2022 আইসক্রিম কোন বানানোর ব্যবসা শুরু করবেন কিভাবে | 2022 Ice Cream Cone Making Business Idea in Bengali

Ice Cream Cone Making Business Idea 2022 (আইসক্রিম কোন বানানোর ব্যবসা 2022): How to Start Ice Cream Cone Making Business in India? | Ice Cream Cone Making Business Idea in Bengali | Ice Cream Cone Making Business Plan in Bengali. জানুন আইসক্রিম কোন বানানোর ব্যবসা শুরু করার সম্পূর্ণ পদ্ধতি এবং লাভ ও ইনভেস্টমেন্ট

আইসক্রিম এমন একটি খাদ্যবস্তু যাকে সব বয়সের মানুষ ভীষণ মজা করে খেয়ে থাকেন। আইসক্রিম পছন্দ করেন না এমন মানুষ মেলা ভার। বাচ্চা থেকে বুড়ো সকলেই কিন্তু আইসক্রিম খেতে পছন্দ করেন। মার্কেটে বিভিন্ন রকমের আইসক্রিম পাওয়া যায়, বিভিন্ন রকমের আইসক্রিম সকলের পছন্দের একটি খাবার। আইসক্রিমের আবার অনেক রকমের ভাগ আছে। বিভিন্ন রকমের আইসক্রিম তৈরি করে আপনি একটি ছোট আকারের ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

বিয়ে বাড়ি এবং অন্যান্য অনুষ্ঠানের আয়োজন এ আইসক্রিম এর স্টল থাকবেই থাকবে। তাই আপনি খুব সহজেই অল্প কিছু টাকা ইনভেস্ট করে আইসক্রিম এর কোন অথবা খোল বানানোর ব্যবসা করতে পারেন।

আইসক্রিম কোন বানানোর ব্যবসা - Ice Cream Cone Making Business Idea
আইসক্রিম কোন বানানোর ব্যবসা – Ice Cream Cone Making Business Idea

তার সাথে সাথে যদি গরম পড়ে প্রচুর পরিমাণে, সে ক্ষেত্রে গরমের সময়ে আইসক্রিমের বিক্রি কয়েকগুণ বেড়ে যায়। তাই আইসক্রিম এর কোন বানিয়ে আপনি প্রচুর টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

আইসক্রিমের কোন বানানোর জন্য মেটেরিয়ালস অথবা কাঁচামাল:

আইসক্রিমের কোন বানানোর জন্য যে কাঁচামাল গুলি প্রয়োজন, সেগুলি হল:-

১) গমের আটা: ২০০০-২২০০ টাকা প্রতি কুইন্টাল।

২) ভুট্টার আটা: ১৩০০-১৭০০ টাকা প্রতি কুইন্টাল।

৩) সোডা: ৪৫-৬০ টাকা প্রতি কিলোগ্রাম

৪) বেকিং পাউডার: ২৯০ টাকা প্রতি কিলোগ্রাম

৫) চিনি: ৪১০০-৪৫০০ টাকা প্রতি কুইন্টাল

৬) ফুড কালার: ৫০-৭০ টাকা প্রতি শ গ্রাম।

৭) এরারুট পাউডার: ১০০-১৩০ টাকা প্রতি কিলোগ্রাম

কাঁচামাল গুলি কোথা থেকে কিনবেন:

আইসক্রিমের কোন বানানোর জন্য কাঁচামাল গুলি আপনি লোকাল মার্কেট থেকে কিনে নিতে পারবেন, আবার ঘরে বসে অনলাইনের মাধ্যমেও কিনতে পারেন।

AmazonClick here
IndiamartClick here

আইসক্রিমের কোন বানানোর মেশিন:

আইসক্রিমের কোন বিভিন্ন রকমের আইসক্রিম এর ক্ষেত্রে কাজে আসে, আর এই কোন বানানোর জন্য বিশেষ রকমের মেশিন এর প্রয়োগ করা হয়ে থাকে। এই মেশিনগুলো সম্পূর্ণ অটোমেটিক সিস্টেমে চলে। এই মেশিনের সহায়তায় একজন ব্যক্তি খুব সহজেই আইসক্রিমের কোন বানিয়ে এর ব্যবসা অনায়াসেই করতে পারেন।

মেশিন কোথা থেকে কিনবেন:

Ice Cream Cone Making Machine (Small)Click here
Ice Cream Cone Making Machine (All)Click here

এই মেশিন আপনি উপরে দেওয়া ওই লিঙ্ক গুলির মাধ্যমে অনলাইনেও কিনতে পারবেন।

মেশিনের দাম:

ছোট রুপে এই ব্যাবসা করার জন্য মেশিন ৬-১৫হাজার থেকে শুরু করে ৭০হাজার টাকার মধ্যে পেয়ে যাবেন। যদি বড় আকারে ব্যবসা করতে চান সেক্ষেত্রে এই মেশিনের দাম কম করে ১.৫ লাখ টাকা থেকে ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত আপনি পেয়ে যাবেন।

আইসক্রিমের কোন বানানোর প্রক্রিয়া:

১) সবার প্রথমে আপনাকে আটা, সোডা, চিনি, বেকিং পাউডার, ইত্যাদির একসাথে খুব ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে।

২) তারপর এই মিশ্রণটি কে মেশিনের ছাঁচ অথবা ডাইসে ঢালতে হবে। মিশ্রণটি বানানোর সময় আপনি রং অথবা ফুড কালার দিতে পারেন, আপনি যে রঙের আইসক্রিমের কোন বানাতে চাইছেন।

৩) মিশ্রণটি তৈরি করে নেওয়ার পর ২৫ থেকে ৩০ মিনিট ঢেকে রাখতে হয়।

৪) তারপর মেশিন কে চালু করতে হয় মেশিন থেকে গরম করার জন্য। মেশিনের সাথে সাথে আইসক্রিমের কোন বানানোর ডাইস ও দিয়ে দেওয়া হয়, যার মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই আইসক্রিমের কোন বানাতে পারবেন।

৫) মেশিনের ডাইস এ এই মিশ্রণটি ঢেলে দেওয়ার পর ১২ থেকে ১৫ মিনিট এর জন্য বন্ধ করে দিতে হয়, এইভাবে ১২ থেকে ১৫ মিনিটের মধ্যে আইসক্রিমের কোন তৈরি হয়ে যাবে।

৬) তারপর আইসক্রীমের কোনগুলি বার করে প্যাকিং করে মার্কেটে বিক্রি হওয়ার জন্য পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

আইসক্রিম কোন এর প্যাকেজিং:

আইসক্রিমের কোন যখন তৈরি হয়ে যায়, তখন ভীষণ মুচমুচে হয় এবং সহজেই ভেঙে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই প্যাকিং করার সময় বিশেষভাবে খেয়াল রাখাটা প্রয়োজন, যাতে কোনভাবে এ কোন গুলির  আকৃতি নষ্ট না হয়ে যায়, অথবা ভেঙে না যায়।

না হলে আইসক্রিম এর মধ্যে দেওয়া যাবেনা। এগুলিকে প্যাকিং করার জন্য একদম সঠিক মাপের প্যাকেট এর প্রয়োজন হয়। একটা কোণের মধ্যে আরেকটা কোন দিয়ে সারি সারি করে প্যাকেট করতে পারেন আইসক্রিমের কোন গুলি।

আইসক্রিম কোন বানানোর ব্যবসার জন্য জায়গার প্রয়োজনীয়তা:

যেহেতু এই ব্যবসা করার জন্য আপনার মেশিনের প্রয়োজন পড়বে। সেক্ষেত্রে মেশিন বসিয়ে এবং তার আশেপাশে আইসক্রিমের কোনগুলি প্যাকিং করার জন্য কিছুটা জায়গা আপনার রাখতে হবে।

সে ক্ষেত্রে ২০০ বর্গমিটার জায়গা হলে আপনি খুব ভালোভাবে এই ব্যবসাটি শুরু করতে পারবেন। এই জায়গার মধ্যেই আপনি এই ব্যবসার সমস্ত কাজ সম্পন্ন করতে পারবেন।

এই ব্যবসার ক্ষেত্রে আপনার ইনভেস্টমেন্ট:

এ ব্যবসাটা একটু বড় ধরনের ব্যবসা, সে ক্ষেত্রে আপনি ইনকাম করতে পারবেন প্রচুর পরিমাণে। এর চাহিদা সারা বছরের সাথে সাথে গরমের সময় আরও কয়েকগুণ বেড়ে যায়। তাই এই ব্যবসা শুরু করতে গেলে সবকিছু মিলিয়ে আপনার ইনভেস্ট করতে হতে পারে ৭.৫ লাখ টাকা পর্যন্ত।

এই টাকা দিয়ে আপনি আপনার এই ব্যবসাটি একদম স্থায়ী ভাবে শুরু করতে পারবেন, এবং খুব হাই কোয়ালিটির মেশিন নিতে পারবেন, যা দিয়ে ভবিষ্যতে ভালো মত ইনকাম করতে পারবেন আপনি।

আইসক্রিম কোন বানানোর ব্যবসার মার্কেটিং:

অন্যান্য ব্যবসার মতো এ ব্যবসায় ক্ষেত্রে আপনাকে মার্কেটিং করতে হতে পারে, তাছাড়া এই ব্যবসাটি সম্পূর্ণরূপে মার্কেটিং এর উপর নির্ভর করে। শহরে এমন অনেক দোকান আছে যেখানে আপনি আপনার বানানো এই আইসক্রিমের কোন গুলি খুব সহজে বিক্রি করতে পারবেন।

সেখানে আপনি হোলসেল দামে বিক্রি করতে পারেন, আবার যেখানে আইসক্রিম বানানোর জিনিসপত্র বিক্রি করা হয় সেখানেও কিন্তু এগুলো বিক্রি হতে পারে খুব সহজে। আবার অনেকে এমন অনেকেই আছেন যারা বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে ঘুরে আইসক্রিম এর ব্যবসা করে থাকেন, তাদের কাছেও কিন্তু এই আইসক্রিমের কোন গুলি বিক্রি করতে পারেন আপনি। আর তাদের থেকে উপার্জন করতে পারবেন অনায়াসেই।

আইসক্রিম কোন বানানোর ব্যবসাতে আপনার লাভ:

প্রথমেই বলা হয়েছে যে, এই ব্যবসাটি বেশ বড় আকারের একটি ব্যবসা। আপনি যদি নিয়মিত রূপে ব্যবসাটিকে চালিয়ে যেতে পারেন, তাহলে অধিক পরিমাণে উপার্জন করতে পারবেন। তার সাথে সাথে এর মার্কেটিং টা যদি আপনার ভাল হয়, তাহলে প্রতি মাসে কমপক্ষে এক লাখ টাকা পর্যন্ত আপনি ইনকাম করতে পারবেন এই ব্যবসা থেকে।

আইসক্রিম কোন বানানোর ব্যবসার জন্য লোন:

যদি এই ব্যবসাটি শুরু করার সময় আপনার কাছে পর্যাপ্ত পরিমাণে টাকা না থেকে থাকে, তাহলে এই ব্যবসাটি শুরু করার জন্য লোন নিতে পারেন। সরকারের এম এস এম ই বিভাগ এর তরফ থেকে সম্পূর্ণ ব্যবসার খরচের ৮০% পর্যন্ত লোন দিয়ে থাকে। আপনি যদি চান তাহলে আপনার ব্যবসার প্রজেক্ট রিপোর্ট তৈরি করে ব্যাংক থেকে লোন নেওয়ার জন্য আবেদন করতে পারেন।

আইসক্রিম কোন বানানোর ব্যবসার জন্য লাইসেন্স:

আইসক্রিমের কোন একটি খাদ্য বস্তু এবং একেবারে ছোট বাচ্চা থেকে বয়স্ক মানুষরা এদিকে বেশ আনন্দের সাথে খেয়ে থাকেন। তাই এই ব্যবসার জন্য আপনাকে রেজিস্ট্রেশন করাতে হবে।  তার সাথে সাথে আপনার ব্যবসার রেজিস্ট্রেশন আরওসি এর অন্তর্গত করতে হবে।

তার সাথে সাথে ট্রেড লাইসেন্স আর প্যান কার্ড তৈরি করাটাও কিন্তু প্রয়োজনীয়। এরপরে আপনার বানানো আইসক্রিমের কোণ গুলির জন্য FSSAI থেকেও লাইসেন্স তৈরি করতে হবে। আপনার ব্যবসাকে SSI ইউনিট এর অন্তর্গত রেজিস্ট্রেশন করানো অত্যন্ত প্রয়োজনীয়।

এমনভাবে আপনার এই ব্যবসা থেকে প্রতিমাসে অধিক পরিমাণে টাকা ইনকাম করতে পারবেন, তার সাথে সাথে এই ব্যবসার মাধ্যমে কম করে ৬ থেকে ৭ জনকে আপনি কাজে রাখার মাধ্যমে অথবা কর্মচারী হিসেবে রাখার মাধ্যমে তাদেরকে রোজগার দিতে পারবেন। বলতে গেলে ৬ থেকে ৭ জনকে আপনি বেকারত্ব থেকে বাঁচাতে পারবেন।

Leave a Comment