2022 আলু আর পেঁয়াজের পাইকারি ব্যবসা শুরু করবেন কিভাবে | 2022 Potatoes and Onions Wholesale Business in Bengali

Potatoes and Onions Wholesale Business Idea 2022 (আলু আর পেঁয়াজের পাইকারি ব্যবসা 2022): How to Start Potatoes and Onions Wholesale Business in India | Potatoes and Onions Wholesale Business Idea in Bengali | Potatoes and Onions Wholesale Plan 2022 in Bengali.

Potatoes and Onions Wholesale Business Idea 2022 in Bengali: দৈনন্দিন জীবনে যাই হয়ে যাক না কেন, খেতে কিন্তু হবেই। আর সেই কারণে যত বাধা বিপদ আসুক না কেন রান্নাঘরে আলু আর পিয়াজের অভাব কখনই দেখা যায় না। কেননা এটা না হলে রান্না যে একেবারেই অসম্পূর্ণ।

অন্যান্য সবজি দুদিন না থাকলেও অসুবিধা নেই, কিন্তু আলু পিয়াজ না থাকলে সেদিনকে যেন রান্না টাই হয়না, তাইনা। রান্নাঘরের সবচেয়ে বেশি প্রয়োজনীয় জিনিস বলতে গেলে আলু আর পিয়াজ।

এতে রান্নার স্বাদ যেমন বাড়ে তেমনি এগুলি সবার পছন্দের, তাছাড়া এগুলো শুধুমাত্র ঘরে নয়, বড় বড় হোটেল, রেস্তোরা সব জায়গাতেই চাহিদা ব্যাপক মাত্রায়। যতই এর দাম বেড়ে যায় অথবা কমে যাক তাতে কোনো রকম হেলদোল থাকেনা সাধারণ মানুষের। একই রকম মাত্রায় মানুষ কিনে থাকেন, কেননা এগুলি না হলে যে একেবারে চলেনা।

Potatoes and Onions Wholesale Business Idea in Bengali
Potatoes and Onions Wholesale Business Idea in Bengali

আর সেই জন্য আলু আর পেঁয়াজের ব্যবসা কে আপনার কাছে বেশ লাভজনক একটি ব্যবসা হবে বলতে পারেন। এতে আপনি প্রতিমাসে কম করে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত উপার্জন করতে পারবেন।

আলু পেঁয়াজের পাইকারি ব্যবসা আপনি কিভাবে শুরু করবেন এবং তা থেকে কিভাবে আপনি অধিক পরিমাণে লাভ পেতে পারেন আজকের আর্টিকেলটি আপনার সেই সমস্ত তথ্য গুলি দিতে চলেছে।

আলু এবং পেঁয়াজের পাইকারি ব্যবসা এবং এর মার্কেটে চাহিদা:

আগেই বলা হয়েছে যে আলু আর পেঁয়াজের চাহিদা কতখানি তা নতুন করে বলার কিছু নেই, যে কোন সবজি রান্না করার জন্য তাতে আলু আর পিয়াজ অবশ্যই প্রয়োজন।

আর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কথা হলো এই ব্যবসাতে ব্যবসায়ীকে বেশি পরিমাণে পরিশ্রম করতে হয় না, আর নাতো তাকে কোথাও যেতেও হয়।

ব্যবসায়ী তার গুদামঘরে এইগুলি ভরপুর মাত্রায় নিয়ে রেখে দেন, আর খুচরা ব্যবসায়ী তাদেরকে এই আলু আর পেঁয়াজ গুলি দিয়ে থাকে সময় মত।

আলু আর পেঁয়াজের পাইকারি ব্যবসা শুরু করবেন কিভাবে:

এই ব্যবসাটি যেকোন মানুষ অনায়াসেই শুরু করতে পারেন। তাছাড়া এই ব্যবসাটি শুরু করতে গেলে সবার প্রথমে আপনার কাছে একটি বড় গুদামঘর থাকতে হবে। অথবা কোনো বড় দোকান অবশ্যই থাকতে হবে। আপনার কাছে এই গুদামঘর অথবা দোকান এমন জায়গায় হতে হবে যেখানে লোক খুব সহজেই পৌঁছাতে পারে, এবং আলু আর পিয়াজ আপনি খুব সহজেই এখানে জমা করে রাখতে পারেন।

আপনি শুধুমাত্র খুচরা ব্যবসায়ীদের এই আলু আর পেঁয়াজ দিয়ে উপার্জন করতে পারবেন না, তার সাথে সাথে যদি কোনো বড় হোটেল, ধাবা, রেষ্টুরেন্ট, এগুলোতে আপনি পাইকারি দামে দিয়ে থাকেন, তা থেকেও অধিক পরিমাণে উপার্জন করতে পারবে।

আলু আর পেঁয়াজের পাইকারি ব্যবসা তে বেশি পরিমাণে আপনার ইনভেস্ট করতে হবে না। এই ব্যবসাটি আপনি খুব কম টাকা ইনভেস্ট করে শুরু করতে পারেন। তাছাড়া এই ব্যবসাটি বেশি লাভ হসেবে ধরা হয়। আপনি ব্যবসাটি কিন্তু পাইকারি ব্যবসা সেই জন্য আপনি খুব আপনি একটু সস্তা দামে খুচরা ব্যবসায়ীদের দিতে পারেন, যার মাধ্যমে তারা লাভ রেখে তাদের ব্যবসা করতে পারে।

আলু আর পেঁয়াজের পাইকারি ব্যবসা শুরু করার জন্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র:

#১) গুদাম ঘর অথবা দোকান:

এই কথা তো আপনাদের আগেই বলা হয়েছে যে, এই ব্যবসা করতে গেলে সবচেয়ে প্রথম যেটা প্রয়োজন সেটা হল আলু আর পিয়াজ কে স্টোর করে রাখার জন্য গুদামঘর অথবা বড় দোকান ঘরের প্রয়োজন পড়বে আপনার।

সেক্ষেত্রে আপনার যদি নিজস্ব জায়গা অথবা দোকান ঘর থেকে থাকে তা হলে তো অনেকটাই সুবিধা হল। না হলে এমন গুদামঘর অথবা দোকান আপনি ভাড়াতেও নিতে পারেন।

#২) একজন কর্মচারী:

এই ব্যবসাটি করার জন্য আপনার একটি সহযোগিতা করার মতো কর্মচারী প্রয়োজন পড়বে, যে কিনা আলু পিয়াজ কে গাড়ি থেকে নামানো এবং তোলার কাজ করার ক্ষেত্রে আপনাকে সাহায্য করবে।

#৩) মেশিন:

এই ব্যবসার জন্য বেশি মাত্রায় আলু পিয়াজ মাপার যন্ত্র কিনতে হবে। যার মাধ্যমে এই আলু আর পেঁয়াজ  আপনি সঠিক মাত্রার ওজন করে গ্রাহকদের দিতে পারবেন।

Electronic Weighing Scale (100 Kg)Click here
Electronic Weighing Scale (50Kg)Click here

#৪) প্লাস্টিক:

আলু আর পিয়াজ যাতে খারাপ না হয়ে যায় সেই কারণে আপনার প্লাস্টিক প্রয়োজন পরবে যাতে আপনার এই জিনিসগুলি সুরক্ষিত থাকে।

আলু আর পেঁয়াজের পাইকারি ব্যবসা করার জন্য  যেগুলি কেনার প্রয়োজনীয়তা:

আলু আর পেঁয়াজের পাইকারি ব্যবসা করার জন্য আপনাকে আলু আর পেঁয়াজ কিনতে হবে সরাসরি চাষীদের কাছ থেকে। আপনি অল্প দামে এগুলো কিনতে পারেন যারা আলু আর পেঁয়াজের চাষ করে থাকেন তাদের কাছ থেকে খুবই কম দামে আপনি পেয়ে যাবেন এবং সেগুলি খুচরা বিক্রেতাদের কাছে কিছুটা লাভ রেখে আপনি বিক্রি করতে পারবেন।

আপনার লাভ হওয়ার সাথে সাথে কৃষকদেরও অনেকটাই সাহায্য করতে পারবেন আপনি। কেননা কৃষকরা এটা নিশ্চিত হতে পারবেন যে, তাদের চাষ করা আলু পিঁয়াজ বিক্রি করার জন্য কোথাও যেতে হবে না।

আলু আর পিয়াজ এর পাইকারি ব্যবসা শুরু করার জন্য ইনভেস্টমেন্ট:

যে  কোন ব্যবসা শুরু করতে গেলে সবার প্রথমে মাথায় যে কথাটি আসে সেটা হল সেই ব্যবসাটি শুরু করতে কতটা পরিমাণ খরচ পড়তে পারে। কেননা তার ওপরেই তো নির্ভর করবে যে সেই ব্যবসাটি শুরু করা যাবে কি যাবে না।

আপনার গুদামঘর অথবা দোকানের জন্য এবং তার সাথে সাথে কৃষকদের থেকে আলু, পেঁয়াজ কেনার জন্য কিছুটা পরিমাণ পুঁজি আপনার লাগতে পারে।

তাছাড়া এছাড়াও কৃষকদের থেকে এগুলি নিয়ে নেওয়ার পর সেগুলি নিজের গুদামঘরে স্টোর করার জন্য যে ট্রান্সপোর্টেশন এর খরচ তাও কিন্তু ধরতে হবে অর্থাৎ সবমিলিয়ে আপনার প্রায় ৭০ হাজার থেকে এক লাখ টাকা পর্যন্ত খরচ হতে পারে।

কিন্তু গুদামঘর অথবা দোকান যদি আপনার থেকে থাকে তা হলে তো অনেকটাই সাশ্রয় করতে পারবেন। তার সাথে সাথে যদি কিনতে হয় তাহলে একবার মাত্র আপনার এর জন্য খরচ করতে হবে।

আলু আর পেঁয়াজের পাইকারি ব্যবসা থেকে লাভ:

আলু আর পেঁয়াজের পাইকারি ব্যবসা তে আপনি কৃষকদের থেকে কতটা পরিমাণ আলু পিয়াজ কিনছেন তার উপরে কিন্তু নির্ভর করবে আপনার লাভ। আপনি যতটা পরিমাণ আলু পিয়াজ নিয়ে সেগুলি বিক্রি করতে পারবেন, তার উপরে কিন্তু আপনার উপার্জন অথবা লাভ নির্ভর করছে।

এ ব্যবসাতে প্রথমে প্রতি মাসে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত আপনি পেতে পারেন, কিন্তু যখন আপনার ব্যবসাটি ভালো মত চলতে শুরু করবে, এবং বড় জায়গায় যাবে তখন প্রতি মাসে এক লাখ টাকা পর্যন্ত ইনকাম করার সুযোগ রয়েছে আপনার জন্য।

এর জন্য সবচেয়ে যেটা প্রয়োজন সেটা হল বাজারে আপনার ব্যবসার স্থায়িত্ব বজায় রাখতে হবে, কেননা আলু আর পিয়াজ এর দাম কখনো বেশি হয় আবার কখনো কম হয়।

এমন পরিস্থিতিতে আপনি যদি বেশি পরিমাণে আলু পিয়াজ স্টোর করে রেখে যখন দাম বাড়বে সেই সময় যদি ছেড়ে থাকেন অর্থাৎ সেই সময় যদি বাজারে বিক্রি করে থাকেন তাহলে অধিক পরিমাণে লাভ পেতে পারেন।

তো এইভাবে খুবই সহজ পদ্ধতিতে আলু পেঁয়াজের ব্যবসা শুরু করতে পারেন। যা কিনা নিত্য প্রয়োজনে প্রতিটি ঘর থেকে হোটেল-রেস্তোরাঁ সব জায়গাতেই অতি প্রয়োজনীয় জিনিস। আর এ থেকে খুবই কম পরিশ্রম এর মধ্যে দিয়ে প্রতিমাসে ভালোমতো উপার্জন করতে পারবেন। আশা করি এই ব্যবসার আইডিয়া টি আপনাদের ভাল লেগেছে।

Leave a Comment