খাবারে স্বাদ বদল করতে চাইলে, বাড়িতেই চাষ করুন বিভিন্ন রকমের হার্বস

Cultivate Different types of Herbs at Home: এই ধরনের গাছগুলি বা হার্বস গুলি রান্নার স্বাদ বদল করার পাশাপাশি  দৈনন্দিন জীবনে অনেক কাজে আসে। তবে শুধুমাত্র গাছ লাগালেই হবেনা, যত্ন নিতে হবে সঠিকভাবে।

তবে তো তাদের থেকে আপনি ভাল প্রতিফল পাবেন। ইন্টারনেটের জগতে বিভিন্ন রকম কুকিং শো দেখার ফলে এই সব ধরনের হার্বসগুলি রান্নায় ব্যবহৃত হওয়ার কথা আমরা জানতে পেরেছি।

এগুলি রান্নার স্বাদ বদল করার পাশাপাশি শরীরের ভীষণভাবে উপকার করে। তবে সমস্যাটা কোথায় জানেন! এগুলি সব সময় বাজারে পাওয়া যায় না, তাই আপনার বাড়িতে জায়গা থাকলে সেখানে, অথবা ছাদে, টবে, অনায়াসেই চাষ করে নিতে পারেন এগুলি।

Ways to Cultivate different types of herbs at home in Bengali
Ways to Cultivate different types of herbs at home in Bengali

চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক, কি কি চাষ করতে পারবেন আপনার কিচেন গার্ডেনে –

১) বাসিল: Basil

এটি এক প্রকার ঔষধি গাছ হিসেবে বলতে পারেন। এগুলো মূলত ইতালিয়ান খাবারে ব্যবহার করা হয় বেশি। তাছাড়া তুলসী গাছ এবং বাসিল অনেকটাই এক জাতীয়। তবে স্বাদে ও গন্ধে সামান্য একটু পরিবর্তন রয়েছে।

তাই আপনি যদি মনে করেন তাহলে এই গাছ যদি না পেয়ে থাকেন তাহলে তুলসী গাছ লাগিয়ে নিতে পারেন। সেটাতেও আপনার কাজ হাসিল হয়ে যাবে। গরমের সময় দিনে একবার জল দিলেই হবে।

প্রয়োজনমতো রান্নায় ব্যবহার করতে পারেন। তাছাড়া সর্দি কাশির উপশম করতে বাসিল অথবা তুলসী ভীষণভাবে উপকারী। প্রতিদিন সকালে কমপক্ষে দু’তিনটে তুলসী অথবা বাসিল পাতা চিবিয়ে খেলে কাশি উপশম হয়ে যায়।

২) পুদিনা পাতা: Mint leaves

পুদিনার শরবত দারুন খেতে। তার সাথে সাথে শরীরের বিভিন্ন উপকারে আসে। তাছাড়া কাবাব হোক অথবা ভাজাভুজি, পুদিনা পাতার চাটনি হলে একেবারে জমে যায়। তবে এই সুস্বাদু উপকারী গাছ আপনি বাড়িতেই খুব সহজেই চাষ করতে পারেন।

বাজার থেকে পুদিনা পাতা কিনে আনলে পাতাগুলি কাজে লাগার পাশাপাশি গাছগুলি জলে এক রাত ভিজিয়ে রাখুন দেখবেন কেমন শিকড় ছেড়েছে।

তারপরের দিন টবে অথবা অন্য কোন জায়গায়, যেখানে আপনি চাষ করতে চাইছেন সেখানে পুঁতে দিন। তারপর সেই টপ অথবা পুদিনার গাছগুলো আলোতে রাখুন, দিনে পরিমানমতো জল দিন, দেখবেন আপনার বাড়িতেই পুদিনা গাছ কেমন বেড়ে উঠছে।

৩) কারি পাতা: Curry leaves

কারি পাতা চানাচুর থেকে শুরু করে বিভিন্ন রকমের খাবার তৈরিতে ব্যবহার করা হয়়। তার সাথে সাথে রান্নায় ব্যবহার করা হয়়। কারিপাতা চুল এবং ত্বকের জন্য উপকারী তো বটেই তার সাথে সাথে স্বাস্থ্য গুণে ভরপুর।

কারিপাতা দক্ষিণ ভারতীয় রান্নাতে বেশি পরিমাণে ব্যবহার করা হয়। কারিপাতা গাছ বেশ খানিকটা বড় হয়ে থাকে, সেই কারণে টবে লাগানো টা একটু অসুবিধা হতে পারে। বাগান থাকলে ভালই হয়, তবে এখন আবার উন্নত প্রযুক্তিতে নার্সারিতে টবে লাগানোর জন্য কারিপাতা গাছ পাওয়া যাচ্ছে।

মাংস এবং আলুর দম ও বিভিন্ন তরকারিতে ব্যবহার করতে পারেন কারি পাতা। যে কোন গাছের দোকানে কারি পাতার বীজ আপনি পেয়ে যাবেন। তারপরে নিয়ে মাটিতে ছড়িয়ে দিন, দেখবেন কেমন সুন্দর গাছ বেরিয়েছে।

৪) ধনেপাতা: Coriander leaves

ধনেপাতা তো সারা বছরই আপনার বিরক্তির কারণ হবে না। কারণ প্রতিটি তরকারি, খাবার সবেতেই ধনেপাতা ব্যবহার করলে তার স্বাদ বেড়ে যায় অনেক গুণ।

ডাল থেকে মাছের ঝোল, অনেকে মাংস তেও পছন্দ করেন ধনেপাতা। বাঙালি এবং পাঞ্জাবি খাবারে ধনেপাতা বেশি পরিমাণে ব্যবহৃত হয়। ধনেপাতার বীজ দু’রাত জলে ভিজিয়ে তারপরে মাটিতে ছড়িয়ে দিন। কয়েকদিনের মধ্যেই দেখবেন সুন্দর গাছ বেরিয়েছে।

৫) লেমন গ্রাস: Lemon grass

লেমনগ্রাস চাইনিজ রা ব্যাপক পরিমাণে ব্যবহার করেন। তারা প্রতিটি খাবার তৈরিতে লেমনগ্রাস ব্যবহার করে থাকেন। চাইনিজ ঔষধি গাছ হিসেবে পরিচিত এই লেমনগ্রাস। তবে জানেন কি লেমনগ্রাস পাকস্থলীর নানারকম সমস্যা দূর করতে পারে!

এই লেমনগ্রাস আবার ‘থাইপাতা’ নামেও পরিচিত। এদিকে বিপুল পরিমাণে ব্যবহার না হলেও যেকোনো নার্সারি অথবা গাছের দোকানে আপনি পেয়ে যেতে পারেন লেমনগ্রাস। স্যুপ খাওয়ার জন্য অথবা লেমনগ্রাস টি বানিয়ে খেতে পারেন আপনি। খুব সহজেই টবে লাগালে টবেতেই কেমন বেড়ে উঠবে লেমনগ্রাস।

৬) ল্যাভেন্ডার: Lavender

মিষ্টি সুগন্ধির জন্য আপনি একটু যত্ন নিয়েই বাড়িতে টবে লাগিয়ে নিতে পারেন ল্যাাভেন্ডার। বেগুনি রং এর সুন্দর একগুচ্ছ ল্যাভেন্ডার আপনার ঘরের পরিবেশ পাল্টে দেওয়ার সাথে সাথে অনেক কাজে আসবে। ত্বক ও চুলের জন্য বিশেষভাবে উপকারী এই ল্যাভেন্ডার।

৭) রোজমেরি: Rosemary

রোজমেরি ও সুন্দর মিষ্টি গন্ধের  জন্য বিখ্যাত। যে কোন গাছের দোকানে, অনলাইনে আপনি পেতে পারেন রোজমেরি গাছ। টবে লাগানোর পাশাপাশি হালকা যত্নে গাছ আপনার বাড়িতে সব সময় বিরাজ করবে। রোজমেরিও ত্বক ও চুলের যত্নে বিশেষভাবে উপযোগী।

৮) নীল অপরাজিতা: Blue invincibility

নীল অপরাজিতা, যাকে এক কথায় ‘নীলকন্ঠ’ নামেই অনেকে চেনেন। পুজো অর্চনা করার পাশাপাশি অনেক আয়ুর্বেদিক গুণ রয়েছে নীল অপরাজিতায়, সেটা কি আপনি জানেন? ত্বক ও চুলের যত্নের পাশাপাশি এই নীল অপরাজিতা দিয়ে চা বানিয়ে খেতে পারেন আপনি, যাকে ব্লু টি বলা হয়।

যা শরীরে অনেক বেশি উপকারী। চাইনিজ রা এই টি অধিক পরিমাণে খেয়ে থাকেন, তবে ইদানিং ভারতীয় অনেকেই এর উপকারিতা জানার পর ব্লু টি খেতে পছন্দ করেন যেমন সুন্দর তেমনি শরীরে উপকারে আসে অনেকটাই। অ্যান্টি-এইজিংও  বলতে পারেন নীল অপরাজিতাকে।

তাহলে আর কি, এইসব গাছগুলো আপনি বাড়িতে অনায়াসেই চাষ করতে পারেন। ঘরের সৌন্দর্য বজায় থাকার পাশাপাশি, রান্নার স্বাদ এবং রূপচর্চা ও স্বাস্থ্যের দিকেও খেয়াল রাখতে পারবেন একই সাথে। যেহেতু এগুলো সারাবছর আপনি বাজারে কিনতে পাবেন না, সেই জন্য বাড়িতেই বানিয়ে নিলে সবচেয়ে বেশি সুবিধা।

Leave a Comment