2022 আধুনিক ফুলের দোকানর ব্যবসা শুরু করবেন কিভাবে? | 2022 Modern Flower Shop Business Idea in Bengali

Modern Flower Shop Business Idea 2022 (ফুলের দোকানর ব্যবসা 2022): How to Start Modern Flower Shop Business in Bengali | Flower Shop Business Plan in Bengali | Unique Flower Shop Business Idea and Business Plan in Bengali.

ফুল কে ভালোবাসে না বলুন তো! তাছাড়া এই ফুল বিভিন্ন রকমের কাজে ব্যবহার করা হয় এছাড়াও সমস্ত রকমের পূজা, জন্মদিন, বিবাহ, বিবাহ বার্ষিকী, ভালোবাসা দিবস, কাউকে প্রপোজ করা, সবকিছুতেই ফুল লাগবেই লাগবে।

কারণ ফুল মানুষের মনকে রিফ্রেশ করতে সাহায্য করে, তাই না। ভারতের প্রতি মাসে কোন না কোন দেব দেবীর পূজা হয়ে থাকে। আর সেই কারণে এখানে ফুলের ব্যবসা রমরমিয়ে চলবে।

Modern Flower Shop Business Idea in Bengali
Modern Flower Shop Business Idea in Bengali

তাছাড়া কোন বন্ধু বান্ধবের যেকোনো অনুষ্ঠানে অথবা বড় যেকোনো অনুষ্ঠান হোক না কেন, ফুলের বুকে দেওয়া হয়ে থাকে। তার জন্য সুন্দর তাজা ফুলের দরকার হয়। আর এটা একমাত্র পাওয়া যায় বড় ফুলের দোকান থেকে। যেটা আপনি যদি ব্যবসা টি করেন, তাহলে এ থেকে প্রচুর পরিমানে উপার্জন করতে পারবেন।

ফুলের দোকান করে ব্যবসা করার আইডিয়া (Flower Shop Business Idea):

#১) আপনি রংবেরঙের ফুলকে একসাথে বেঁধে সেগুলিকে ফুলের তোড়া বানিয়ে ব্যবসা করতে পারেন। তাছাড়া এর জন্য ফুলগুলিকে সুন্দর করে বাধার কৌশল জানতে হবে আপনাকে।

#২) এই প্রক্রিয়াতে কিছু সময় লাগে যদিও। কিন্তু আপনি যদি একবার ফুল বাধা শিখে যান তাহলে খুব তাড়াতাড়ি, অল্পসময়ের মধ্যে আপনি কাজ করে ফেলবেন।

শুধু তাই নয় অল্প সময়ের মধ্যে অনেকগুলো ফুলের তোড়া বানাতে পারবেন, বিভিন্ন রকমের ফুল দিয়ে বিভিন্ন রকমের ডিজাইনের ফুলের তোড়া বানিয়ে রাখলে সেগুলি যেমন আকর্ষণীয় হয় এবং খুব তাড়াতাড়ি বিক্রিও হয়ে যায় তার সাথে দামটাও বেশি হলেও গ্রাহক বেশি দাম দিয়েও সুন্দর ফুলের তোড়া কিনতে দ্বিধাবোধ করবেন না।

#৩) আপনি চাইলে দিন হিসাবে ফুলের ব্যবসা করতে পারেন। এটি বেশ সফল ব্যবসা। এর জন্য আপনাকে দিনের উপরে খেয়াল রাখতে হবে। যেমন ধরুন কোন বারে, কোন দিনে, কোন ফুলের চাহিদা সবচেয়ে বেশি হয়। সেই দিকটা খেয়াল রাখলে এই ব্যবসাতে আপনি খুবই তাড়াতাড়ি সফলতা অর্জন করতে পারবেন।

যেমন ধরুন মঙ্গলবার এর আগে জবাফুল, বৃহস্পতিবার এর জন্য গাঁদা ফুল, আর যে পুজোতে যে ফুল সবচেয়ে বেশি লাগে সেগুলো যদি আপনার কাছে পর্যাপ্ত পরিমাণ থাকে তাহলে গ্রাহক আপনার দোকানে ভিড় করে থাকবে।

#৪) বিয়ে বাড়ি অথবা অন্য কোন অনুষ্ঠানে অনেক ফুলের অর্ডার নিতে পারেন, তা দিয়ে আপনার বড় একটা ফুলের ব্যবসা শুরু হয়ে যাবে। এমন সব অনুষ্ঠানে ভালোভাবে সাজানোর জন্য প্রচুর ফুলের প্রয়োজন হয়।

আপনি যদি সেই ফুলের যোগান দিয়ে থাকেন তাহলে ভালোমতো টাকা উপার্জন করতে পারবেন, এক একটি অনুষ্ঠান অথবা বিয়ে বাড়ি থেকে। আর যদি ফুল দেওয়া থেকে সেই ফুলগুলিকে সুন্দর করে সাজানোর দায়িত্বও আপনি পালন করে থাকেন তাহলে তো আরো বেশি উপার্জন করতে পারবেন।

#৫) যদি আপনি খুব বড় আকারে ব্যবসাটি করতে চান খুবই কম টাকা দিয়ে ব্যবসা শুরু করতে পারেন এবং কোন ডেকোরেশন সেন্টার থেকে অথবা ডেকোরেশন সম্পর্কে ধারণা রয়েছে তার কাছ থেকে ফুল দিয়ে ডেকোরেশন এর ট্রেনিং নিয়ে রাখতে পারেন।

#৬) ফুলের ব্যবসাটি করার সময় সর্বদা তাজা ফুল ব্যবহার করবেন। আর মার্কেট থেকে ততটাই ফুল নিয়ে রাখুন যতটা আপনি বিক্রি করতে পারবেন। কেননা বাসি ফুল কেউ নিতে চাইবে না। তাতে আপনার ব্যবসার ক্ষতি হতে পারে।

ফুলের দোকান করে এর সাহায্যে ব্যবসা করবেন কিভাবে:

ফুলের দোকান করে ব্যবসা (Flower Shop Business) করার সময় নিম্নলিখিত এই বিষয়গুলির উপরে খেয়াল রাখতে হবে:-

#১) সবার প্রথমে আপনাকে আপনার আশেপাশে সবচেয়ে ভালো ফুল সাপ্লায়ার এবং বড় স্তরের মালির সাথে যোগাযোগ করে কথা বলতে হবে তাদের সাথে।

#২) আপনাকে তাদের কাছ থেকে ভাল মানের সুন্দর ফুল জোগাড় করতে হবে।

#৩) এরপর আপনাকে সেই জায়গায় কথা বলতে হবে যেখানে আপনি আপনার ফুলের ব্যবসাটি শুরু করতে চান।

ফুলের দোকান করার জন্য জায়গা নির্বাচন:

ফুলের দোকান করার জন্য আপনার সবচেয়ে যেটা প্রয়োজনীয় বিষয় খেয়াল রাখতে হবে সেটা হল, কোন জায়গাতে দোকানটি করবেন। তাছাড়া আপনি নিজের ঘর থেকেও এই ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন।

আর যদি খুবই কম সময়ের মধ্যে অধিক পরিমাণে উপার্জন করতে চান, তাহলে ঘরের বাইরে এই ব্যবসাটি কে নিয়ে যেতে হবে আপনাকে। ধার্মিক কোন জায়গায়, মন্দিরের বাইরে সবচেয়ে বেশি ফুল বিক্রি হয়ে থাকে। তাছাড়া আপনি চাইলে যে কোন জায়গা থেকেই ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন।

এই ব্যবসা করার জন্য ইনভেস্টমেন্ট:

এই ব্যবসা শুরু করতে গেলে খুবই কম পরিমাণে আপনার ইনভেস্টমেন্ট করতে হবে। যেমন ধরুন ১৫,০০০ টাকা থেকে ২০ হাজার টাকার মধ্যে এই ব্যবসাটি ভালোভাবে শুরু করতে পারবেন।

তাছাড়া আপনি যদি চান তাহলে বড় স্তরে ও ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন। সে ক্ষেত্রে ফুলগুলি ভালোভাবে বিক্রি হওয়ার জন্য শোরুম করতে হতে পারে। যেখানে দুই থেকে তিন লাখ টাকা আপনার খরচ হতে পারে।

তবে এর মধ্যে ফার্নিচার, ইন্টেরিয়র এবং অন্যান্য সাজানোর জিনিসপত্র যার মধ্যে ফুলগুলি শোপিস হিসেবে রাখতে পারবেন। সবকিছুই চলে আসবে দুই থেকে তিন লাখ টাকার মধ্যে।

তাছাড়া সাধারণত যে কোন জায়গা থেকে যদি ব্যবসাটি শুরু করা যায়, তাহলে কুড়ি হাজার টাকা দিয়েও শুরু করতে পারবেন অনায়াসেই।

ফুলের দোকান করে তা থেকে ব্যবসা করে যে লাভ পেতে পারেন:

চিন্তার কোন কারণ নেই এই ব্যবসা থেকে খুব সহজে এবং খুব তাড়াতাড়ি আপনি লাভ পাবেন। ফুলের বাজার থেকে পাইকারি দামে ফুল কিনে এনে তার বুকে, মালা, ফুলের তোড়া ইত্যাদি বানিয়ে সেগুলি দুই থেকে তিনগুণ লাভ রেখে বিক্রি করতে পারবেন।

আবার এমনি ফুল যাতে যদি ১০০০ টাকা খরচ করে থাকেন, সেগুলো বিক্রি করে ২৫০০ থেকে ৩০০০ টাকা পর্যন্ত লাভ করতে পারবেন। অর্থাৎ আপনার এই ব্যবসাটি যত ভালো চলবে ততই উপার্জন করতে পারবেন।

এই ব্যবসার জন্য মার্কেটিং:

আপনি আপনার ফুলের দোকানের ব্যবসাটি মন্দিরের বাইরে দোকান দিয়ে বুকের ষ্টল দিয়ে ডেকোরেটর ইত্যাদির সাথে মিলিয়ে করতে পারেন। আপনি চাইলে হোলসেলার রূপেও ফুল বিক্রি করতে পারেন।

আবার আপনি চাইলে হোলসেলার হিসেবে বিভিন্ন দোকানে এবং ডেকোরেটরের কাছে ফুল দিয়ে ব্যবসা করতে পারেন।

যদি বড় আকারে নিয়ে যেতে চান ব্যবসাটি তাহলে ব্যবসার একটি ওয়েবসাইট বানিয়ে নিন। যার ফলে অনলাইনে ও আপনি অর্ডার নিতে পারবেন। এই ওয়েবসাইটে ফুলের বুকে, খুচরো ফুল, ফুলের তোড়া, বিভিন্ন রকমের মালা, এর ফটো অথবা ডিজাইন আপডেট করে গ্রাহকদের মন জিতে নিতে পারেন।

ফুলের প্যাকেজিং:

আপনার দ্বারা বানানো ফুলের বুকে অথবা মালা, আবার দিন অনুসারে যে ফুল আপনি বিক্রি করে থাকেন সেগুলির প্যাকেজিং এর উপরে বিশেষভাবে খেয়াল রাখতে হবে। যখন প্যাকেট করবেন তখন খেয়াল রাখবেন যে ফুলের বুকে অথবা মালা কোনরকম ভাবে নষ্ট অথবা ভেঙে বা ছিঁড়ে না যায়।

সবসময়ের জন্য প্যাকেট করার ক্ষেত্রে বড় প্লাস্টিক ব্যবহার করতে পারেন। এতে ফুলগুলি অনেকটা জায়গা পায় আর তার সাথে সাথে ফুলের বুকের সুন্দরতা কোন ভাবেই কম হয়না। যদি এক জায়গা থেকে অনেক দূরে নিয়ে যাওয়া হয় তাহলেও।

ফুলের ব্যবসায় ক্ষেত্রে যে বিষয়গুলো খেয়াল রাখতে হবে:

এই ব্যবসাটি শুরু করার আগে এই বিষয়ের উপরে খেয়াল রাখবেন যে, কোন ফুলের গন্ধে যেন আপনার এলার্জি না থাকে। কেননা বিভিন্ন মানুষের কিছু কিছু ফুলের গন্ধে এলার্জি থাকে। অর্থাৎ কোন ফুলের গন্ধে আপনার কোন রকম অসুবিধা যদি থেকে থাকে, তাহলে এই ব্যবসাটি শুরু করার আগে একটু হলেও ভেবে দেখবেন।

আর যদি সমস্ত ফুলের গন্ধে আপনার কোন অসুবিধা না হয়, তাহলে তো আর কথাই নেই, অনায়াসেই করতে পারবেন ব্যবসাটি।

Leave a Comment