PM Matsya Sampada Yojana 2022: Eligibility, Application & Benefits

প্রধানমন্ত্রী মৎস সম্পদা যোজনা (PMMSY) ২০ ই সেপ্টেম্বর ২০২০ সালে চালু করেছিলেন। এই প্রকল্পের লক্ষ্য মৎস্য সেক্টরের টেকসই বিকাশের মধ্য দিয়ে পাঁচ বছরের মেয়াদে (২০২০-২০২৫) নীল বিপ্লব ঘটানো।

এটি মোট ছয় হাজার টাকা ব্যয়ে মৎস্য খাতকে উন্নত করতে একটি পরিকল্পনা করা হয়েছে। 20050 কোটি টাকা এই সেক্টরের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে।

যার মধ্যে 12340 কোটি টাকা সামুদ্রিক, অভ্যন্তরীণ ফিশারি এবং অ্যাকোয়াকালচারে উপকারভিত্তিক কর্মকাণ্ডের জন্য লাগু করা হবে।

Pradhan Mantri Matsya Sampada Yojana
Pradhan Mantri Matsya Sampada Yojana in Bangla

এবং প্রায় ৭৭১০ কোটি টাকা প্রস্তাব করা হয়েছে এই সেক্টরের পরিকাঠামো তৈরি করার জন্য। এই প্রকল্পের পিছনে সরকারের বড় লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে।

মৎস্যখাতে জড়িত মৎসচাষীদের প্রায় ৫০ লাখ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ লাভজনক কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করার কথা ভাবা হয়েছে এবং কৃষকদের সহায়তা করা হবে।

দেশের মৎস্য সেক্টরের মনোনিবেশ এবং টেকসই উন্নয়নের জন্য এটি একটি ফ্ল্যাগশিপ স্কিম যা PMMSY আত্মনির্ভর ভারত অভিযানের অংশ হিসাবে বিবেচিত হয়েছে।

পুরো প্রকল্পের ব্যয় কেন্দ্রীয় সরকার বহন করবে যার অর্থের 100% কেন্দ্রীয়ভাবে অর্থায়িত হবে।এই প্রতিবেদনে আলোচনা করা হয়েছে এই প্রকল্পের আওতায় সুযোগ সুবিধা ও আবেদন করার জন্য কী কী দরকার এই সমস্ত তথ্য নিয়ে।

নিম্নে বিস্তারিত আলোচনা করা হল:

১. এই প্রকল্পের উদ্দেশ্য ও বিধি:

•এই স্কিমের উদ্দেশ্য খুচরো খাত গুলির বর্তমান কাঠামো উন্নত করা।

•এটি জিডিপি, কর্মসংস্থান এবং উদ্যোগ তৈরি করবে।

বাজার এবং বিপণন অবকাঠামো উন্নয়ন ঘটানো।

•এই প্রকল্পটি উদ্যানপালনের আইটেমগুলির বিশাল অপচয়কে হ্রাস করতে সহায়তা করে।

•এটি পালকদের আরও ভাল আয় করতে এবং তাদের বেতন দ্বিগুণ করতে সহায়তা করবে।

•জমি ও জলের উন্নয়ন, উচ্চতা, সম্প্রসারণ এবং উপকারী জিনিস ব্যবহারের মাধ্যমে মাছের সৃষ্টি ও দক্ষতার উন্নতি সাধন করা এই প্রকল্পের উদ্দেশ্য

•মৎস সেক্টরের পুনর্গঠন ও আধুনিকায়ন করা।

•ফিশারিদের সামাজিক, শারীরিক ও আর্থিক সুবিধা প্রদান করা এই স্কিমের আওতায় আসে।

•সক্রিয় মৎস্য ব্যবস্থাপনা এবং প্রশাসনিক কাঠামো গঠন করাও এই প্রকল্পের আওতায় আসে।

•একটি শক্তিশালী ফিশার ম্যানেজমেন্ট গঠন করা ও এই সেক্টরের যে যে অংশ গুলো দুর্বল সেই অংশের পুনরায় কার্যক্রম পরিচালনা করা।

•সামগ্রিক কৃষি গ্রস ভ্যালু অ্যাডেড (জিভিএ) এবং রফতানিতে মৎস্য সেক্টরের অবদান বাড়ানো।

•একটি টেকসই, দায়বদ্ধ, অন্তর্ভুক্তিমূলক ও ন্যায়সঙ্গত পদ্ধতিতে মৎস্য সেক্টরের সীমানা বৃদ্ধি করন এই প্রকল্পের উদ্দেশ্য।

•কিশনগঞ্জে জলজ রোগ রেফারাল ল্যাবরেটরি প্রতিষ্ঠা করা হবে এই প্রকল্পে।

•লবণাক্ত অঞ্চলে, কোল্ড ওয়াটার ফিশারিগুলির উন্নয়ন এবং জলজ চাষের সম্প্রসারণের দিকে বিশেষ দৃষ্টি দেওয়া হবে।

•২০২৪ সালের মধ্যে ফিশার, মাছ চাষীদের এবং ফিশার শ্রমিকদের আয়ের পরিমাণ দ্বিগুণ করার পরিকল্পনা করা হয়েছে।

•উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও হিমালয় রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিতে মৎস্য চাষের বিকাশ করা।

PM Matsya Sampada Yojana in Bangla
PM Matsya Sampada Yojana in Bangla


২. এই প্রকল্পের সুযোগ সুবিধা সম্পর্কে জানুন:

•মৎস্য উৎপাদনের বিকাশের পাশাপাশি, ফসল কাটার পরবর্তী ব্যবস্থাপনার গুণগতমানের উপর একটি বিশেষ জোর দেয় এই প্রকল্প।

•জলের গুণমান বৃদ্ধি, উৎপাদনশীল ব্যবহার বিভিন্ন প্রযুক্তি যেমন রি-সার্কুলেটরি অ্যাকোয়াচারাল্ট সিস্টেম, বায়োফ্লোক, অ্যাকোয়াপোনিকস, ইত্যাদি ব্যবহার করে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি করবে।

•এই প্রকল্পটি ২০২৪-২৫ সালের মধ্যে ১৩৭.৫৮ লক্ষ মেট্রিক টন থেকে 220 লাখ মেট্রিক টন মাছের উৎপাদন বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে।

•এই প্রকল্পটি মাছের উৎপাদনে প্রায় 9% বার্ষিক বৃদ্ধি বজায় রাখবে।

•এই প্রকল্পটি বর্তমান জাতীয় গড় 3 টন থেকে হেক্টর প্রতি প্রায় 5 টন জলজ চাষে উৎপাদনশীলতা উন্নত করবে।

•এই প্রকল্পটি ফসল কাটার পরের ক্ষতির পরিমাণ 20-25% থেকে প্রায় 10% এ হ্রাস করতে সহায়তা করবে।

•প্রাইভেট ফার্ম ও ফিশারি ফেডারেশন গড়ে তুলতে সহায়তা করবে এই যোজনা।

•এই প্রকল্পের আওতায় অ্যাকোয়াপার্কগুলি বহুমুখী ফিশারি কার্যক্রম / সুবিধাগুলির কেন্দ্র হিসাবে গড়ে তোলা হবে।

•PMMSYয়ের আওতায় সরকারী ও বেসরকারী উভয় ক্ষেত্রের মাধ্যমে ফিশারি ইনকিউবেশন সেন্টার (এফআইসি) প্রতিষ্ঠা করা হবে।

•এই প্রকল্পটি মাথাপিছু প্রায় 5-6 কেজি থেকে প্রায় 12 কেজি পর্যন্ত দেশীয় মাছের ব্যবহারের উন্নতিতে সহায়তা করবে।

• দুর্বল সময়কালে মৎস্যজীবীদের জন্য বার্ষিক জীবিকার সহায়তা সরবরাহ করা হবে এই প্রকল্পে।


৩. এই প্রকল্পের আওতায় উপ বিভাগ ও তার কার্যক্রম সম্পর্কে জানুন:

PMMSYয়ের কেন্দ্রীয় প্রকল্পের আওতায় তিনটি বিস্তৃত উপ-বিভাগকে সহায়তা করবে যা হল:

•উৎপাদন এবং উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি

•অবকাঠামো এবং ফসল কাটার পরে পরিচালনা

•ফিশারি ম্যানেজমেন্ট এবং রেগুলেটরি ফ্রেমওয়ার্ক


এর কার্যক্রমগুলো হল:

•মৎস উৎপাদন

•মৎস উৎপাদনের মান বৃদ্ধি করা

•মৎসজীবি ও মাছ চাষের কল্যাণ

•জলজ চাষের জন্য নতুন পুকুর নির্মাণ

•জলাশয় ও জলাভূমিতে খাঁচা স্থাপন

•মৎস সেবা কেন্দ্রের সম্প্রসারণ ও সহায়তা প্রদান।


৪. এই প্রকল্পে আবেদন করার জন্য যোগ্যতার মানদন্ড:

•এই প্রকল্পে আবেদন করার জন্য মৎস্যজীবীর বয়স ১৮-৬০ বছরের মধ্যে হতে হবে।

•একজন সক্রিয় মৎস্যজীবী হতে হবে।

•কার্যকরী স্থানীয় ফিশার্স সমবায় সমিতি বা ফেডারেশনের সক্রিয় সদস্য হতে হবে।

•অবশ্যই বিপিএল (দারিদ্র্যসীমার নীচে) বিভাগের আওতায় পড়তে হবে।

•যে কোনো স্বনির্ভর গোষ্ঠী আবেদন করতে পারবেন

•মাছ বিক্রেতারা

•বেসরকারি সংস্থাগুলি

•ফিশ ফার্ম সংস্থা


৫.এই প্রকল্পে আবেদন করার জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য সমূহ:

•মৎস উৎপাদন খাতে আয়ের শংসাপত্র

আধার কার্ড

•ঠিকানার প্রমাণ পত্র

•শেষ ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট এর বিবরণ

৬.এই প্রকল্পে আবেদন করবেন কীভাবে জানুন বিস্তারিত:

পদক্ষেপ 1- মৎস সম্পদা যোজনার অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে যেতে হবে। যেমন dof.gov.in

পদক্ষেপ 2- হোমপেজে প্রদর্শিত, “অ্যাপ্লাই নাউ” বোতামটিতে ক্লিক করুন।

পদক্ষেপ 3- এরপর অ্যাপ্লিকেশন ফর্মের পৃষ্ঠাটি স্ক্রিনে প্রদর্শিত হবে।

পদক্ষেপ 4- এখন প্রয়োজনীয় বিশদ প্রবেশ করাতে হবে: সমস্ত বিবরণ যেমন নাম, পিতার নাম, জন্ম তারিখ, লিঙ্গ, জাতি এবং অন্যান্য তথ্য উল্লেখ করুন।

পদক্ষেপ 5- এরপর নথিগুলো আপলোড করুন চাহিদা অনুযায়ী।

পদক্ষেপ 6- আবেদন পত্র চূড়ান্ত জমা দেওয়ার জন্য সাবমিট বাটনে ক্লিক করুন।


৬.ই-গোপালা অ্যাপ কী ও কেন ব্যবহার করবেন:

অ্যাপ্লিকেশনটি কৃষকদের সরাসরি ব্যবহারের জন্য একটি উন্নত তথ্য পোর্টাল।

e-GOPALA App
e-GOPALA App – PM Matsya Sampada Yojana

সব ধরণের রোগমুক্ত কীটনাশক কিনে বিক্রয় সহ দেশে পশুপাখি পরিচালনা করতে কৃষকদের জন্য বর্তমানে কোনও ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম নেই।

তাই এই অ্যাপটির উদ্ভাবন করেছেন প্রধানমন্ত্রী।এই অ্যাপের মাধ্যমে মানসম্পন্ন ব্রিডিং পরিষেবাদি এবং কৃষকদের প্রানী পুষ্টির জন্য দিকনির্দেশনা,উপযুক্ত আয়ুর্বেদিক ওষুধ এবং প্রানীদের চিকিৎসা সংক্রান্ত সমস্ত তথ্য সরবরাহ করবে।

কেন্দ্র সরকারের সমস্ত যোজনা Click Here
পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত প্রকল্প Click Here
বাংলাভুমি হোম Click Here

Leave a Comment