2022 Phenyl and Herbal Phenyl Making Business Idea in Bengali | ফিনাইল ও হারবাল ফিনাইল বানানোর ব্যবসা শুরু করবেন কিভাবে

4.7
(3)

Phenyl and Herbal Phenyl Making Business Idea 2022 (ফিনাইল ও হারবাল ফিনাইল বানানোর ব্যবসা 2022): How to Start Phenyl and Herbal Phenyl Making Business in India | Phenyl and Herbal Phenyl Making Business Idea in Bengali | Phenyl and Herbal Phenyl Making Business Plan 2022 in Bengali.

Phenyl and Herbal Phenyl Making Business Idea in Bengali 2022: প্রতিটি ঘরে ফিনাইল ব্যবহার করা হয়ে থাকে। জীবাণুনাশক হিসেবে ফিনাইল এর ব্যবহার প্রতিনিয়ত বেড়েই চলেছে। আর তাই মার্কেটে এর চাহিদা প্রচুর। ফিনাইল আজকের সময়ে একটি বিশেষ উপযোগী জিনিস।

এর ব্যবহার বাথরুম এর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার জন্য ব্যবহার করা হয়। তার সাথে সাথে ঘরের আশপাশে জীবানুনাশ করার জন্য ব্যবহার করে থাকেন অনেকেই।

Phenyl and Herbal Phenyl Making Business in Bengali
Phenyl and Herbal Phenyl Making Business in Bengali

আর তাই মার্কেটে চাহিদা প্রচুর থাকার কারণে আপনি এই ফিনাইল তৈরির ব্যবসা শুরু করে কিভাবে তা থেকে অধিক পরিমাণে উপার্জন করতে পারেন আজকের এই আর্টিকেলটিতে জানা যাক।

Contents

ফিনাইল বানানোর জন্য প্রয়োজনীয় র ম্যাটেরিয়ালস:

প্রতিটি জিনিস বানানোর ক্ষেত্রে কিছু কাঁচামাল প্রয়োজন পড়ে। আর এই ফিনাইল তৈরি করার জন্য যে সমস্ত কাঁচামাল এর প্রয়োজন পড়বে সেগুলি হল:

#১) বিশুদ্ধ জল: এই বিশুদ্ধ জল আপনি যেকোন ওয়াটার পিউরিফাইং প্লান্ট থেকে পেয়ে যাবেন। সাধারণত ২০০ টাকা প্রতি কিলোলিটার হয়ে থাকে এই বিশুদ্ধ জল এর দাম।

#২) কনসেনট্রেট ফিনাইল: এর দাম ৪০০ টাকা প্রতি লিটার পাওয়া যায় মার্কেটে।

#৩) প্যাকিং বোতল: সাধারণত এই বোতল কুড়ি টাকা প্রতি বোতল হয়ে থাকে। তাছাড়া এর থেকে কম দামেও আপনি মার্কেটে পেতে পারেন।

এই প্রোডাক্ট গুলি আপনি নিচে দেওয়া এই সাইট থেকেও কিনতে পারেন অনলাইনে:

কনসেনট্রেট ফিনাইল (Concentrate phenyl)Click Here
প্যাকিং বোতল (Packing bottle)Click Here

ফিনাইল বানানোর প্রক্রিয়া:

চলুন তাহলে জানা যাক, এই ফিনাইল কিভাবে বানাবেন আপনি। ফিনাইল বানানোর প্রক্রিয়া খুবই সহজ একটি প্রক্রিয়া। উন্নত মানের ফিনাইল বানানোর জন্য যে প্রক্রিয়ায় প্রয়োজন সেগুলো নিচে আলোচনা করা হলো:

প্রতি ১ লিটার ফিনাইল বানানোর জন্য:

# সবার প্রথমে প্রায় ৯০০ গ্রাম বিশুদ্ধ জল একটি বড় পাত্রে রাখতে হবে, সে ক্ষেত্রে আপনি এর ওজন মাপার জন্য কম্পিউটারাইজড ওজন যন্ত্র ব্যবহার করতে পারেন এতে কিন্তু আপনার তৈরি করা ফিনাইলের গুণমান খুব ভালো থাকবে।

# জলের ওজন মেপে নেওয়ার পর আপনাকে এর মধ্যে ১০০ গ্রাম কনসেনট্রেট ফিনাইল মেশাতে হবে ভালোভাবে। বিশুদ্ধ জলে এই ফিনাইলি একবার ভালোভাবে মিশে যাওয়ার পর আপনার তৈরি করা ফিনাইল একেবারে রেডি।

# যদি আপনি এই ফিনাইল কে কোন বিশেষ রং দিয়ে বানাতে চান তাহলে এর মধ্যে আপনার পছন্দের রঙ মেশাতে পারেন। এমনভাবে আপনি রঙিন ফিনাইল বানাতে পারেন এবং মার্কেটে বিক্রি করতে পারেন।

ফিনাইল তৈরি করার ব্যবসা তে ইনভেস্টমেন্ট:

এই ব্যবসাটি শুরু করার জন্য আপনাকে প্রথমে কম করে ১০ হাজার থেকে ১৫ হাজার টাকা ইনভেস্ট করতে হতে পারে। এই টাকার মধ্যে আপনি এই ব্যবসার মধ্যে যে সমস্ত জিনিসপত্র ব্যবহার করা হয় তা আপনি কিনে নিতে পারবেন।

হারবাল ফিনাইল বানানোর ব্যবসা:

ফিনাইল তৈরির ব্যাপারে ধারণা তো পাওয়া গেল, কিন্তু আপনার জেনে রাখা জরুরি যে এমনও হয় যে বাজারে বিভিন্ন রকমের কোম্পানি তাদের ফিনাইল বিক্রি করে থাকে। আর সেই সমস্ত ফিনাইল থেকে বিভিন্ন রকমের সমস্যা তৈরি হতে পারে।

যেমন ধরুন এই ফিনাইল থেকে কোন মানুষের অ্যালার্জি হতে পারে অথবা বাচ্চাদের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। এছাড়াও কিছু মানুষের  এই ফাইনাল এর গন্ধ একেবারেই পছন্দ নয়।

তাহলে এমন পরিস্থিতিতে আপনি হারবাল ফিনাইল বানানোর ব্যবসা শুরু করতে পারেন। কেননা এর গন্ধ এবং ব্যবহার অতিমাত্রায় মানুষ ব্যবহার করতে পছন্দ করেন। কারণে কোনো ক্ষতি না করে এবং কোনরকম বাজে গন্ধ ছাড়া সকলের পছন্দ হয় এই হারবাল ফিনাইল।

চলুন জানা যাক হারবাল ফিনাইল আসলে কি:

হারবাল ফিনাইল হলো এমন একটি ফিনাইল, যেটাকে প্রাকৃতিক জিনিসপত্র দিয়ে বানানো হয়ে থাকে, আর এতে কোনো রকম রাসায়নিক বস্তু ব্যবহার করা হয় না। হারবাল নিম তেল অথবা গোমূত্র থেকে বানানো যেতে পারে।

এই রকমের জিনিসপত্র থেকে বানানো ফিনাইল কখনোই কোনরকম ক্ষতি করতে পারে না। আর সব থেকে জরুরি কথা হল, এই ফিনাইল ব্যবহার করার ফলে ব্যাকটেরিয়া ও খুব সহজেই মরে যেতে পারে। আর এই জন্য এর লাভ অনেকটাই। আর তাই সেই কারণে আজকাল মার্কেটে হারবাল ফিনাইল এর চাহিদা প্রচুর মাত্রায় বেড়ে চলেছে।

হারবাল ফিনাইল বানানোর প্রক্রিয়া:

গোমূত্র থেকে কিভাবে বানানো যায় হারবাল ফিনাইল:

কনসেনট্রেট ফিনাইল:১ লিটার
জল:১৫ লিটার
গোমূত্র:৫ লিটার
এফ্লক্স:২০০ গ্রাম থেকে ৫০০ গ্রাম

কনসেনট্রেট ফিনাইল বানানোর প্রক্রিয়া:

এই ফিনাইল বানানোর জন্য সবার প্রথমে কনসেনট্রেট ফিনাইল কিভাবে বানানো যায় সেটা আগে জানানো যাক। ৪০০ গ্রাম কনসেনট্রেট ফিনাইল (Concentrate phenyl) বানানোর জন্য আপনাকে

৩০০ গ্রাম পাইন অয়েল, ৫০ গ্রাম টি আর ও, ৫০ গ্রাম এফ্লক্স, এছাড়াও যদি আপনি ফিনাইলে পারফিউম দিতে চান, গন্ধযুক্ত ফিনাইল করার জন্য, তাহলে ফ্রেগনেন্স আপনি দিতে পারেন।

এইভাবে কিন্তু আপনার কনসেনট্রেট ফিনাইল একেবারে তৈরি।

বানানোর প্রক্রিয়া:

#১) গোমূত্র থেকে ফিনাইল বানানোর জন্য সবার প্রথমে আপনাকে কনসেনট্রেট ফিনাইল প্রয়োজন পড়বে এর সাথে জল মেশাতে হবে।

#২) জল মেশানোর পর আপনি দেখবেন যে এর রং একেবারে সাদা হয়ে গেছে। এরপর এর মধ্যে গোমূত্র দিয়ে দিতে হবে।

#৩) যেহেতু গোমূত্র থেকে ব্যাপকহারে দুর্গন্ধ আসতে পারে সেই কারণে সেই দুর্গন্ধ কাটানোর জন্য অ্যাথেম্বের টপ ব্যবহার করতে পারেন, এছাড়াও এতে তেল থাকে সেটিকে ভালোভাবে মেশানোর জন্য এরমধ্যে এফ্লক্স ২০০ দিয়ে দিতে হবে।

#৪) এই রকম ভাবে সমস্ত জিনিস দিয়ে দেওয়ার পর আপনার গোমূত্র থেকে বানানো হারবাল ফিনাইল একেবারে তৈরি। তারপরে ও গুলিকে ভালো করে প্যাকিং করে মার্কেটে বিক্রি করতে পারেন।

নিম তেল থেকে বানানো হারবাল ফিনাইল:

নাম শুনে নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন যে এই নিম তেল থেকে বানানো হারবাল ফিনাইল এর ক্ষেত্রে নিম তেল কতটা প্রয়োজনীয়। নিম তেলে হালকা একটা গন্ধ আছে, আর তাই এই গন্ধ কাটানোর জন্য এর মধ্যে অথেম্বের টপ আর এফ্লক্স দিয়ে দিতে পারেন।

তবে সে ক্ষেত্রে এগুলির মাত্রা একটু কম রাখতে হবে। এছাড়াও এরমধ্যে আপনাকে জল এবং কনসেনট্রেট ফিনাইল মেশাতে হবে।

নিম তেল থেকে ফিনাইল বানানোর প্রক্রিয়া:

সবার প্রথমে আপনাকে নিম তেল নিতে হবে, এরমধ্যে কনসেনট্রেট ফিনাইল মেশাতে হবে। আর তারপর এর মধ্যে জল দিয়ে দিতে হবে, যখনই জল দিয়ে দেবেন তখন সাথে সাথেই এর রং একেবারে পাল্টে সাদা হয়ে যাবে।

আর মার্কেটে বিক্রি হওয়া ফিনাইল এর মত তৈরি হয়ে যাবে, আপনার ফিনাইলে আপনি চাইলে এরমধ্যে কালার এড করতে পারেন। না হলে এমন ভাবেও রাখতে পারেন। এই ভাবে আপনার নিম তেল থেকে ফিনাইল তৈরি হয়ে যাবে। যা আপনি পরে বোতলে ভরে প্যাক করে মার্কেটে বিক্রি করবেন।

হারবাল ফিনাইল বানানোর ব্যবসাতে ইনভেস্টমেন্ট:

সাধারণত ইনভেস্টমেন্ট সম্পর্কে আগে তো জানলাম, যে সাধারণ ফিনাইল বানাতে কত টাকা আপনার লাগতে পারে, ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা।

তবে হারবাল ফিনাইল বানানোর জন্য প্রথমে আপনাকে বেশি খরচ করতে হবে না, এই ফিনাইল বানানোর ক্ষেত্রে ৫০০০ টাকা ইনভেস্ট করে আপনি ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন।

কেননা এর মধ্যে যে সব জিনিসপত্রের প্রয়োজন পড়বে সেগুলি কিন্তু একেবারে প্রাকৃতিক। আর তাই এগুলো খুব সহজেই আপনি পেয়ে যাবেন।

ফিনাইল বানানোর ব্যবসাতে লাভ:

ফিনাইল এর ব্যবহার, ঘর, দপ্তর, হাসপাতাল, হোটেল, দোকান, রেস্তোরাঁ সব জায়গাতে করে থাকে মানুষ। পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করার জন্য তার সাথে সাথে মশা-মাছি যাতে ভালোভাবে বিদায় হয় ঘর থেকে তার জন্যে কিন্তু এই ফিনাইল ব্যবহার করা হয়। কীটনাশক হিসেবে অনেকে ব্যবহার করে থাকেন, জীবাণুনাশক বলতে পারেন।

আর তাই এইজন্য মার্কেটে এর চাহিদা প্রচুর। প্রতিটি ঘরে এর ব্যবহার একেবারে অবশ্যম্ভাবী। এই ফিনাইল আপনি কম করে ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা প্রতিমাসে উপার্জন করতে পারবেন। কেননা এটি অধিক মাত্রায় ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

ফিনাইল এর প্যাকেজিং:

ফিনাইল বানানোর মত ফিনাইল এর প্যাকেজিং কিন্তু খুবই সহজ।

#১) সবার প্রথমে আপনাকে খেয়াল রাখতে হবে যে আপনি যে ফিনাইলের প্যাকিং করবেন তার পরিমাণ কতটা হবে। সাধারণত হাফ লিটার অথবা সবথেকে বেশি ১ লিটার বোতল তৈরি করে মার্কেটে বিক্রি করে অন্যান্য কোম্পানি।

#২) এরপরে এই বোতলে আপনার বানানো ফিনাইল ভরতে হবে, একবার ফিনাইল ভরে যাওয়ার পর সেই বোতলের মুখ বন্ধ করে সিল করতে হবে। তারপর বোতলের গায়ে আপনার কোম্পানির ব্র্যান্ড স্টিকার লাগিয়ে মার্কেটে বিক্রি করতে পারেন।

ফিনাইল বানানোর ব্যবসাতে জায়গার প্রয়োজনীয়তা:

এই ব্যবসাটি শুরু করার জন্য সবার প্রথমে যে বিষয়টি সব থেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ যে, অধিক পরিমাণে আপনার জায়গার প্রয়োজন পড়বে না।

খুবই কম জায়গার মধ্যে ফিনাইল বানিয়ে আপনি প্যাকিং করে সেগুলিকে স্টোর করে রাখতে পারবেন। এই ব্যবসাটি ২০০ বর্গ ফুট এর অন্তর্গত জায়গার মধ্যে আপনি শুরু করতে পারেন।

ফিনাইল বানানোর ব্যবসার জন্য রেজিস্ট্রেশন:

ব্যবসা যাই হোক না কেন, সেটা ছোট হোক অথবা বড়, রেজিস্ট্রেশন কিন্তু আপনাকে করাতেই হবে। এটা কিন্তু আপনার ভালোর জন্যই। এই ব্যবসার রেজিস্ট্রেশন করার সবথেকে সহজ সরল উপায় হলো এম এস এম ই দ্বারা আপনি শুরু করতে পারেন।

এই ব্যবসাটি কে আপনি ভালোভাবে চালিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য যে সমস্ত রেজিস্ট্রেশন আপনার প্রয়োজন পড়বে সেগুলি হল:

#১) সবার প্রথমে আপনাকে এই ব্যবসার জায়গার রেজিস্ট্রেশন করাতে হবে, এর সাথে সাথে এই ব্যবসা সম্পর্কিত ব্যাংক একাউন্ট বানাতে হবে, কোম্পানির নামে প্যান কার্ডও অবশ্যই প্রয়োজন।

#২) এরপর আপনার বানানো প্রোডাক্ট এর বিশ্বাসযোগ্যতা বাড়ানোর জন্য আইএসআই ট্রেডমার্ক ও অবশ্যই নিতে হবে। এর জন্য বিউরো অফ ইন্ডিয়ান স্ট্যান্ডার্ড (Bureau of Indian Standards) থেকে এর আবেদন করতে পারেন।

#৩) এরপর বর্তমান নিয়ম অনুসারে আপনাকে আপনার ব্যবসার উদ্যোগ আধার রেজিস্ট্রেশন করাতে হবে।

এই ব্যবসার জন্য মার্কেটিং:

প্রতিটি ব্যবসা মার্কেটিং এর উপরে কিন্তু নির্ভর করে আপনি যত ভালো মার্কেটিং করতে পারবেন তত ভালো আপনার উপার্জন সম্ভব হবে। আপনার বানানো ফিনাইল হোলসেল অথবা রিটেল বিক্রি করতে পারেন। বিক্রি করার জন্য আপনাকে বিভিন্ন রিটেলার এর সাথে যোগাযোগ করতে হবে, এবং তার সাথে আপনার প্রোডাক্ট তাদেরকে দিতে হবে।

যদি আপনি রিটেল বিক্রি করতে চান, তাহলে এর জন্য আপনাকে একটি দোকান নিতে হবে, সেখানে আপনি রিটেল ফিনাইল বিক্রি করতে পারেন। যেখানে আরো অন্যান্য পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করা জিনিসপত্রর সাথে আপনার বানানো ফিনাইল ও রাখতে পারেন যেগুলি অনায়াসেই বিক্রি হয়ে যেতে পারে।

এমন ভাবে একেবারে কম টাকা ইনভেস্ট করে, বলতে গেলে ১০,০০০ থেকে ১৫,০০০ টাকার মধ্যে আপনি ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন। আর সবসময়ের জন্য চলতে থাকা এই ব্যবসাটি থেকে আপনি ভালোমতো উপার্জন করতে পারবেন। কেননা ফিনাইল এর চাহিদা কখনোই কমবেনা এর ব্যবহার সবসময়ের জন্য বজায় থাকবে।

আপনাদের এই তথ্য কেমন লেগেছে?

এই পোস্টে মতামত দিতে একটি স্টারে ক্লিক করুন!

Average rating 4.7 / 5. Vote count: 3

No votes so far! Be the first to rate this post.

যেহেতু আপনি এই পোস্টটি দরকারী বলে মনে করেছেন ...

সোশ্যাল মিডিয়াতে আমাদের অনুসরণ করুন!

আমরা দুঃখিত যে এই পোস্টটি আপনার জন্য দরকারী ছিল না!

চলুন আমাদের এই পোস্ট উন্নত করা যাক!

আমাদের বলুন কিভাবে আমরা এই পোস্ট উন্নত করতে পারি?

Leave a Comment