পোঙ্গল 2022: ইতিহাস ও তাৎপর্য | Pongal 2022: History and Significance

পোঙ্গল 2022 (Pongal 2022 Date Time and Significance) 2022 পোঙ্গলের ইতিহাস এবং জানুন পোঙ্গল কেন পালন করা হয়? পোঙ্গলের তাৎপর্য কি? ভারতীয়দের জন্য পোঙ্গলের গুরুত্ব কতটা? জানুন সবকিছু এখানে।

বিভিন্ন রকমের উৎসব দিয়ে শুরু হয় হিন্দু ধর্মাবলম্বী দের জীবনযাত্রা। প্রতিমুহূর্তে কোন না কোন উৎসব লেগেই রয়েছে। তার মধ্যে এমনই একটি জনপ্রিয় উৎসব হল পোঙ্গল উৎসব। এই পোঙ্গাল উৎসব প্রধানত সূর্যের পুজো নামে পরিচিত অর্থাৎ সূর্য দেবের পুজো নিয়ে এই পোঙ্গল উৎসব পালিত হয়।

এই পোঙ্গল উৎসবটি ভারতের তামিলনাড়ু রাজ্যে সম্পূর্ণ উৎসাহ এবং উদ্দীপনার সাথে পালন করা হয়। এই ঋতুতে ধান, হলুদ, আখ চাষ হয়। চার দিন ধরে এই উৎসবের আমেজ থাকে। প্রথম দিনকে ভোগী পোঙ্গল বলা হয়, দ্বিতীয় দিনটিকে সূর্য পোঙ্গাল, তৃতীয় দিন টিকে মাত্তু পোঙ্গল এবং চতুর্থ দিন টিকে কন্নম পোঙ্গাল বলা হয়।

পোঙ্গল ইতিহাস ও তাৎপর্য - Pongal History and Significance
পোঙ্গল ইতিহাস ও তাৎপর্য – Pongal History and Significance

সমস্ত শক্তির উৎস হিসাবে আমরা সূর্যকে মেনে থাকি। সেই সাথে সাথে ভিন্ন ধর্মাবলম্বীরা সূর্যদেবের পূজা করে কৃতজ্ঞতা বোধ জানান, তার সাথে সাথে আশীর্বাদ প্রাপ্ত করে থাকেন। এই পোঙ্গাল উৎসব অনেক দিন আগে থেকেই উৎসবের আমেজে হয়ে আসছে। তো চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক পোঙ্গাল উৎসবের ইতিহাস সম্পর্কে।

পোঙ্গাল উৎসবের ইতিহাস: 

পোঙ্গাল উৎসব হলো বিশেষ করে দক্ষিণ ভারতের মানুষ দের এবং বিশেষ করে তামিলনাড়ুর মানুষ দের একটি প্রাচীন উৎসব যেটা আনুমানিক প্রায় 200 খ্রিস্টপূর্বাব্দের সময় থেকে আসছে। যদিও এই পোঙ্গাল উৎসব দ্রাবিড় ফসলের উৎসব হিসেবে পালন করা হয়, এটির সংস্কৃত পূরণেও উল্লেখ পাওয়া যায়।

এখানে পোঙ্গালের দুটি গল্প রয়েছে, যা ভগবান শিব এবং ভগবান ইন্দ্র এবং কৃষ্ণের সাথে সম্পর্কিত সেই গল্প। পোঙ্গল উৎসবের সাথে কিছু কিংবদন্তি ও জড়িত। তবে জানা যায় যে, তামিলনাড়ুতে এই সময়ে ফসল কাটা হয়, আর ফসল কাটার পর এই উৎসব জাঁকজমকপূর্ণ ভাবে পালন করা হয়।

অনেকটা আমাদের বাংলায় নবান্ন উৎসবের মতো। যেটা আমরা পয়লা বৈশাখ হিসেবে পালন করে থাকি। সেটা তারা পোঙ্গল উৎসব এর মধ্যে দিয়ে আনন্দ উপভোগ করে থাকেন।

পোঙ্গল উৎসবের তাৎপর্য: 

যেহেতু পোঙ্গাল উৎসবকে দক্ষিণ ভারতের তামিলনাড়ুর বিশেষ একটি উৎসব হিসেবে মনে করা হয়। এই সময় দক্ষিণ ভারতের ফসল কাটার পর ধানের শীষ ঈশ্বরের উদ্দেশ্যে নিবেদন করা হয়। তার সঙ্গে সঙ্গে প্রার্থনা করা হয় যে, যেন প্রতিবছর এভাবেই উৎসব পালন করা হয় আর মাঠ যেন শস্য তে ভরে ওঠে। প্রতি বছর ফসল যেন আরো বেশি ভালো হয়। প্রতিটি পরিবারে, প্রতিটি সংসারে যেন শ্রী বৃদ্ধি ঘটে, সমৃদ্ধি আসে। তার জন্যই এই উৎসব পালন করা হয় বলে জানা যায়।

আরো জানা যায় যে, সংসারের শ্রীবৃদ্ধি কামনায় ঘরের গৃহপালিত গবাদি পশুদেরও পূজা করার প্রচলন রয়েছে। এছাড়া সূর্য দেবতার পূজা করার সাথে সাথে বৃষ্টির দেবতা, ইন্দ্র দেবের পূজা করেন তামিলনাড়ুর মানুষজন। দেশের অন্যতম উদযাপনের উৎসব হল এই পোঙ্গাল। এছাড়া মকর সংক্রান্তি, লোহরি, বিহু সঙ্গে একই সময় এই উৎসব পালন করা হয়।

পোঙ্গল কথার অর্থ কি?

সাধারণভাবে পোঙ্গল কথার অর্থ হল নতুন সূচনা অর্থাৎ সুন্দর একটা শুরু। হিন্দু পুরান মতে জানা যায় এই উৎসব অন্ধকার কে শেষ করে নতুন আলোর কামনায় পালন করা হয়ে থাকে। কাহিনী অনুসারে ঠিক আগেই যে অমাবস্যা দেখা দেয় এবং তারপর অমাবস্যা কেটে যাওয়াকে সেখানকার মানুষ মন্দকে ত্যাগ করে ভালো কে গ্রহণ করার মত যে বিশ্বাস করেন, সেই বিশ্বাসকে গ্রহন করে এই ব্রত পালন করেন।

চার দিন ধরে আলাদা আলাদা পোঙ্গল উৎসব পালন করা হয়, প্রতি বাড়িতে এই সময় নানা রকমের খাবার তৈরি হয়, প্রতিটি বাড়িতে আবির দিয়ে রঙ্গলি দিয়ে সাজানো হয়। সঙ্গে প্রতিটি পরিবারের সদস্যরা এই সময়ে নতুন পোশাক পরেন, যেন তাদের নতুন বছর শুরু। বিভিন্ন বাড়িতে এই সময় নতুন থালা-বাসন কেনার প্রচলনও রয়েছে যেটা সংসারের সমৃদ্ধি হিসেবে মনে করেন অনেকে।

পোঙ্গাল উৎসব অনুসারে ধরণী যেন শস্য শ্যামলে ভরে ওঠে, সেই কামনায় ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করা। সূর্য দেবকে সন্তুষ্ট করা, তার সাথে গবাদি পশু যেন অনেক বৃদ্ধি পায়, সেই আশায় এই উৎসব দক্ষিণ ভারত এবং তামিলনাড়ুর মানুষেরা নিষ্ঠা ভরে পালন করে থাকেন।

তবে যাই হোক না কেন, এই উৎসব অনেক খানি মনের অন্ধকার কাটিয়ে নতুন সূচনা করে মানুষের জীবন যাত্রাকে আরও বেশি সুন্দর করে তুলতে সাহায্য করে। প্রতিটি উৎসবের পেছনে ইতিহাস ও তাৎপর্য থাকেই। আর এই পোঙ্গল উৎসবে তাৎপর্য মানুষের বিশ্বাস আর সেই বিশ্বাসের উপরে ভিত্তি করে প্রার্থনা করা সবকিছু মিলিয়ে পোঙ্গল উৎসব দক্ষিণ ভারত, তামিলনাড়ুর স্থানীয় মানুষ দের জন্য খুবই জনপ্রিয় উৎসব।

পোঙ্গল উৎসব সম্পূর্ণ ভাবে পালন করা হয়, সেই অনুযায়ী সেখানে মেলা, সংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, এবং আরো অন্যান্য খেলাধুলার আয়োজনও করা হয় বলেও জানা গিয়েছে। পরিবারের সকল সদস্য এই উৎসবে গা ভাসিয়ে থাকেন। আমাদের জীবনে যে বিষয়টি প্রয়োজন সেটা হলো খারাপটাকে বর্জন করে ভালোটাকে গ্রহণ করা। আর এই পোঙ্গাল উৎসব সেই বিষয় টিকেই সুন্দর ভাবে তুলে ধরে আর সেটাই মানুষের জীবনে অনেক খানি পরিবর্তন ঘটিয়ে থাকে। প্রতিবছর এই উৎসবের জন্য সবাই অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে থাকেন।

Leave a Comment