ছেলেদের ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ানোর কয়েকটি কার্যকারী উপায়

ছেলেদের ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ানোর উপায়ঃ (Glowing Skincare Tips For Male Skin in Bengali) ছেলেরাও চাই উজ্জ্বল ও সুন্দর ত্বক, যেহেতু ছেলেদের ত্বক মেয়েদের থেকে আলাদা সেক্ষেত্রে ছেলেদের আলাদা ভাবে নিজেদের ত্বকের খেয়াল রাখতে হয়। আসুন জেনে নিন ছেলেদের ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ানোর কয়েকটি কার্যকারী উপায়।

সুন্দর মুখের জয় সর্বত্র, তাই না। মুখ হলো মনের আয়না, মুখে ফুটে ওঠে আপনার চরিত্রের অনেক অংশ। সে ক্ষেত্রে কিন্তু সুন্দর মুখের জয় সব জায়গায়। রূপচর্চা এবং ত্বকের চর্চা শুধুমাত্র কি মেয়েরাই করে থাকে? কখনোই নয়। ছেলেরাও পিছিয়ে নেই, ছেলে হোক অথবা মেয়ে ত্বক একই ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। তাই সেভাবে ত্বকের যত্ন নেওয়াটা বিশেষভাবে জরুরি।

সারাদিনের কাজ, ধুলোবালি, রাস্তার বিভিন্ন যানবাহনের ধোয়া, রোদের তাপ, সব শেষে ঘরে ফেরার পর আয়নাতে নিজের মুখটা দেখে চমকে ওঠার মতো অবস্থা হয়। কিভাবে বাড়ি থেকে বেরিয়ে ছিলেন আর কিভাবে ফিরছেন। ত্বকের উপরে কতটা ধকল গিয়েছে একবার ভেবে দেখুন। মুখে কালো কালো ছোপ, আর ধুলাবালিতে চেহারার উজ্জলতা কোথাও যেন হারিয়ে গেছে।

ছেলেদের ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ানোর উপায় - Glowing Skincare Tips For Male Skin
ছেলেদের ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ানোর উপায় – Glowing Skincare Tips For Male Skin

তবে এই সময় শুধুমাত্র জল, সাবান অথবা ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুলে কি সব দাগ, ছোপ, ময়লা বের হয়ে যায়? কারণ অনেকেই মনে করেন ছেলেদের ত্বকের যত্ন নেওয়ার কোনো প্রয়োজন নেই। কেন নেই বলুন তো! ছেলেদের ত্বক কি অন্যভাবে তৈরি!

তাতেও তো পলিউশন অ্যাটাক করতে পারে, ত্বককে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে। রূপচর্চা শুধুমাত্র মেয়েদের জন্য! এই ধারণাটা একেবারেই ভুল। এক্ষেত্রে কিন্তু সঠিক পরিচর্যা করলে ত্বকের উজ্জলতা আবার ফিরে আসতে পারে।

চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক, ছেলেদের ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ানোর জন্য কি কি পদক্ষেপ নিতে পারেন-

১) ধুলাবালি ও রোদ থেকে ত্বককে রক্ষা করা :

যতটা সম্ভব ধুলোবালি ও রোদ থেকে এড়িয়ে চলতে হবে আপনাকে। কারণ বাইরে রোদের তাপ ত্বকে পিগমেন্টেশন তৈরি করতে পারে। তারপরে সহজেই ত্বকে কালচে ছোপ পড়ে। অতিরিক্ত কড়া রোদে কাজ করা থেকে বিরত থাকতে হবে। দিনে কমপক্ষে চার থেকে পাঁচবার চোখেমুখে ঠান্ডা জলের ঝাপটা দেওয়া দরকার।

২) স্ক্রাব করুন :

সপ্তাহে কমপক্ষে দুই থেকে তিন দিন মুখে স্ক্রাব করতে পারেন। এখন বাজারে বিভিন্ন রকমের স্ক্রাব পাওয়া যায়। বিশেষ করে সাইট্রিক অ্যাসিড, গ্লিসারিন অয়েল, ফ্রুট যুক্ত স্ক্রাব গুলো ছেলেদের ত্বকের পক্ষে বিশেষভাবে উপযোগী।

ছেলেদের বাইরে বেশি কাজে কর্মে বের হতে হয়, সেই কারণে ধুলোবালির পরিমাণটা তাদের ত্বকের উপর অধিক পরিমাণে জমা হতে থাকে। সেই কারণেে স্ক্রাব করার পর স্কিনে জমে থাকা ধুলো বালি ময়লা বাইরে বেরিয়ে আসতে সাহায্য পায়। এর ফলে অতিরিক্ত তেল কে দূরে সরিয়ে স্ক্রিনকে সতেজ ও সুন্দর করে তোলে।

৩) আইস কিউব এর ব্যবহার :

রাতে ঘুমানোর আগে একটি আইস কিউব মুখে ভালোভাবে ঘষে লাগিয়ে নিন, এর ফলে ত্বকে রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক থাকবে। আর ত্বকে রক্ত সঞ্চালন সচল থাকলে ত্বক স্বাভাবিক ভাবেই উজ্জ্বল হতে শুরু করে। এরপরে যে কোন একটি মশ্চারাইজার ক্রীম লাগিয়ে কিছুক্ষণ ম্যাসাজ করে নিন।

৪) লেবুর ব্যবহার :

ছেলেদের ত্বকের যত্ন নিতে গিয়ে একটি লেবুর খোসা সমেত কেটে মুখে ভালভাবে লাগিয়ে নিন। লেবুতে থাকা সাইট্রিক অ্যাসিড আপনার ত্বকের অতিরিক্ত তেল বের করে দিতে সাহায্য করবে।

তার সাথে পিগমেন্টেশন, রোদে পোড়া দাগ, দূর করতে সাহায্য করে। লেবুতে থাকা ভিটামিন সি মুখের কালো ভাব দূর করে ত্বকে আলাদা উজ্জলতা ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে।

৫) ত্বকে শসার ব্যবহার :

প্রাকৃতিক ভাবে ত্বককে উজ্জ্বল করার জন্য শসা একটি বিশেষ উপকারী উপাদান। প্রতিদিন কাজের শেষে ঘরে ফিরে মুখ ধোয়ার আগে শসা দিয়ে মুখের ময়লা ঘষে তুলে ফেলার চেষ্টা করুন।

১৫ থেকে ২০ মিনিট ঘষতে পারেন মুখে। প্রতিদিন ব্যবহারের ফলে ত্বক আরো বেশি উজ্জ্বল হতে শুরু করে। এছাড়া শসার রস ত্বকে প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজার হিসেবেও কাজ করে।

৬) অয়েল ম্যাসেজ :

সারা দিনের ক্লান্তির পর ঘরে ফিরে যদি কারো কাছে অয়েল মেসেজ পাওয়া যায় তাহলে তো কোন কথাই নেই। অতিরিক্ত টেনশন মুক্ত হওয়া থেকে ত্বকের যত্ন টাও কিন্তু একসাথে হয়ে যাায়।

এক্ষেত্রে নারকেল তেল, অলিভ অয়েল, বাদাম তেল, দিয়ে শরীর ম্যাসাজ এর সাথে সাথে মুখেও ব্যবহার  করতে পারেন এসব তেল। সারাদিনের কষ্ট ক্লান্তি মুছে গিয়ে শরীরে আসবে আলাদা মাত্রা এবং ত্বকে থাকবে তারুণ্য উজ্জলতা।

৭) ত্বককে ময়েশ্চারাইজ রাখা :

ছেলে মানেই ত্বকের আলাদা করে কোনো যত্ন নেই, এমনটা কিন্তু ভাবতে যাবেন না। তাহলে খুব তাড়াতাড়ি মুখে বয়সের ছাপ পড়া থেকে কেউ আটকাতে পারবেনা।

সারা বছরই ত্বকে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে পারেন। ছেলেদের জন্য মশ্চারাইজার মার্কেটে পেয়ে যাবেন। বিশেষ করে শীতের দিনগুলিতে ত্বককে ময়েশ্চারাইজ রাখার চেষ্টা করুন, আদ্রতা বজায় রাখুন ত্বকে।

৮) শরীরকে হাইড্রেট রাখুন :

ত্বকের যত্ন করতে গিয়ে শরীরের যত্ন যদি হয়ে যায় তাহলে কেমন হয় বলুন তো ! তাই ত্বকের উজ্জ্বলতা ধরে রাখার জন্য ভিতর থেকে ট্রিটমেন্ট করাটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ ।

শরীরকে সবসময় হাইড্রেট রাখতে এবং ত্বকের উজ্জ্বলতা বজায় রাখতে প্রতিদিন পর্যাপ্ত পরিমান জল পান, নিয়মিত সুস্বাস্থ্যকর খাবার অভ্যাস, বিভিন্ন রকম রং-বেরংয়ের ফল, খাওয়া-দাওয়ার মাধ্যমে আপনার শরীরে থাকবে আলাদা এনার্জি।আর সেই এনার্জি ফুটে উঠবে আপনার সমস্ত শরীরের সাথে সাথে মুখের ত্বকেও, আপনাকে দেখাবে অনেক বেশি ফ্রেশ, সতেজ এবং তরুণ।

তাই শুধুমাত্র বাইরে থেকে নয়, শরীর এবং ত্বকের যত্ন নেওয়ার জন্য ভিতর থেকে ট্রিটমেন্ট করতে শুরু করুন, অর্থাৎ খাওয়া-দাওয়ার উপরে বিশেষ ধ্যান রাখাটা জরুরি। সঠিক পরিচর্যার মাধ্যমে আপনার ত্বক চকচক করতে শুরু করবে।

তাহলে আর কি, সারাদিনে এতো ব্যস্ততার মাঝে কাটানোর পর নিজের জন্য এতটুকু সময় কি বের করতে পারবেন না! নিশ্চয়ই পারবেন। নিজেকে সুস্থ, সবল সুন্দর দেখানোর জন্য এটুকু তো আপনি করতেই পারেন নিজের জন্য, কি বলেন!

Leave a Comment