যেতে পারেন। এই মেশিন কেনার জন্য আপনি অনলাইনে দেখতে পারেন।

কোথা থেকে কিনবেন মেশিন:

অনলাইনে এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আপনি কিনতে পারেন।

Tomato Paste Making MachineClick here
Tomato Sauce Making MachinesClick here
All Tomato Sauce Making MachinesClick here

এই ব্যবসার জন্য জায়গা নির্বাচন:

এই ব্যবসাটি করার জন্য আপনাকে বিশেষভাবে খেয়াল রাখতে হবে সেই জায়গার উপর, যে জায়গাটিতে আপনি ব্যবসাটি শুরু করতে চান, কেননা অনেকটা খোলামেলা জায়গার প্রয়োজন পড়তে পারে আপনার।

যদি আপনি জায়গা ভাড়া নিয়ে এই ব্যবসাটি শুরু করেন আর সেই জায়গার ভাড়া সেই জায়গা অনুসারে বাড়তে থাকে, তাহলে সেই জায়গার ভাড়া কমপক্ষে ১০ হাজার টাকা থেকে শুরু হতে পারে, আর এই খরচটাও কিন্তু আপনার এই ব্যবসার ইনভেস্টমেন্ট এর মধ্যে পড়ে যাবে।

চলুন জানা যাক টমেটো সস বানাবেন কিভাবে:

১) প্রতি ২০০ গ্রাম সস বানানোর জন্য কাপের চার ভাগের এক ভাগ অলিভ অয়েল, এক চামচ গোল মরিচ গুঁড়ো আর এর সাথে অর্ধেক কাপ মতো কাটা পেঁয়াজ মিশিয়ে নিন, তারপর দুই চামচ রসুন এবং ভিনিগার এগুলি মেশানোর প্রয়োজন হবে।

২) প্রথমত আপনাকে বাজার থেকে খুব কম দামে টমেটো নিয়ে আসতে হবে, তারপর সমস্ত টমেটোকে ভালোভাবে বাছাই করে তারপরে পরিষ্কার জলে ধুয়ে নিয়ে ফুড প্রসেসর এর সাহায্যে ছোট ছোট আকারে কেটে নিতে হবে।

৩) এরপর পিয়াজ ভালো করে ছোট ছোট আকারে কেটে তেলে হালকা করে ভেজে নিতে হবে, এই পিয়াজ ভাজার সময় এতে গোলমরিচ, সরষে এবং অন্যান্য মসলা দিয়ে দিতে হবে।

৪) যে-পাত্রে পিয়াজ ভাজছেন সেই একই পাত্রে আপনার কেটে রাখা টমেটোর কুঁচিগুলি দিয়ে দিতে হবে। এরপরে কিছু সময় হালকা আঁচে এগুলিকে ঢাকা দিয়ে রেখে দিন।

৫) তবে এই সময় ভিনিগার, স্বাদমতো লবণ এবং ফ্লেভার মেশানো যাবে।

৬) এরপরে এগুলিকে ভালোভাবে তৈরি করার জন্য ২০ মিনিট পর্যন্ত কম আঁচে রেখে দিয়ে ২০ মিনিট পর এগুলো ভালো করে ব্লেন্ড করে প্যাকিং এর জন্যে একেবারে রেডি করতে হবে। ব্লেন্ড করার পর ছাকনিতে ছেঁকে নিতে ভুলবেন না।

টমেটো সসের প্যাকিং কিভাবে করবেন:

সবকিছু দিয়ে step-by-step সস তো  বানিয়ে নিলেন, এবার টমেটোর সস প্যাকিং করবেন কিভাবে! আপনি ব্যবসার জন্য প্লাস্টিক অথবা কাচের বোতল ব্যবহার করতে পারেন।

আপনি যদি চান যে আপনার ব্যবসার খুব তাড়াতাড়ি উন্নতি হোক এবং ব্যবসাটি পরিচিতি পাক, তাহলে বোতলের গায়ে আপনার ব্যবসার নাম ছাপিয়ে নিতে পারেন স্টিকার হিসাবে। তাছাড়া প্যাকিং করার সময় টমেটো সস এর ওজন অথবা মাত্রার দিকটা খেয়াল রাখতে হবে ভালো ভাবে।

টমেটো সসের ব্যবসার মার্কেটিং:

প্রতিটি ব্যবসার মতো এর মার্কেটিং করাটা প্রয়োজন, তবে খুবই সহজ। আপনি আপনার দ্বারা বানানো সস বিভিন্ন হোটেল, রেস্তোরা, রেস্টুরেন্ট, অথবা মুদিখানার দোকান ইত্যাদি জায়গাতে নিয়ে গিয়ে স্টোর করতে পারেন।

আপনি যদি চান তাহলে বিভিন্ন বাজারে হোলসেলার এর মত এই সস বিক্রি করতে পারেন। তাতে আপনার ব্যবসাটি আরো অধিক লাভজনক হবে। তবে অবশ্যই আপনার খরচ এবং লাভের দিকটা খেয়াল রাখবেন।

টমেটো সসের ব্যবসায় লাভ:

আপনি যদি এই ব্যবসাটি মনোযোগ সহকারে এবং নিয়মিত ভাবে করতে পারেন তাহলে এক বছরে আপনার ইনভেস্টমেন্ট পড়তে পারে ২৪.২২ লাখ টাকা পর্যন্ত। যদি ভালোভাবে ব্যবসাটি করতে চান, এবং বিক্রি করার মাধ্যমে আপনার বছরে সেটা ২৮.৮০ লাখ টাকা পর্যন্ত হতে পারে।

তাহলে এই ব্যবসাতে বছরে আপনার লাভ আসছে প্রায় ৪.৫ লাখ টাকা অর্থাৎ আপনি প্রতিমাসে কম করে ৪০ হাজার টাকা উপার্জন করতে পারছেন। আপনি যদি এই ব্যবসাটি খুব ভালোভাবে চালিয়ে যেতে পারেন তাহলে দু’বছরের ভিতর আপনার এই ব্যবসাতে যত টাকা ইনভেস্ট লেগেছে তার থেকেও বেশি আপনি তুলে নিতে পারবেন।

টমেটো সস ব্যবসার জন্য লাইসেন্স কোথা থেকে করবেন:

টমেটোর সস যদিও একটি খাদ্যবস্তু, সে ক্ষেত্রে অন্যান্য ব্যবসার মতো এর লাইসেন্স করাতে হবে আপনার। আপনি এই ব্যবসার রেজিস্ট্রেশন এম এস এম ই মন্ত্রণালয় থেকে করিয়ে নিতে পারেন।

এই ব্যবসার জন্য সরকার থেকে লোন:

১) এই ব্যবসার জন্য সরকার থেকে এ ব্যবসার কাঁচামাল, বিভিন্ন সামগ্রী, শ্রমিকের বেতন, প্যাকিং এর খরচ ইত্যাদি জন্য প্রায় ছয় লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ দিতে পারে।

২) সরকার এরকম ব্যবসায়ীকে পাঁচ লাখ টাকার ঋণ অথবা লোন দেবে। ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল এর মধ্যে দিয়ে ৪.৩৬ লাখ টাকা আপনি পেতে পারেন কিন্তু আপনার পুঁজি কম করে দু লাখ টাকা হতে হবে।

৩) সরকার এই স্কিম এর উপর ব্যবসার জন্য প্রায় ৭৫ শতাংশ পর্যন্ত ফান্ডিং করে দেবে। তাছাড়া সরকার সব সময় ছোট এবং মাঝারি ব্যবসা বাড়ানোর জন্য বিভিন্ন রকমের স্কিম চালু করে ব্যবসায়ীদের সহায়তা করে থাকে।

সরকারি লোন নেওয়ার জন্য কিভাবে আবেদন করবেন:

১) ভারত সরকার দ্বারা এই লোন অথবা প্রধানমন্ত্রী মুদ্রা যোজনা থেকে আপনি পেতে পারেন। এই লোন পাওয়ার জন্য আপনি যেকোনো সরকারের অন্তর্গত যেকোনো ব্যাংকে আবেদন পত্র জমা দিতে পারেন।

২) এই লোন পাওয়ার জন্য আবেদনকারীর এপ্লিকেশন ফর্মে আবেদনকারীর নাম, ঠিকানা, ব্যবসার ঠিকানা, শিক্ষাগত যোগ্যতা, বর্তমান আয়, ঋণের পরিমাণ, ইত্যাদি তথ্য ভরতে হবে। আবেদনকারীর কাছে যে ডকুমেন্টগুলি থাকতে হবে সেগুলি হল:-  আধার কার্ড, প্যান কার্ড, বাসস্থানের ঠিকানা পত্র, ব্যাঙ্কের ডিটেইলস ইত্যাদি।

টমেটোর সস প্রত্যেক ঘরে একটি প্রয়োজনীয় খাদ্য বস্তু। যা ছাড়া মুখরোচক কোন কিছুই ভালো লাগেনা। তেলেভাজা থেকে চাইনিজ খাবার সবকিছুতেই টমেটো সসে থাকে আলাদা মজা। তাই সে ক্ষেত্রে বর্তমান এবং ভবিষ্যতের চাহিদার উপর ভিত্তি করে এই ব্যবসাটি আপনি অনায়াসেই করতে পারেন এবং তা থেকে প্রতিমাসে ভালোমতো উপার্জন করতে পারবেন।

Leave a Comment