PM CARES Fund 2022: Working Processes & Benefits

জরুরী পরিস্থিতি মোকাবেলায় ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী একটি ফান্ড গঠন করেছেন যার নাম পিএম কেয়ার ফান্ড।

এই তহবিলে প্রধানমন্ত্রী নাগরিকদের সহায়তা এবং ত্রাণের জন্য অর্থ অনুদান জমা নিয়ে থাকেন, যা দেশের জনগণের কল্যাণে পরবর্তীতে বিভিন্ন জরুরী মুহূর্তে ব্যয় করা হয়।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সভাপতিত্বে, পিএম কেয়ার ফান্ড অর্থাৎ প্রধানমন্ত্রীর নাগরিক সহায়তা এবং জরুরি অবস্থা পরিস্থিতি মোকাবেলায় ২০২০ সালের ২৮শে মার্চ এই ফান্ড গঠন করা হয়েছে৷

PM CARES Fund in Bangla
PM CARES Fund in Bangla

দেশের জরুরী অবস্থা মোকাবেলা এবং নাগরিকদের জন্য সরকারি সুবিধা আরও বাড়ানোই এই ফান্ড গঠনের মূল উদ্দেশ্য। দেশে এই মুহূর্তে মহামারী করোনার ফলে হাজার হাজার মানুষের মৃত্যু হচ্ছে, অনেকেই তাদের চাকুরি হারিয়েছেন, ব্যবসায় এবং দৈনন্দিন কাজের ক্ষতিতে দেশের অর্থনীতি বিপর্যস্ত।

এই অবস্থায় জরুরী ত্রাণ, খাদ্য, ঔষধ এবং অন্যান্য সরকারি সুবিধা প্রদান সময়ের দাবি। যা সরকার প্রদান করে চলেছে। আর এই ত্রাণ এবং সুবিধার বরাদ্দ বা অর্থের যোগান আসছে পিএম কেয়ার ফান্ড এবং বৈদেশিক অনুদান এবং উপহার বা সহযোগিতা থেকে।

সুপ্রিয় পাঠক আমাদের আজকের আয়োজনে থাকছে প্রধানমন্ত্রীর গঠিত তহবিল” পিএম কেয়ার ফান্ড” গঠনের উদ্দেশ্য সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা। চলুন দেরী না করে মূল আলোচনায় যাওয়া যাক।

পিএম কেয়ার ফান্ড গঠনের উদ্দেশ্য সম্পর্কে জেনে নিন:-

পিএম কেয়ার ফান্ড কি?

করোনাভাইরাস কভিড -১৯-এর উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ক্ষতিগ্রস্থদের ত্রাণ সরবরাহের প্রয়োজনীয়তার কথা মাথায় রেখে পিএম কেয়ার ফান্ড নামে একটি পাবলিক চ্যারিটি ট্রাস্ট স্থাপন করা হয়েছে।

পিএম কেয়ার ফান্ড হল ভারতে কোভিড-১৯ মহামারীর মতো ভয়াবহ পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য তৈরি একটি নিবেদিত জাতীয় তহবিল। এই তহবিলের প্রাথমিক উদ্দেশ্য আসন্ন জরুরী অবস্থা বা সঙ্কট পরিস্থিতি মোকাবেলা করা।

এই পরিস্থিতিতে কোভিড-১৯ আক্রান্তদের পাশে দাড়াতে সরকার সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নিয়েছে। হেল্পলাইনে কল করে জরুরী চিকিৎসা,ত্রাণ ও ঔষধ, এম্বুলেন্স সার্ভিস সরবরাহ করবে সরকার।

পিএম কেয়ার ফান্ডের উদ্দেশ্য:

জনস্বাস্থ্য জরুরী অবস্থা বা অন্য যে কোন জরুরি অবস্থা, বিপর্যয় বা সঙ্কট সম্পর্কিত যে কোনও দূর্যোগ বা মহামারীতে স্বাস্থ্য-সহায়তা বা ফার্মাসিউটিক্যাল সুবিধা, অন্যান্য প্রয়োজনীয় অবকাঠামো, তহবিল সরবরাহ বা রক্ষণাবেক্ষণ সহ মানবিক সহায়তা বা ত্রাণ সুবিধা এবং অন্যান্য সহায়তা করা এই ফান্ড গঠনের উদ্দেশ্য।

যেকোন বিপদকালীন সময়ে কি কি সুবিধা বা সেবা প্রয়োজন হতে পারে সে সম্পর্কে প্রাসঙ্গিক গবেষণা করা হয় এই ফান্ডের সুষ্ঠু বন্টনের সুবিধার্থে।

আর্থিক সহায়তা প্রদানের জন্য, অর্থ অনুদান প্রদান বা ক্ষতিগ্রস্থ জনগণের কাছে পৌঁছাতে ট্রাস্টি বোর্ড কর্তৃক প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয় এই ফান্ডের অর্থের মাধ্যমে।

অন্য কোনও ক্রিয়াকলাপ যা উপরোক্ত বিষয়গুলির সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়, এমন কোন উদ্দেশ্য পিএম কেয়ার ফান্ডের অর্থ ব্যবহার করা হয়না। পিএম কেয়ার ট্রাস্টে সরকারী গুরুত্বপূর্ণ কর্তাব্যক্তিরা রয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী কার্স তহবিলের প্রাক্তন চেয়ারম্যান ভারত সরকার, প্রতিরক্ষা মন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং অর্থমন্ত্রী পিএম কেয়ার তহবিলের প্রাক্তন অফিসার।

পিএম কেয়ার ফান্ড গুরুত্বপূর্ণ বিষয়সমূহ

তহবিল কোনও বাজেটিক সহায়তা পায় না এবং ব্যক্তি বা সংস্থাগুলির স্বেচ্ছাসেবী দানের মাধ্যমে সম্পূর্ণরূপে গঠিত।

তহবিলটি দেশে উদ্ভূত পরিস্থিতি বা জরুরী পরিস্থিতি মোকাবেলায় ব্যবহার করা হবে। ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান কতৃক যেসব অনুদান এই ফান্ডের আওতায় গৃহীত হয় তার জন্য কোন কর প্রযোজ্য হবেনা।

বিদেশ থেকে অনুদান গ্রহণের জন্য একটি পৃথক অ্যাকাউন্ট খোলা হয়েছে। এটি বিদেশ থেকে বলেন বিভিন্ন ব্যক্তি এবং সংস্থাগুলির অনুদান এবং অবদান পিএম কেয়ার ফান্ড তহবিলে গ্রহণ করে।

পিএম কেয়ার ফান্ডের বৈদেশিক অনুদানও এফসিআরএর আওতায় ছাড় পাবে। এটি প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় ত্রাণ তহবিলের (পিএমএনআরএফ) সম্মানের সাথে এবং কর ছাড়ের দিক হতে সামঞ্জস্যপূর্ণ।

২০১১ সাল থেকে পিএমএনআরএফ জনসাধারণের আস্থা হিসাবে বিদেশী অনুদান ও অর্থ পেয়েছে। যারা ভারতীয় প্রবাসী নাগরিক তারাও দেশের কল্যাণে পিএম কেয়ার ফান্ডে অর্থ অনুদান হিসেবে পাঠিয়ে থাকেন। এবং এই অর্থের উপর তাদের কোন কর প্রদান করতে হয়না।

পিএম কেয়ার তহবিলের মতো, ভারত সরকার কর্তৃক দেশের নাগরিকদের সামাজিক ও অর্থনৈতিক কল্যাণের লক্ষ্যে পরিচালিত বিভিন্ন অন্যান্য প্রকল্প রয়েছে।

পিএম কেয়ার ফান্ডের অনন্য দিকসমূহ

পিএম কেয়ার ফান্ডের অর্থ কোনভাবেই ত্রাণ,দূর্যোগ, মহামারী ব্যতীত অন্য কোন উদ্দেশ্য ব্যয় করা হয়না। আর এই তহবিল গঠিত হয় পুরোটাই অনুদানের অর্থ দ্বারা।

এখানে কোন সরকারী বরাদ্দ নেই। আর এই অনুদানের টাকায় কোন কর নেওয়া হয়না। দেশে যেকোন সময় সংকট দেখা দিতে পারে যখন বাড়তি অর্থের প্রয়োজন, তখনকার জন্যই মূলত এই ফান্ড গঠন করা হয়।

দেশের মানুষ যাতে কোন খারাপ পরিস্থিতিতেই সরকারী সুবিধা থেকে বঞ্চিত না হয়, এবং যেকোন ধরনের সুবিধাপ্রাপ্ত হতে পারে সেজন্যই মূলত এই ফান্ড গঠিত হয়েছে।

দেশকে যেকোন পরিস্থিতি মোকাবেলায় এই ফান্ডের গুরুত্ব অপরিসীম। দেশের স্বচ্ছল জনগণ যেকোন সময় চাইলেই ফান্ডের জন্য নির্দিষ্ট একাউন্টে অনুদানের অর্থ প্রদান করে দেশের কল্যাণে ভূমিকা রাখতে পারেন।

এছাড়া বিদেশী প্রবাসী নাগরিক, এবং দেশীয় প্রতিষ্ঠান বা সংস্থা, বিদেশী সংস্থাও এই ফান্ডে অর্থ অনুদান দিতে পারেন।

জরুরী কথা

সারাবিশ্বজুড়ে চলছে করোনা মহামারী আতঙ্ক। আমাদের দেশের আক্রান্তের হার এবং মৃতের হার দুইই অত্যন্ত বেশী। দেশ এক ভয়ংকর অস্থির সময় পার করছে। মানুষ গণহারে মারা পড়ছে।

করোনা সংকটে দেশের স্বাভাবিক কাজকর্ম এবং ব্যবসায়ে চরমমন্দা চলছে। এই ক্ষতি কতদিন বা বছরে কাটিয়ে ওঠা যাবে তা নিশ্চিত করে বলা সম্ভব নয়।

কিন্তু এই পরিস্থিতিতে সবার আগে দেশের মানুষকে খাদ্য, চিকিৎসা, সহায়তা, ত্রাণ, পুনর্বাসন, এসব সুবিধা প্রদান করতে হবে। আগে দেশের মানুষকে বাঁচাতে হবে এই ভয়াবহ মহামারী থেকে।

এরকম ভয়াবহ পরিস্থিতি বিশেষ করে করোনাকালীন পরিস্থিতিভ মোকাবেলায় ২০২০ সালের ২৮শে মার্চ এই ফান্ড গঠন করা হয়েছে। দেশের স্বচ্ছল নাগরিক, দেশী-বিদেশী সংস্থা, বিভিন্ন ব্যবসায়িক সংগঠন, প্রবাসীরা পিএম কেয়ার ফান্ডে অনুদান দিয়ে চলেছেন।

এবং এই অর্থ দেশের এই ভয়াবহ দূর্যোগের সময় দেশের জনগণের জরুরী মৌলিক চাহিদা পূরণে যথাযথভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে। আশা করা যাচ্ছে এই ফান্ডের সঠিক ব্যবহার দ্বারা আমরা এই ভয়াবহ কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে অবশ্যই দেশের জনগণের সাহায্য করতে সক্ষম হব।

আশা করি পিএম কেয়ার ফান্ডের উদ্দেশ্য সম্পর্কে আপনাদের ধারণা প্রদানের ক্ষুদ্র প্রচেষ্টা স্বার্থক হয়েছে। পোস্টটির বিষয়ে কোন তথ্য জানানোর হলে বা কোন প্রশ্ন থাকলে কমেন্ট সেকশনে কমেন্ট করুন।

কেন্দ্র সরকারের সমস্ত যোজনাClick Here
পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত প্রকল্পClick Here
বাংলাভুমি হোমClick Here

Leave a Comment