About Deep Ocean Mission 2021: Working Processes & Benefits

ভারত সরকার আমাদের দেশে সামুদ্রিক বৈচিত্র্য অন্বেষণের লক্ষ্য নিয়ে গভীর মহাসাগর মিশন চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, যা এখনও অনাবিষ্কৃত অবস্থায় আছে।

এই উচ্চাভিলাষী প্রকল্পটি পরিচালনা করবেন অর্থ ও বিজ্ঞান মন্ত্রণালয় (এমওইএস)। এই মিশনের মাধ্যমে, সরকার লক্ষ্যস্থির করেছে যে সমুদ্রের তলদেশের জগতের অনুসন্ধান একই পদ্ধতিতে করা হবে যেমন (ISRO) মহাকাশের জন্য করে।

Deep Ocean mission in Bangla
Deep Ocean Mission in Bangla

আজকের এই আর্টিকেলে, আমরা গভীর মহাসাগর মিশন এবং দেশের জন্য এর তাৎপর্য সম্পর্কে দীর্ঘ আলোচনা করব।

গভীর মহাসাগর মিশন সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্যসমূহ

ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা (ISRO) মহাকাশ গবেষণা করায় মিশনটি একই পদ্ধতি অনুসরণ করা হবে বলে স্থাপন করা হয়েছে।

তবে, ভারতের গভীর মহাসাগর মিশন কেবলমাত্র অনাবৃত খনিজ, পাথর, জীবিত সামুদ্রিক প্রাণী, কোরাল বা বিভিন্ন প্রজাতির মাছ, অনাবিষ্কৃত প্রাণী, সামুদ্রিক শৈবাল, ইত্যাদি সম্পর্কে জানার জন্য আমাদের দেশের গভীর জলাশয়গুলি সম্পর্কে তথ্যানুসন্ধান, অধ্যয়ন, গবেষণা ও আবিষ্কারের জন্য পুরোদমে কাজ শুরু করবে।

মিশনটির জন্য ম্যান ফোর্স এবং রোবোটিক মেশিন উভয়ই ব্যবহৃত হবে, গভীর সমুদ্র খনন, শক্তি অন্বেষণ, প্রাপ্ত বস্তুর জরিপ এবং সমুদ্রের উপকূল জরিপ মতো কাজগুলি কঠোর মনোযোগ ও গুরুত্বসহকারে করা হবে।

“গভীর মহাসাগর মিশনের জন্য করা প্রযুক্তিগত উন্নয়নগুলি সরকারী প্রকল্প” মহাসাগর পরিষেবা, প্রযুক্তি, পর্যবেক্ষণ, সম্পদ মডেলিং এবং বিজ্ঞান (ও-স্মার্ট) মন্ত্রণালয় “দ্বারা অর্থায়ন করা হবে।

এই মিশনের মাধ্যমে মহাসাগর ও সাগরের গভীর তলদেশে পরিবেশ কিভাবে পরিবর্তন হয় সে সম্পর্কে অধ্যয়ন ও গবেষণা করা হবে।

গবেষণার সুবিধার জন্য জলের তলদেশ গবেষণায় যেসব প্রযুক্তি ব্যবহার করা হবে সেসব প্রযুক্তিগুলিতেও ফোকাস দেওয়া হবে। ডিপ ওশান মিশনে দুটি মূল প্রকল্প অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

একটি বিচ্ছুরিত উদ্ভিদ সদৃশ সাবমেরিনের মত যানবাহন, যা গভীর সমুদ্রে ৬০০০ মিটার গভীর পর্যন্ত অন্বেষণ করতে পারে তা এই মিশনে কাজে লাগানো হবে।

গভীর সমুদ্রের যে অংশগুলি আবিষ্কৃত হয়েছে এবং যে অংশগুলো এখনও অন্বেষণ ও অনুসন্ধান করা হয়নি উভয় অংশই এই মিশনের মাধ্যমে পুনরায় অনুসন্ধানের আওতায় আনা হবে। এটি ভারতের একটি কেন্দ্রীয় প্রকল্প

গভীর মহাসাগর মিশনের প্রধান লক্ষ্যগুলি নিম্নরূপ

গভীর সমুদ্র খনন, জলের তলদেশে যানবাহন এবং জলের তলদেশের রোবোটিক্স প্রযুক্তিগুলির উন্নয়ন; সমুদ্র জলবায়ু পরিবর্তন উপদেষ্টা পরিষদগুলির উন্নয়ন; সমুদ্রের গভীরে জীব বৈচিত্র্য অনুসন্ধান ও সংরক্ষণের জন্য প্রযুক্তিগত উদ্ভাবন; গভীর সমুদ্র জরিপ এবং অন্বেষণ;

মহাসাগর থেকে শক্তি এবং মিঠা পানীয় জলের বিষয়ে ধারণা ও উৎস অনুসন্ধান, এ বিষয়ে অধ্যয়ন, এবং সামুদ্রিক জীববিদ্যার সম্পর্কে উন্নত গবেষণার জন্য উন্নত মেরিন স্টেশন স্থাপন করা গভীর সমুদ্র মিশনের প্রধান লক্ষ্য।

ইন্ডিয়ান ওশান রিম অ্যাসোসিয়েশন ও আন্তর্জাতিক মেরিটাইম অর্গানাইজেশন (আইএমও) মহাসাগরের গভীরে অভ্যন্তরীণ নৌপথের লবণাক্ততা
মহাসাগরের তলদেশ এবং এর বৈশিষ্ট্য ভারতে পানির চাপ এবং জল সংকট প্রতিরোধে ভারতকে গভীর মহাসাগর মিশনে সাফল্য পেতে সাহায্য করবে।

ডিপ ওশান মিশন পরিকল্পনাটি ভারতকে মধ্য ভারত মহাসাগর অববাহিকায় (সিআইওবি) সাগর তলদেশের রিসোর্সগুলি দক্ষতার সাথে ব্যবহার ও সংরক্ষণের উপযোগী করতে সহায়তা করবে।

এই প্রকল্পের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য হল পলিম্যাটালিক নোডুলস (পিএমএন) খনি অনুসন্ধান এবং খনিজ পদার্থ আহরণ করা। ইউএন ইন্টারন্যাশনাল সিবেড কর্তৃপক্ষ এই পলিম্যাটালিক নোডুলগুলি অনুসন্ধানের জন্য ভারতকে সিআইওবিতে 75000 বর্গ কিলোমিটার বরাদ্দ করেছে।

পলিম্যাটালিক নোডুলস (পিএমএন) অর্থ হয়ত অনেকেই জানেন না, পলিমেটালিক নোডুলগুলি হ’ল ফে-এমএন অক্সাইডের জমা এগুলি আলুর আকৃতির এবং ছিদ্রযুক্ত, এগুলোর রঙ কালো মাটির বর্ণের, আকার ২ থেকে ১০ সেমি ব্যাসের পর্যন্ত হয়ে থাকে।

এই বিরল পৃথিবীর খনিজগুলির ভিতর স্বর্ণ, রৌপ্য এবং দস্তার দারুণ উৎস হিসেবে বিবেচিত হয়।

পিএমএন খনি অনুসন্ধানে ভূগর্ভস্থ ৭৫,০০০ বর্গমিটার এলাকা যা ভারতকে অর্পণ করা হয়েছে, সেই অংশটি খনন করলে এই খনির দেখা মিলতে পারে। 1987 সালে ভারত ‘পাইওনিয়ার ইনভেস্টর’ হিসাবে মর্যাদা অর্জন করে এবং এই পদমর্যাদাপ্রাপ্ত প্রথম দেশ ভারত।

এরপরে পিএমএন খননের জন্য এটি দেড় লক্ষ বর্গকিলোমিটার এলাকা দেওয়া হয়েছিল, তখন থেকেই পিএমএন অনুসন্ধানের সাথে ভারত জড়িত।

একচেটিয়া অর্থনৈতিক অঞ্চল (ইইজেড) কী?

এটি সমুদ্রের আইন বিষয়ক জাতিসংঘের কনভেনশন (ইউএনসিএলওএস) দ্বারা নির্ধারিত সমুদ্রের একটি অঞ্চল, যার একটি দেশের সামুদ্রিক সম্পদ অনুসন্ধানের নির্দিষ্ট অধিকার রয়েছে।

ভারতের প্রায় ২.3737 মিলিয়ন বর্গকিলোমিটারের একটি এক্সক্লুসিভ অর্থনৈতিক অঞ্চল (ইইজেড) রয়েছে এবং এর বেশিরভাগ অংশই অনাবিষ্কৃত অবস্থায় আছে, যা অনুসন্ধান করা গভীর সমুদ্র মিশনের একটি লক্ষ্য।

অন্যান্য দেশগুলি পানির তলসমূহের অন্বেষণ করে মধ্য ভারত মহাসাগর অববাহিকা (সিআইওবি) ছাড়াও পিএমএনও আবিষ্কৃত হয়েছে মধ্য প্রশান্ত মহাসাগরে। এটি ক্লারিয়ন-ক্লিপারটন জোন নামেও পরিচিত।

চীন, ফ্রান্স, জার্মানি, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, রাশিয়া সহ বড় বড় দেশগুলি পলিমেটালিক নোডুলস অনুসন্ধানের জন্য যেসব দেশ আইএসএর সাথে চুক্তি করেছে সেগুলির তালিকার একটি অংশ।

পলিমেটালিক নোডুলস অনুসন্ধান তালিকাটি কেবলমাত্র প্রধান দেশগুলিতে সীমাবদ্ধ নয়, কয়েকটি দ্বীপপুঞ্জের দেশগুলি পিএমএন-এর জন্য অনুসন্ধান শুরু করেছে, উদাহরণস্বরূপ: মধ্য প্রশান্ত মহাসাগরের একটি স্বাধীন দেশ কিরীবতি।

গভীর মহাসাগর মিশনের ফলাফল

গভীর সমুদ্র মিশনে যেসব সামুদ্রিক প্রানী ও উদ্ভিদ প্রজাতি আবিষ্কার হবে তা সমুদ্রের অনেক গভীরে অবস্থিত।

আর সমুদ্রের গভীরে তাপমাত্রা এবং আলোর পরিমাণ অনেক কম, তাই এত গভীরে এবং কম তাপমাত্রায় যেসব প্রাণো এবং উদ্ভিদ টিকে থাকতে পারে, তারা যেকোন প্রতিকূল পরিস্থিতিতে টিকে থাকতে পারবে বলেই ধারণা করা হয়।

গভীর সমুদ্র মিশন শেষ হলেই এ সম্পর্কে আরও বিস্তারিত তথ্য জানা সম্ভব হবে, সেই সাথে অনেক অজানা প্রাণী, খনিজ, জীবাশ্ম, এবং সমুদ্র তলদেশের অনেক রহস্যও উন্মোচিত হবে।

জরুরী কথা

গভীর সমুদ্র মিশন একটি এডভান্স লেভেলের প্রকল্প, যা বাস্তবায়নে অনেক অর্থ, প্রযুক্তি এবং জনবল সাথে প্রচেষ্টার প্রয়োজন।

একটি দেশের সমুদ্র হচ্ছে সে দেশের বহু সম্পদের রত্ন ভান্ডার, ঠিকভাবে অনুসন্ধান করা গেলে সমুদ্র হতে অনেক দূর্লভ খনিজ, মিঠা পানির উৎস, সামুদ্রিক প্রাণী, গবেষনার তথ্য, সাবমেরিন স্টেশন তৈরির তথ্যাদি ও স্থান পাওয়া সম্ভব, যা একটি দেশকে উন্নতির শীর্ষে পৌছে দিতে পারে।

সুপ্রিয় পাঠক, আশা করি গভীর সমুদ্র মিশন সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানানোর প্রচেষ্টা সফল হয়েছে। পোস্টটির বিষয়ে কোন তথ্য জানানোর হলে বা কোন প্রশ্ন থাকলে কমেন্ট সেকশনে কমেন্ট করুন।

কেন্দ্র সরকারের সমস্ত যোজনা Click Here
পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত প্রকল্প Click Here
বাংলাভুমি হোম Click Here

1 thought on “About Deep Ocean Mission 2021: Working Processes & Benefits”

  1. লেখাটি পড়ে অনেক ভাল লাগল। এমন সুন্দর সুন্দর লেখা আরও পড়তে চাই।

    Reply

Leave a Comment