National PRASAD Scheme 2021: Processes, Benefits & Vision

পর্যটন মন্ত্রণালয়ের অধীনে, ভারত সরকার ২০১৪-২০১৫ সালে প্রসাদ প্রকল্প চালু করে। প্রসাদ স্কিমের সম্পূর্ণ ফর্ম হল তীর্থযাত্রা পুনর্জাগরণ এবং আধ্যাত্মিকতা বৃদ্ধির দিকে পরিচালনা করা।

প্রসাদ প্রকল্প, পর্যটন মন্ত্রণালয় কতৃক গৃহীত একটি পূর্ণ ধর্মীয় পর্যটন অভিজ্ঞতা প্রদানের লক্ষ্যে তীর্থস্থানগুলির বিকাশ ও উন্নয়নকে অগ্রাধিকার, পরিকল্পিত এবং টেকসই উপায়ে প্রসাদ প্রকল্প চালু করেছে।

Prasad Scheme - Ministry Of Tourism
Prasad Scheme in Bangla – Ministry Of Tourism

প্রকল্পের হাইলাইটগুলি হচ্ছে, প্রকল্পের নাম প্রসাদ প্রকল্প। পূর্ণ-ফর্ম তীর্থযাত্রা পুনর্জাগরণ এবং আধ্যাত্মিকতা বৃদ্ধি। ২০১৫ সালে প্রকল্পটি চালু করা হয়।

সরকারী পর্যটন মন্ত্রণালয়ের অধীনে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের কাজ চলছে। প্রসাদ প্রকল্পের মতো নাগরিক ও জাতির সামাজিক ও অর্থনৈতিক কল্যাণকে লক্ষ্য করে ভারত সরকার কর্তৃক চালু করা হয়েছে। অন্যান্য বিভিন্ন পরিকল্পনাও রয়েছে।

পর্যটন মন্ত্রণালয় একটি পূর্ণ ধর্মীয় পর্যটন অভিজ্ঞতা প্রদানের লক্ষ্যে তীর্থস্থানগুলির সামগ্রিক বিকাশের লক্ষ্যকে অগ্রাধিকার দিয়ে পরিকল্পিত এবং টেকসই উপায়ে প্রসাদ প্রকল্প চালু করেছে।

তীর্থযাত্রা পুনর্জীবন ও আধ্যাত্মিকতা বৃদ্ধিকরণ ড্রাইভ-প্রসাদের কেন্দ্রবিন্দু এইচডিআরআই প্রকল্পের আওতায় চিহ্নিত তীর্থস্থানগুলির বিকাশ ও সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ বাস্তবায়নের উপর জোর দিয়েছে।

এর আগে, এই তীর্থযাত্রা ও ঐতিহ্য গন্তব্যগুলির উন্নয়নের জন্য এই প্রকল্পটি ১২ টি শহর চিহ্নিত করেছিল। এই শহরগুলি নির্বাচনের মানদণ্ডটি তাদের সমৃদ্ধ ঐতিহ্য এবং সাংস্কৃতিক ইতিহাসকে কেন্দ্র করে নেওয়া হয়েছিল।

প্রসাদ প্রকল্প সম্পর্কে বিস্তারিত:-

প্রথমে প্রকল্পের আওতায় চিহ্নিত ১২ টি শহর নীচে উল্লিখিত হয়েছে:

প্রসাদ প্রকলের আওতায় নির্দিষ্ট কিছু শহর রয়েছে, যেখানে অবকাঠামোগত এবং সৌন্দর্যবর্ধনের কাজ শুরু করা হয়েছে। মোট ১২ টি শহরে কাজগুলো করা হচ্ছে। শহরগুলো হচ্ছে,

কামাখ্যা (আসাম),

অমরাবতী (অন্ধ্র প্রদেশ),

দ্বারাকা (গুজরাট),

গয়া (বিহার),

অমৃতসর (পাঞ্জাব),

আজমির (রাজস্থান)

পুরী (ওড়িশা),

কেদারনাথ (উত্তরাখণ্ড),

কাঞ্চিপুরম (তামিলনাড়ু),

ভেলানকানি (তামিলনাড়ু),

বারাণসী (উত্তর প্রদেশ),

মথুরা (উত্তর প্রদেশ)।

প্রসাদ প্রকল্পের উদ্দেশ্য:

একটি টেকসই উপায়ে পর্যটন আকর্ষণ বৃদ্ধি করা, যাতে তীর্থযাত্রা আরামদায়ক হয়। তীর্থকে কেন্দ্র করে বেশ কিছু সংস্থা গড়ে ওঠে যেমন হোটেল, রেস্টুরেন্ট, মার্কেট, সেবা প্রতিষ্ঠান।

এখানে অনেক মানুষের কর্মসংস্থান হয়, যা দেশের অর্থনীতিতে ভূমিকা রাখে। এছাড়া তীর্থে অনেক বিদেশী নাগরিক আসে, তাদের জন্য আরামদায়ক এবং তীর্থস্থানে সৌন্দর্যের মাত্রা বৃদ্ধি করতে পারলে সেখানে পর্যটক বেশী আসবে।

Prasad Scheme Bangla- Ministry Of Tourism
Prasad Scheme Bangla- Ministry Of Tourism

ফলে দেশের পর্যটন খাতে আয় বৃদ্ধি পাবে।তীর্থযাত্রা পর্যটনকে কাজে লাগিয়ে সরাসরি কর্মসংস্থান ও অর্থনৈতিক বিকাশকে প্রভাবিত করা সম্ভব।

স্থানীয় শিল্প ও সংস্কৃতি, হস্তশিল্প এবং রান্নাঘর ইত্যাদির মান উন্নত করলে সেখানে আরও অনেক মানুষ তীর্থে যাবে, তারা সেখানে ধর্মীয় কাজের জন্য অবস্থান করবে এবং নিজেদের ইচ্ছামত সময় সেখানে অবস্থান করবে।

এজন্য সেখানকার সেবা প্রতিষ্ঠান এবং অবকাঠামোগত উন্নয়ন করা আবশ্যক যাতে সেখানে সময় নিয়ে তীর্থযাত্রী এবং পর্যটকরা অবস্থান করতে পারে।

ধর্মীয় গন্তব্যগুলিতে বিশ্বমানের অবকাঠামোগত উন্নয়ন করা উচিত যাতে করে সেখানে সবাই মন দিয়ে ধর্মীয় কাজ করতে পারেন, এবং দেশের ধর্মীয় ঐতিহ্য এসব অবকাঠামোর মাঝে ফুটে ওঠে।

যা একটি দেশের ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে আরও সমৃদ্ধ করে তোলে।

প্রসাদ প্রকল্পের অবকাঠামোগত উন্নয়ন

প্রসাদ প্রকল্পের আওতায় অবকাঠামোগত উন্নয়নের মধ্যে রয়েছে নবায়নযোগ্য জ্বালানী উৎস , পরিবহনের পরিবেশ বান্ধব পদ্ধতি, প্রাথমিক চিকিৎসা কেন্দ্র, পানীয় জলের ব্যবস্থা, শৌচাগার, পার্কিং, ক্রাফ্ট বাজার / স্যুভেনির শপ / হাট / ক্যাফেটেরিয়া, রেইন শেল্টার, টেলিকম সুবিধা, ইন্টারনেট সংযোগ ইত্যাদি।

PRASAD Scheme in Bangla
PRASAD Scheme in Bangla

এছাড়াও রয়েছে রাস্তা, রেল ও জল পরিবহন, যোগাযোগ, যেমন তথ্য ও ব্যাখ্যা কেন্দ্র, মানি এক্সচেঞ্জ এবং এটিএমের মতো মৌলিক পর্যটন সুবিধাগুলির বিকাশ।

তীর্থযাত্রীদের প্রাত্যহিক প্রয়োজন এবং সুবিধার জন্যই এই সেবাগুলোর সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানগুলো গড়ে উঠেছে। এই খাতে বরাদ্দ বৃদ্ধি করা হলে আরও অনেক উন্নতমানের প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠবে, সেই সাথে আরও অনেক মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে।

প্রসাদ প্রকল্পের অর্থায়ন

প্রসাদ প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য পর্যটন মন্ত্রণালয়ে একটি মিশন অধিদপ্তর স্থাপন করা হয়েছে। মন্ত্রনালয় চিহ্নিত গন্তব্যগুলিতে পর্যটন প্রচারের জন্য রাজ্য সরকারগুলিকে কেন্দ্রীয় আর্থিক সহায়তা প্রদান করে।

জনগণের থেকে তহবিল সংগ্রহ ছাড়াও , কেন্দ্রীয় সরকার ১০০% তহবিল সরবরাহ করে এবং প্রকল্পের স্থায়িত্ব ও উন্নতির জন্য এই প্রকল্পটি কর্পোরেট সামাজিক দায়বদ্ধতা (সিএসআর) এবং পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপ (পিপিপি ) অংশগ্রহন নিশ্চিত করতে চায় যাতে প্রকল্পের কাজে আরও অগ্রগতি হয়।

প্রসাদ প্রকল্পের বাজেটের জন্য ১৫.৬০ কোটি টাকার সংশোধিত প্রাক্কলন ২০১৪ – ২০১৫ সালে করা হয়েছিল।

বিহারের গয়া বিষ্ণুপাদ মন্দিরে প্রাথমিক সুবিধার বিকাশের জন্য এই প্রকল্পের আওতায় ৮৫.৮৪ লক্ষ টাকার প্রথম কিস্তি সুবিধা প্রদান করা হয়।

মোট ১২ টি শহরের জন্য এই প্রকল্পের আওতায় কাজ করা হচ্ছে। যাতে এই ১২ টি শহরের সৌন্দর্য এবং অবকাঠামোগত উন্নয়নের ফলে শহরগুলি পর্যটন কেন্দ্র হিসেবেও জনপ্রিয়তা লাভ করে।

Prasad Scheme Guidelines Download – প্রসাদ প্রকল্পের নির্দেশিকা ডাউনলোড করুন

[button color=”red” size=”medium” link=”https://media.banglabhumi.in/wp-content/uploads/2021/05/PRASHAD_Scheme_Guidelines.pdf” icon=”fa-download” target=”false”]Download PDF[/button]

শেষ কথা

প্রসাদ প্রকল্প দেশের প্রতিবছর যে বিপুল সংখ্যক ধর্মপ্রাণ মানুষ এবং পর্যটকরা দেশের বিভিন্ন তীর্থস্থানে যাত্রা করেন, সেসব স্থানে বিভিন্ন অবকাঠামোগত উন্নয়ন, সেবা প্রতিষ্ঠান, অন্যান্য প্রতিষ্ঠান নির্মানকে উৎসাহিত করে এবং সেই লক্ষ্যে অর্থ সুবিধা এবং অন্যান্য সুবিধা প্রদান করে।

যাতে দেশের ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির উন্নয়নের পাশাপাশি তা দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং কর্মসংস্থান বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।

বিপুল সংখ্যক মানুষ এসব পর্যটন এলাকায় চাকুরি বা ব্যবসায় করে থাকেন।

এখানে বিভিন্ন কোম্পানি গড়ে উঠছে নিয়মিত যা তীর্থযাত্রী ও পর্যটকদের প্রাত্যহিক সকল প্রয়োজন এবং তাদের আরাম-আয়েশ নিশ্চিত করছে, সেই সাথে নিজেদেরকে অর্থনৈতিকভাবে সাবলম্বী করতে পারছে।

প্রসাদ স্কিমের আরও একটি উদ্দেশ্য হচ্ছে তীর্থস্থানগুলিতে অবকাঠামোগত উন্নয়ন করে সেখানকার সৌন্দর্য এবং পর্যটকদের কাছে এগুলোর আকর্ষণীয়তা বৃদ্ধি করা। আশা করি প্রসাদ স্কিম সম্পর্কে ধারণা দিতে সক্ষম হয়েছি।

প্রসাদ প্রকল্পের বিস্তারিত তথ্যের জন্য অফিসিয়াল ওয়েবসাইট (http://tourism.gov.in/) চেক করতে পারবেন।

সুপ্রিয় পাঠক, আমাদের লেখার উদ্দেশ্য থাকে ভারত সরকারের উন্নয়ন প্রকল্প এবং তার অগ্রগতি সম্পর্কে আপনাদের জানানো, যাতে সেগুলো সম্পর্কে আপনারা অবগত হতে পারেন এবং সুবিধাসমূহ উপভোগ করতে পারেন।

কেন্দ্র সরকারের সমস্ত যোজনা Click Here
পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত প্রকল্প Click Here
বাংলাভুমি হোম Click Here

Leave a Comment