ব্রণের সমস্যা দূর করার অব্যর্থ উপায়

0
(0)

ত্বকের সমস্যার মধ্যে সবচেয়ে বিরক্তিকর এবং সৌন্দর্যহানিকর সমস্যা হচ্ছে ব্রণ। ব্রণ এমন একটি সমস্যা যা আপনার সুন্দর চেহারা একেবারেই বিভৎস্য করে তুলতে সক্ষম।

বয়সন্ধিঃকালে ব্রণের সমস্যা দেখা দেওয়া স্বাভাবিক হলেও অতিরিক্ত সংক্রমণ হলে অবশ্যই চিকিৎসা করাতে হবে। তবে সংক্রমণ যদি খুব বেশী না হয় তবে ঘরোয়াভাবে এর সমাধান করা সম্ভব। কিছু সচেতনতা, অভ্যাসের পরিবর্তন, খাদ্যাভ্যাস ও পরিচ্ছন্নতাই পারে ব্রণ থেকে মুক্তি দিতে।  

আমাদের আজকের পোস্ট সাজানো হয়েছে ব্রণের সমস্যা দূর করার কিছু অব্যর্থ উপায় নিয়ে। আশা করি পোস্টটি থেকে ব্রণ থেকে মুক্তির উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন। চলুন দেরী না করে মূল আলোচনায় যাওয়া যাক।

ব্রণের সমস্যা দূর করার কিছু অব্যর্থ উপায়

১. নিয়মিত ত্বক পরিষ্কার

ব্রণ মূলত অপরিষ্কার ত্বকেই বেশী হয়। এই সমস্যা দূর করতে ত্বক প্রতিদিন সঠিক নিয়মে পরিষ্কার করতে হবে। সপ্তাহে দুইদিন স্ক্রাবিং করতে হবে।

আর যদি মেকআপ করেন তাহলে প্রতিদিন বাইরে থেকে ফিরে মুখ প্রথমে বেসন দিয়ে ৩-৪ মিনিট ম্যাসাজ করে পাতলা কাপড় দিয়ে হালকা ঘষে তারপর কুসুম গরম জলে ধুয়ে নিন। এরপর ফেসওয়াস দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন।

তারপর টোনার বা ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন। এতে করে ত্বকে ব্রণের সংক্রমণ দেখা দেবেনা। ত্বকের লোপকুপ পরিষ্কার থাকলে ব্রণের সমস্যা এমনিতেই কমে যাবে।

২. প্রচুর জল পান করুন

শরীরে পানির ঘাটতি হলেই ব্রণের সমস্যা বেশী দেখা দেয়। তাই পর্যাপ্ত জল পান করুন। প্রতিদিন শরীরের চাহিদা পূরণে ৮-৯ গ্লাস জল পান করা প্রয়োজন। তাহলেই ব্রণের সমস্যা থেকে অনেকটাই মুক্ত থাকতে পারবেন।

৩. প্রচুর সবজী ও ফল খান

প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় প্রচুর সবজী ও ফল রাখুন।  এগুলো ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায় ও জলের পরিমান ঠিক রাখে। ব্রণ হওয়ার জীবাণু ধ্বংস করে। শরীরে প্রয়োজনীয় ভিটামিন ও জল না থাকলে ব্রণের সংক্রমণ বেশী হয়।

৪. লেবুর রস পান করুন

যাদের ব্রণের সমস্যা রয়েছে তারা প্রতিদিন সকালে খালিপেটে একগ্লাস কুসুম গরম জলে লেবু ও মধু এবং হালকা লবণ মিশিয়ে পান করুন।।এতে শরীরের বিষাক্ত পদার্থ দূর হবে। ব্রণের সমস্যা কমে যাবে।

৫. নিমপাতার প্যাক

সকল ধরনের চর্মরোগ সারাতে নিমপাতার কোন জুড়ি নেই। এটা ব্রণের সংক্রমণ কমাতে অব্যর্থভাবে কাজ করে।

ত্বকের যেসব স্থানে ব্রণ হয়েছে সেখানে নিমবাটা বেটে চন্দনগুড়া ও হলুদ ও বাদাম মিশিয়ে মুখে লাগান। ১৫-২০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। এটা ব্রণের সংক্রমন কমিয়ে দেবে, সেই সাথে ত্বকের দাগও দূর করবে।

৬. ভাজাপোড়া এড়িয়ে চলুন

পেটের সমস্যা থেকেও ব্রণের সমস্যা দেখা দেয়। ব্রণের সংক্রমণ এড়াতে ভাজাপোড়া,  তেলেভাজা খাবার এড়িয়ে চলুন। প্রচুর জল ও সবজী খান। শরীরে বিষাক্ত পদার্থ না জমলে ব্রণের সমস্যাও কমে যাবে।

৭. পরিচ্ছন্ন থাকুন

ব্রণের সমস্যা এড়াতে ব্যক্তিগত পরিচ্ছন্নতা জরুরী। যেসব প্রসাধনী ব্যবহার করছেন তা ডেট এক্সপায়ারড কিনা দেখে নিন। অপরিষ্কার রুমাল, টাওয়েল বা পোশাক-পরিচ্ছদ ব্যবহার করবেন না। এগুলো ত্বকের জন্য ক্ষতিকর।

সবসময় পরিচ্ছন্ন থাকুন। অপরিষ্কার হাত মুখে দেবেন না। বিছানার বালিশ,  চাদর নিয়মিত কুসুম গরম জলে পরিষ্কার করুন। ব্রণের সমস্যা দূর হয়ে যাবে।

উপসংহার

সমস্যা থাকলেই তার সমাধানও আছে। ব্রণ হলেই আমরা একরকম দিশেহারা বোধ করি। কি করা উচিত তা আমাদের মাথায় আসেনা। কিন্তু এ সমস্যা দুর করতে আমাদের কিছু অভ্যাস পরিবর্তনই কার্যকরভাবে সমস্যার সমাধান করতে পারে।

খাদ্যাভাস, পরিচ্ছন্নতা, রুপচর্চা ইত্যাদি কিছু উপায় অবলম্বন করে আমরা ব্রণের প্রকোপ কমিয়ে ফেলতে পারি। এরপরেও সমস্যার সমাধান না হলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ঔষধ সেবন করতে হবে। তবে ঔষধ সেবনের পাশাপাশি অবশ্যই নিয়ম মানতে হবে। নাহলে ঔষধে কোন কাজ করবে না।

উপরিউক্ত নিয়ম অনুসরণ করলে অবশ্যই ভাল ফলাফল পাবেন। আশা করি পোস্টটি ব্রনের সমস্যা দূর করতে আপনাদের উপকারে আসবে। এ বিষয়ে কোন মতামত বা প্রশ্ন থাকলে আমাদের কমেন্ট করতে পারেন। আমরা অবশ্যই তথ্য জানিয়ে আপনাকে সাহায্য করার চেষ্টা করব। আজকের মত এখানেই শেষ করছি। ধন্যবাদ সবাইকে

আপনাদের এই তথ্য কেমন লেগেছে?

এই পোস্টে মতামত দিতে একটি স্টারে ক্লিক করুন!

Average rating 0 / 5. Vote count: 0

No votes so far! Be the first to rate this post.

যেহেতু আপনি এই পোস্টটি দরকারী বলে মনে করেছেন ...

সোশ্যাল মিডিয়াতে আমাদের অনুসরণ করুন!

আমরা দুঃখিত যে এই পোস্টটি আপনার জন্য দরকারী ছিল না!

চলুন আমাদের এই পোস্ট উন্নত করা যাক!

আমাদের বলুন কিভাবে আমরা এই পোস্ট উন্নত করতে পারি?

Leave a Comment