What is Bike Loan? How to Apply for Bike Loan? Eligibility & Documents

Bike Loan: How to Apply for Bike Loan? Know Eligibility and Documents. বাইক লোন কি? বাইক লোনের আবেদনের জন্য কি কি ডকুমেন্টস প্রয়োজন হয়? এবং কিভাবে বাইক লোন আবেদন করতে হয়?

আমাদের দেশে অনেক দিন থেকেই বাইকের জনপ্রিয় বাহন হয়ে উঠেছে। অনেকেই হয়তো রাস্তার যানজট থেকে বাঁচতে বাইক কেনার কথা ভাবছেন কিন্তু আপনার সঞ্চয় বাইকের বাজেটের সাথে পেরে উঠছেনা।

তাই কিনবো কিনবো করেও বাইকটা কেনা হচ্ছে না। আপনার জন্য সুসংবাদ নিয়ে এলো বাইক লোন। এখন শুধুমাত্র ব্যাংক নয়, বাইক সরবরাহ প্রতিষ্ঠানগুলিও সহজ শর্তে গ্রাহকদের বাইক লোন দিচ্ছে।

আসুন আজ দেখে নেই বাইক লোন কি ? বাইক লোন পেতে কি কি যোগ্যতার প্রয়োজন হয় ? বাইক লোনের আবেদনের সাথে কি কি ডকুমেন্টস জমা দিতে হয় ?

বাইক লোন কি ?

বাইক লোন (Bike Loan) একটি অনিরাপদ বা জামানতবিহীন লোন, যার মাধ্যমে আপনি আপনার পছন্দের মোটরসাইকেল বা বাইক কিনতে পারবেন এবং মাসিক কিস্তিতে আপনি আপনার মোটর সাইকেল বা বাইকের লোন পরিশোধ করতে পারবেন। ভারতের ব্যাংক, নন- ব্যাংকিং আর্থিক সংস্থা এবং মোটর সাইকেল কোম্পানীও বাইক লোন দিয়ে থাকে।

How to Apply for Bike Loan? Know Eligibility and Documents
How to Apply for Bike Loan? Know Eligibility and Documents

বাইক লোন পেতে গেলে আপনার কিছু নির্দিষ্ট যোগ্যতা থাকতে হবে যদিও অনেক সময় কিছু কিছু ব্যাংক বা প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব আলাদা যোগ্যতার মাপকাঠি ঠিক করা থাকে। আসুন এই বিষয়ের কিছু সাধারন যোগ্যতার মাপকাঠি দেখে নেই।

ক্রমিকবিবরনশর্ত
বয়স২১-৬৫ বছর
জাতীয়তাভারতীয়
পেশাচাকরীজীবি অথবা ব্যবসায়ী
কাজের অভিজ্ঞতাবর্তমান প্রতিষ্ঠানে নূন্যতম ৬ মাসের অভিজ্ঞতা
নুন্যতম আয় (চাকরিজীবী৫০,০০০ টাকা (বার্ষিক)
সুদের হার৯.৫% থেকে ১৭.৫% (বার্ষিক)
সময়সর্বোচ্চ ৭ বছর
সর্বোচ্চ লোনসীমা১০ লক্ষ টাকা
ক্রেডিট স্কোর৭৫০

বাইক ইন্স্যুরেন্স এক এক ঋনদাতা প্রতিষ্ঠান এক এক শর্ত দিয়ে থাকে, তাই আমরা চেষ্টা করছি ভারতের কিছু কোম্পানীর বাইক লোন দেয়ার শর্ত আপনাদের সাথে শেয়ার করতে।

ক্রমিককোম্পানীর নামবয়সের সীমামাসিক আয়কাজের অভিজ্ঞতা
০১স্টেট ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া২১-৬৫ বছর১২,৫০০ টাকানূন্যতম ১ বছর
০২ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া২১-৬৫ বছর
০৩HDFC Bank২১-৬৫ বছর৬,০০০ টাকানূন্যতম ১ বছর
০৪ইউনিয়ন ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া১৮-৭০ বছর
০৫ইন্ডিয়ান ব্যাংকনূন্যতম ২১ বছরনূন্যতম ৩ বছর
০৬পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংক১৮-৬০ বছর১০,০০০ টাকা
০৭ব্যাংক অফ বারোডা১৮-৭০ বছর
০৮কানারা ব্যাংকনূন্যতম ২১ বছর২০,৮৩৩ টাকা
০৯UCO Bank২১-৬০ বছর৮,০০০ টাকা

লোনের জন্য কি কি ডকুমেন্টস প্রয়োজন হয়

১) ব্যক্তির স্বাক্ষর করা আবেদনপত্র।

২) ৩ টি পাসপোর্ট সাইজ ছবি।

৩) সর্বশেষ ছয়মাসের ব্যাংক স্টেটমেন্ট।

৪) নিজের পরিচয়পত্র এবং ঠিকানার প্রমানের ফটোকপি (ভোটার কার্ড, PAN কার্ড, পাসপোর্ট বা ড্রাইভিং লাইসেন্স)।

৫) এমপ্লইয়ি আইডি কার্ডের ফটোকপি।

৬) বিদ্যুত বিল অথবা টেলিফোন বিলের ফটোকপি।

বাইক লোন পেতে কি কি বিষয় ভূমিকা পালন করে থাকে ?

অনেক সময়েই দেখা যায় যে, একসাথে লোনের আবেদন করেও দুইজন ব্যক্তি সমান অংকের লোন পান না। এর কারন অনেক কিছুর উপর নির্ভর করে। আসুন জেনে নেই কি কি বিষয়ের উপর লোনের অংক নির্ধারিত হয়।

১) বয়সঃ আপনাকে বাইক লোন পেতে হলে আপনি অবশ্যই ২১ বছর বয়সের বেশি হতে হবে। ২১ বছর বয়সের পূর্বে আপনি কোন ভাবেই বাইক লোনের জন্য আবেদন করতে পারবেন না।

২) স্থানঃ আপনি কোথায় থাকেন এটা অনেকটা গুরুত্বপূর্ন । কারন শহরে ও গ্রামের মানুষের জীবনযাত্রার ব্যয়ের অনেক পার্থক্য। পার্সোনাল লোন পেতে হলে গ্রামের মানুষের চাইতে শহরের মানুষের নূন্যতম আয় বেশী হতে হয়।

৩) আয়ঃ আপনার মাসিক আয় এ ক্ষেত্রে অনেকটা গুরুত্ববহন করে থাকে। আপনার মাসিক আয় ১৫ হাজার টাকা হলে আপনাকে যত টাকা লোন পাবার উপযোগী হবেন, আপনার মাসিক আয় ১ লক্ষ টাকা হলে আপনি তার কয়েকগুন লোন পাবার জন্য বিবেচিত হতে পারেন।

৪) কোন প্রতিষ্ঠানে কাজ করেনঃ আপনি কোন প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন সেটা বাইক লোন নেয়ার ক্ষেত্রে গুরুত্ববহন করে থাকে। আপনার প্রতিষ্ঠান যদি অনেক বড় এবং অনেকদিন থেকে সুনামধারী হয়ে থাকে, তবে আপনার লোন পাবার সম্ভাবনা অনেক বেড়ে যাবে।

৫) বর্তমান লোনের পরিমানঃ আপনার যদি বর্তমান কোন লোন থাকে সেটা কি পরিমান অংকের সেটা বাইক লোন নেয়ার সময় বিবেচ্য বিষয় হয়ে থাকে।

৬) পূর্বের লোন পরিশোধের ইতিহাসঃ আপনার পূর্বে লোন নেয়া থাকলে সেই লোন পরিশোধ করার ইতিহাস ব্যাংক কর্মকর্তা খতিয়ে দেখবেন এবং আপনি পূর্বের লোন ভালোভাবে পরিশোধ করার রেকর্ড থাকলে আপনার বাইক লোন পেতে সুবিধা হবে।

৭) ক্রেডিট স্কোরঃ আপনার ক্রেডিট স্কোর আপনার লোন পরিশোধের সক্ষমতার প্রমান দেবে, আপনার ক্রেডিট স্কোর যতকম হবে আপনার লোন পাবার সম্ভাবনা তত কমে যাবে, তাই ক্রেডিট স্কোর খুব গুরুত্বপূর্ন বিষয়।

বাইক লোনের সুদের হারঃ

বাইক লোনের (Bike Loan) ক্ষেত্রে আলাদা আলাদা প্রতিষ্ঠান আলাদা আলাদা সুদের হার নির্ধারন করে থাকে। আমরা ভারতের কিছু ব্যাংকের বাইক লোনের ক্ষেত্রে সুদের হার নিয়ে আপনাদের জানানোর চেষ্টা করছি।

ক্রমিকব্যাংকের নামসুদের হারপ্রতি দশ হাজার টাকা ঋনে মাসিক কিস্তি
০১SBI Bank১২.৬৫ %৩৩৫ টাকা ৩ বছরের জন্য
০২HDFC Bank১৪.০৩ %২৭৩ টাকা ৪ বছরের জন্য
০৩Panjab National Bank১০.৭০ %২১৬ টাকা ৫ বছরের জন্য
০৪Induslnd Bank১২.০০ %৩৩২ টাকা ৩ বছরের জন্য
০৫Allahabad Bank১১.৮০ %২৬২ টাকা ৪ বছরের জন্য
06Andhra Bank১০.৩৫ %২১৪ টাকা ৫ বছরের জন্য
০৭Union Bank of India১১.৫৫ %৩৩০ টাকা ৩ বছরের জন্য
০৮United Bank of India১১.০০ %২১৭ টাকা ৫ বছরের জন্য
০৯Corporation Bank১২.৩৫ %৩৩৪ টাকা ৩ বছরের জন্য
১০Indian Bank০৯.৬৫ %২১১ টাকা ৫ বছরের জন্য

(*সুদের হার পরিবর্তনশীল, বর্তমান সময়ের সুদের হার ব্যাংক থেকে যাচাই করে নেবেন)

এই হলো বাইক লোনের নানা দিক। আপনার হয়তো সহজেই বুঝতে পেরেছেন বাইক লোন কারা পেতে পারে, বাইক লোন পেতে কি কি ডকুমেন্টস জমা দিতে হয়, সেই সাথে বাইক লোন নিলে কত দিনের মাঝে পরিশোধ করতে হয়।

বাইক লোন নিয়ে আপনাদের আর কোন জিজ্ঞাসা থাকলে আমাদের নিচে কমেন্ট করে জানান, চেষ্টা করবো পরবর্তীতে আপনাদের চাহিদা পূরন করতে।

Leave a Comment